VIP Protection: বাংলায় ৩ হাজারেরও বেশি ভিআইপি! দেশে সর্বোচ্চ, বহু পিছনে কাশ্মীর, অসম

নেতা, মন্ত্রী বা দরের আমলা মানেই আগেপিছে বলয়ের ঢঙে অত্যাধুনিক অস্ত্র হাতে জওয়ানদের উপস্থিতি। গাড়ির আগে পরে পুলিশ এস্কর্ট।

২০১৯ সালে দেশে ১৯ হাজারেরও বেশি মন্ত্রী, সাংসদ, বিধায়ক, বিচারপতি, বিচারক, আমলা মানে চলতি কথায় ভিআইপিকে নিরাপত্তার জোগান দিয়েছেন মোট ৬৬ হাজারেরও বেশি পুলিশ কর্মী। ব্যুরো অফ পুলিশ রিসার্চ অ্যান্ড ডেভেলপমেন্ট (BPR&D) প্রকাশিত সাম্প্রতিকতম রিপোর্ট বলছে এই তথ্য।

রিপোর্ট আরও বলছে, দেশের মধ্যে ২০১৮ এর তুলনায় ২০১৯ সালে মোট ভিআইপির সংখ্যা কমেছে। ২০১৮ সালে ভিআইপি নিরাপত্তা পেতেন মোট ২১,৩০০ জন। ২০১৯ সালে তা কমে হয়েছে ১৯,৪৬৭। অথচ পশ্চিমবঙ্গে ভিআইপির সংখ্যা বেড়েছে। যা দেশে সর্বোচ্চ।

BPR&D এর রিপোর্ট থেকে জানা যাচ্ছে, ২০১৯ সালে বাংলায় ৩,১৪২ জন ভিআইপিকে নিরাপত্তা দিয়েছেন মোট ৬,২৪৭ জন পুলিশ কর্মী। ২০১৮ সালে বাংলায় মোট ২,৭৬৯ জন ভিআইপিকে নিরাপত্তা দিয়েছিলেন ৫,৩১৮ জন পুলিশ কর্মী।

দ্বিতীয়স্থানে পাঞ্জাব, ২০১৯ সালে ভিআইপির সংখ্যা ২,৫৯৪। ভিআইপি প্রোটেকশনের জন্য পাঞ্জাবে ৭,৭১৪ জন পুলিশ কর্মী। তৃতীয় হয়েছে বিহার (২,৩৪৭), ২০১৮ য় তারা ছিল প্রথম স্থানে (৪,৬৭৭)।

পুলিশ কর্তারা বলছেন, এই রিপোর্টে একটা তাৎপর্যপূর্ণ ইঙ্গিত রয়েছে। অনুপ্রবেশ বা উগ্রপন্থা জর্জরিত কাশ্মীর, ছত্তিসগড়, অসম বা মনিপুরের তুলনায় আপাতভাবে শান্ত রাজ্যগুলোতে অনেক বেশি ভিআইপিকে নিরাপত্তা জোগাতে হচ্ছে। এক সিনিয়ার পুলিশ অফিসার জানালেন, ভিআইপি ট্রিটমেন্ট কে পাবেন আর কে পাবেন না তা একেবারেই রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত। তাই আপাতভাবে আইন-শৃঙ্খলা প্রশ্নের সঙ্গে ভিআইপি নিরাপত্তার সম্পর্ক কম। আবার ইউপি, পাঞ্জাবের মতো রাজ্যে পুলিশ প্রোটেকশনকে সামাজিক সম্মান হিসেবে দেখার চল আছে।

পশ্চিমবঙ্গ একটি বড়ো রাজ্য। সাংসদ, বিধায়কের সংখ্যা যেমন বেশি তেমন আমলা বা উচ্চপদস্থ কর্মচারীও বেশি। রিপোর্ট বলছে, ১ বছরে বাংলায় ভিআইপি বেড়েছেন ৩৭৩ জন।

সবচেয়ে কম ভিআইপি গোয়াতে। সেই রাজ্যে মাত্র ৩২ জন ভিআইপি প্রোটেকশন পান। তারপর যথাক্রমে ওড়িশা (৪৮) ও কেরালা (৫৭)।

Comments
Loading...