কর্মস্থলে যৌন হেনস্থার ঘটনা রুখতে সমস্ত সরকারি দফতরে সিসিটিভি ক্যামেরা বসানোর নির্দেশ দিল মাদ্রাজ হাইকোর্ট। ঘটনার সূত্রপাত কয়েকদিন আগে। জয়েন্ট ডিরেক্টর অফ দ্য ডিরেক্টরেট অফ ভিজিলান্স অ্যান্ড অ্যান্টি কোরাপশন এস মুরুগান এর বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ এনেছিলেন এক মহিলা আইপিএস অফিসার।  তাঁর অভিযোগ, তাঁকে অফিসের পরও ফোন করে বিরক্ত করতেন ওই আধিকারিক, তাঁর শরীর নিয়ে অশালীন মন্তব্য করতেন, অনুমতি ছাড়া ছবি তুলতে চাইতেন। এমনকী জবরদস্তি তাঁকে জড়িয়ে ধরারও চেষ্টা করতেন বলে অভিযোগ মহিলা আইপিএসের।

নিয়ম অনুযায়ী সংশ্লিষ্ট অভ্যন্তরীণ কমিটির (আইসিসি) কাছে অভিযোগ জানিয়েছিলেন ওই মহিলা আইপিএস। যার ভিত্তিতে অভিযুক্ত পুলিশ অফিসারের বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা রুজু করে পুলিশ। কিন্তু সংশ্লিষ্ট বিভাগের অভ্যন্তরীণ কমিটির এই তদন্ত করার বা পুলিশের তাঁর বিরুদ্ধে  ব্যবস্থা নেওয়ার কোনও অধিকার নেই বলে দাবি তুলে আদালতে পাল্টা মামলা করেন অভিযুক্ত অফিসার।

কিন্তু তাঁর আবেদন খারিজ করে দিয়ে মাদ্রাজ হাইকোর্ট বলেছে, ১৫ বছর ধরে কাজ করা একজন আইপিএস অফিসার, তিনি একজন মহিলা হয়ে যখন এমন গুরুতর অভিযোগ আনছেন তখন তা যথেষ্ট গুরুত্ব দিয়ে দেখা উচিত।  আদালতের প্রশ্ন, যদি একজন মহিলা আইপিএস অফিসারকে কর্মস্থলে এই ধরনের সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়, তাহলে অন্যান্য অধস্তন অফিসার এবং সাধারণ মানুষের কী হবে?

এই ঘটনার প্রেক্ষিতে রাজ্যের মুখ্য সচিবকে সমস্ত সরকারি দফতরে সিসিটিভি ক্যামেরা বসানোর নির্দেশ দিয়েছে মাদ্রাজ হাইকোর্ট। পাশাপাশি পুলিশের শীর্ষ আধিকারিকদের কটাক্ষ করে হাইকোর্ট বলেছে, পুলিশ অন্যদের বাড়ি সামলানোর জন্য সিসিটিভি লাগানোর পরামর্শ দেয় কিন্তু নিজের ঘরে সিসিটিভি লাগায় না। তাদের চেম্বার, দফতরেও সিসিটিভি বসানোর নির্দেশ এদিন দেন বিচারপতি।

You may also like