প্রাক্তন সিবিআই প্রধান অলোক ভার্মার বিরুদ্ধে সেন্ট্রাল ভিজিলেন্স কমিশন (সিভিসি) যে তদন্ত করছিল, সেই তদন্তে ভার্মার বিরুদ্ধে দুর্নীতির কোনও প্রমাণ মেলেনি বলে দাবি সুপ্রিম কোর্টের প্রতিনিধির।
আদালতের নজরদারিতে এই তদন্ত চলবে বলে জানিয়েছিল সুপ্রিম কোর্ট। সুপ্রিম কোর্টের বিশেষ প্রতিনিধি হিসেবে এই তদন্তের উপর নজর রাখছিলেন প্রাক্তন বিচারপতি এ কে পট্টনায়ক। সংবাদমাধ্যম এন ডি টিভিকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তাঁর দাবি, সিভিসি’র করা তদন্তে অলোক ভার্মার বিরুদ্ধে দুর্নীতির কোনও প্রমাণ মেলেনি। তাঁর মতে, প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন নিয়োগ কমিটির অলোক ভার্মাকে নিজের পদ থেকে অপসারণের সিদ্ধান্ত অত্যন্ত দ্রুততার সঙ্গে নেওয়া। সিবিআই-এর অপসারিত স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা অলোক ভার্মার বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়ার যে অভিযোগ করেছিলেন, তার তদন্তে জোরালো কোনও প্রমাণ পাওয়া যায়নি বলে জানিয়েছেন পট্টনায়ক।
উল্লেখ্য, মঙ্গলবার সুপ্রিম কোর্ট জানায়, সিবিআই-এর প্রধানের পদ থেকে অলোক ভার্মাকে রাতারাতি সরিয়ে দেওয়ার কেন্দ্রীর সরকারের সিদ্ধান্ত সঠিক না। তবে ভার্মার ভবিষ্যৎ কী হবে তা নিয়ে সংশ্লিষ্ট নিয়োগ কমিটি আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেবে বলে জানিয়েছিল আদালত। সুপ্রিম কোর্টের এই নির্দেশ মতো পরদিনই কাজে যোগ দেন অলোক ভর্মা। অন্যদিকে, ভার্মার ভবিষ্যৎ নিয়ে আলোচনায় বসে প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন নিয়োগ কমিটি। এই কমিটির বৈঠকে বৃহস্পতিবার সিদ্ধান্ত হয়, অলোক ভার্মার বিরুদ্ধে যেহেতু দুর্নীতির তদন্ত চলছে, তাই তাঁকে সে পদে রাখা যাবে না। দেশের প্রধান বিচারপতির প্রতিনিধি ও প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী এই সিদ্ধান্তের পক্ষে রায় দেন। যদিও প্রস্তাবের বিরোধিতা করেছিলেন বিরোধী দলনেতা মল্লিকার্জুন খাড়গে।
এরপরই সিবিআই ডিরেক্টর পদ থেকে সরিয়ে, ফায়ার সার্ভিস, সিভিল ডিফেন্সের ডিজি পদে বদলি করে দেওয়া হয় ভার্মাকে। যদিও এই নয়া দায়িত্ব গ্রহণ না করে শুক্রবারই চাকরি থেকে ইস্তফা দেন অলোক ভার্মা। তাঁর বিরুদ্ধে দুর্নীতির প্রমাণ মেলেনি বলে বিচারপতির এই মন্তব্যে বিরোধীদের অভিযোগই মান্যতা পেল। বিড়ম্বনা বাড়ল কেন্দ্রের।

You may also like