সিবিআই-এর অপসারিত ডেপুটি ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানার বিরুদ্ধে দুর্নীতি মামলায় তদন্তের নির্দেশ দিল দিল্লি আদালত। শুক্রবার বিচারপতি নাজমি ওয়াজিরি ঘুষ কাণ্ডে অভিযুক্ত রাকেশ আস্থানা ছাড়াও সিবিআই অফিসার দেবেন্দ্র কুমার ও মনোজ প্রসাদের বিরুদ্ধে কেস বাতিলের আবেদন খারিজ করেন। এছাড়া রাকেশ আস্থানার অন্তর্বতীকালীন জামিনের আবেদনও নাকচ করে দেন। সিবিআই-কে ১০ সপ্তাহের মধ্যে রাকেশ আস্থানাসহ অন্য দু’জনের বিরুদ্ধে তদন্ত শেষ করতে নির্দেশ দিয়েছে আদালত।
হায়দরাবাদের ব্যবসায়ী সতীশ সানা এফআইআর দায়ের করেছিলেন, সিবিআই ডেপুটি ডিরেক্টর রাকেশ আস্তানা, ডেপুটি সুপারিন্টেনডেন্ট দেবেন্দ্র কুমার ও দালাল মনোজ প্রসাদের বিরুদ্ধে। সতীশ সানার অভিযোগ ছিল, মাংস ব্যবসায়ী মইন কুরেশি কেসে নিজেকে ছাড়াতে ঘুষ দিয়েছিলেন ওই ৩ জনকে। রাকেশ আস্থানা ও অন্যান্যরা এই এফআইআর-কে চ্যালেঞ্জ জানিয়ে দিল্লি আদালতের দ্বারস্থ হন। বৃহস্পতিবার এই পিটিশন নাকচ করে দেন বিচারপতি নাজমি ওয়াজিরি। তিনি বলেন, ঠিকঠাক তদন্তের আগে এই পিটিশন গ্রহণীয় নয়।
উল্লেখ্য, সিবিআই প্রধানের পদ থেকে অলোক ভার্মার অপসারণের ঠিক একদিন বাদেই, সিবিআই-এর অপসারিত ডেপুটি ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানার পিটিশন বাতিল করল আদালত।
প্রসঙ্গত, ২০১৮ সালের অক্টোবরে সিবিআই প্রধান অলোক ভার্মা এবং ডেপুটি ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা একে অন্যের বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ এনেছিলেন। মাংস ব্যবসায়ী মইন কুরেশি মামলায় রাকেশ আস্থানা ঘুষ নিয়েছিলেন, এই অভিযোগে খোদ ডেপুটি ডিরেক্টর আস্থানার বিরুদ্ধে মামলা পর্যন্ত চালু করেছিল সিবিআই। ঠিক এরপরই কেন্দ্রকে চিঠি লিখে আস্থানা পালটা অভিযোগ করেন, তিনি নন, ঘুষ নিয়েছেন খোদ সিবিআই ডিরেক্টর আলোক ভার্মা।

You may also like