সুপার রিচদের উপর ৪০% কর ও মহামারি সেস নিয়ে IRS অফিসারদের রিপোর্টে তোলপাড়, ৩ আমলার বিরুদ্ধে চার্জশিট

দেশজুড়ে করোনা সঙ্কটের মধ্যেই ৩ সিনিয়র আইআরএস আধিকারিকের বিরুদ্ধে চার্জশিট জারি। কেন্দ্রীয় প্রত্যক্ষ কর বোর্ড বা CBDT সূত্রে জানা গিয়েছে এই খবর। জানা গিয়েছে, ওই ৩ সিনিয়র আমলা যে রিপোর্ট তৈরি করেছেন তা প্রকাশ্যে আসার পরই কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রকের নির্দেশে সিবিডিটি কঠোরভাবে তদন্ত প্রক্রিয়া শুরু করেছে। একই সঙ্গে তাঁদের পদ থেকেও সরিয়ে দেওয়া হয়েছে।

ঘটনার সূত্রপাত কয়েকদিন আগে। করোনাভাইরাস মহামারির জেরে থমকে যাওয়া অর্থনীতিকে চাঙা করতে ধনীদের উপর কর চাপানোর প্রস্তাব সম্বলিত রিপোর্ট নিয়ে তোলপাড় পড়ে যায়। সেন্ট্রাল বোর্ড অফ ডাইরেক্ট ট্যাক্সেস বা CBDT সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হওয়া এই সংক্রান্ত খবর নিয়ে তদন্ত শুরু করে দিয়েছে। ইতিমধ্যেই জারি হয়ে গিয়েছে চার্জশিটও। ভাইরাল হওয়া খবরগুলোতে ফোর্স নামে একটি ৪৪ পাতার রিপোর্টের উল্লেখ রয়েছে। সেই রিপোর্টটি তৈরি করেছেন ভারতীয় রেভেনিউ সার্ভিসের কয়েকজন অফিসার।

সিবিডিটি সূত্রের খবর, অভিযুক্ত রেভেনিউ সার্ভিস অফিসারেরা FORCE (ফিসক্যাল অপশন্স অ্যান্ড রেসপন্স টু দ্য কোভিড-১৯ এপিডেমিক) নামে ওই রিপোর্টে দেশের অতি ধনী বা সুপার রিচদের উপর ৪০% কর এবং করোনা মহামারি সেস চাপানোর প্রস্তাব দেন। পাশাপাশি বিদেশি সংস্থার উপর ট্যাক্সের হার বাড়ানোরও সওয়াল করা হয়। করোনা পরবর্তী দেশের অর্থনীতিকে বাঁচাতে এটাই উপায় বলে ফোর্স নামের ওই রিপোর্টে দাবি করেন অফিসারেরা। সেই রিপোর্টই প্রকাশ্যে চলে আসে। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয় তা। তারপরই তোলপাড় পড়ে যায় নর্থ ব্লকে।

কেন্দ্রীয় অর্থ মন্ত্রকের তরফে জানানো হয়েছে আইআরএস আধিকারিকদের রাজস্ব বাড়ানোর জন্য কর বৃদ্ধির প্রস্তাব বিশৃঙ্খল আচরণ হিসেবেই দেখা হচ্ছে। এই ধরনের কোনও রিপোর্ট চাওয়া হয়নি এবং এই রিপোর্ট তৈরির কাজ আইআরএস অ্যাসোসিয়েশনের নীতির পরিপন্থী।

সিবিডিটির চেয়ারম্যান আইআরএস অ্যাসোসিয়েশনের পদাধিকারীদের কাছে এ বিষয়ে জবাবদিহি চেয়েছেন। উল্লেখ্য ২৩ এপ্রিল তাঁর কাছেই ফোর্স রিপোর্টটি পেশ করা হয়েছিল।

রিপোর্টে অফিসারেরা বার্ষিক এক কোটি বা তাঁর বেশি আয় করা ব্যক্তিদের উপর ৪০ শতাংশ হারে আয়কর চাপানোর করার প্রস্তাবের পাশাপাশি পাঁচ কোটির বেশি আয় সম্পন্ন ব্যক্তিদের উপর একই হারে ওয়েলথ ট্যাক্স নেওয়ার কথাও বলা হয়েছে এই রিপোর্টে। এছাড়াও ক্ষতিগ্রস্তদের ত্রাণ সামগ্রী পৌঁছে দিতে ১০ লক্ষের বেশি আয় করা ব্যক্তিদের উপর অতিরিক্ত ৪ শতাংশ কোভিড রিলিফ সেস লাগু করার কথা বলার পাশাপাশি বিদেশি সংস্থার উপর অধিক মাত্রায় কর চাপানোর পক্ষেও সওয়াল করা হয়েছে এই রিপোর্টে।

Comments
Loading...