বাংলাই বিনিয়োগের আদর্শ জায়গা, ৩৫ টি দেশের প্রতিনিধিকে বার্তা অমিত মিত্রের, দিঘায় বিজনেস কনক্লেভের প্রস্তুতি রাজ্যের

বিনিয়োগের আদর্শ জায়গা পশ্চিমবঙ্গ। সুবিধাজনক ভৌগলিক অবস্থান, রাজ্য সরকারের সর্বাত্মক সহযোগিতা, তার সঙ্গে যুক্ত হয়েছে রাজ্যের ১২.৫৮ শতাংশ আর্থিক বৃদ্ধির খতিয়ান। দিল্লিতে রাজ্যের অর্থ ও শিল্পমন্ত্রী অমিত মিত্রের সঙ্গে বৈঠকে এমনই বার্তা দিলেন ৩৫ টি দেশের রাষ্ট্রদূত তথা শিল্প প্রতিনিধি। বাংলা সম্পর্কে বিদেশি প্রতিনিধিদের এই ইতিবাচক ভাবনায় খুশি রাজ্য সরকার। আশা করা হচ্ছে, অদূর ভবিষ্যতে বিপুল বিদেশি বিনিয়োগ আসবে এ রাজ্যে।
বৃহস্পতিবার দিল্লির এক পাঁচতারা হোটেলে ৩৫ টি দেশের প্রতিনিধির সঙ্গে এ রাজ্যে লগ্নি নিয়ে আলোচনা করেন রাজ্যের শিল্প বাণিজ্যমন্ত্রী
অমিত মিত্র। দিঘায় বেঙ্গল বিজনেস কনক্লেভের আগে বিদেশি প্রতিনিধিদের নিয়ে এই বৈঠকের আয়োজন করেছিল পশ্চিমবঙ্গ শিল্পোন্নয়ন নিগম এবং ফিকি। সূত্রের খবর, আগামী ১১ ও ১২ ডিসেম্বর দিঘার ‘বেঙ্গল বিজনেস কনক্লেভ’ এ অনুষ্ঠানে হাজির থাকার জন্য বিদেশি রাষ্ট্রদূতরা নিজেরাই কৌতূহল দেখিয়েছেন।
বৃহস্পতিবারের বৈঠকে পশ্চিমবঙ্গের বড় ও মাঝারি শিল্প থেকে হস্ত শিল্পে বিশেষ আগ্রহ প্রকাশ করেছে বিভিন্ন দেশ। যেমন, দেওচা পাচামির মতো কোল ব্লক প্রকল্পের কাজে আগ্রহ দেখায় পোল্যান্ড ও চেক রিপাবলিক। বাংলার হস্তশিল্পের চমৎকারিত্বে মুগ্ধ ফ্রান্স এই ক্ষেত্রে বিনিয়োগ করার উৎসাহ প্রকাশ করেছে।
প্রায় দু’ঘণ্টা ধরে চলা এই আলোচনায় ‘বেঙ্গল মানে বিজনেস’, এই আপ্তবাক্যে জোর দেন রাজ্যের শিল্পমন্ত্রী। বৈঠকে বিনিয়োগকারীদের উৎসাহ বাড়াতে ফিকির প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ওয়াই কে মোদী জানান, ই-সার্ভিস থেকে লগ্নির ক্ষেত্রে পশ্চিমবঙ্গে সিঙ্গল উইন্ডো ব্যবস্থা চালু করা হয়েছে, তা শিল্পক্ষেত্রকে মজবুত করবে। বাংলায় ব্যবসা ও বিনিয়োগের ক্ষেত্রে কোনও সমস্যার মুখোমুখি হলে তার সমাধানে বিশেষ তৎপরতা দেখিয়ে আসছে পশ্চিমবঙ্গ। এ জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উচ্ছ্বসিত প্রশংসা করেন ফিকির প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট। এই বৈঠকে শেষে বাংলায় বিনিয়োগের প্রশ্নে বিদেশি প্রতিনিধিদের মতামত জানতে চাওয়া হলে তাঁরা প্রায় সবাই একে ‘দারুণ উদ্যোগ’ বলে মন্তব্য করেন।
বাংলায় বিনিয়োগ টানতে গত কয়েক বছরে বেশ কয়েকটি বিদেশ সফর করেছেন মুখ্যমন্ত্রী। দিঘায় বেঙ্গল বিজনেস কনক্লেভের আগে এই প্রস্ততি বৈঠকে মমতা ব্যানার্জির পরামর্শমাফিক বিদেশি রাষ্ট্রদূত এবং প্রতিনিধিদের সঙ্গে আলোচনা করেন অমিত মিত্র। বৃহস্পতিবারের বৈঠক নিয়ে প্রচণ্ড আশাবাদী অমিত মিত্র। রাজ্যের ভৌগলিক অবস্থানের গুরুত্ব, বিনিয়োগের সব রকম সুবিধা ও রাজ্য সরকারের সহযোগিতা বিদেশি লগ্নি টানতে বিশেষ সাহায্য করবে বলে মনে করছে রাজ্য সরকার।

 

Comments
Loading...