মোদীকে জবাব মমতার: সিএএ বিরোধী আন্দোলন দ্বিতীয় স্বাধীনতা যুদ্ধ, পাকিস্তানের চর্চা পাকিস্তান করবে, আমরা এদেশের কথা বলব

পাকিস্তানের চর্চা পাকিস্তানই করবে বলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে চেতাবনি দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। বৃহস্পতিবার কর্ণাটকে এক জনসভায় বিরোধীদের উদ্দেশে মোদী বলেছিলেন, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে আন্দোলন না করে পাকিস্তানের বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলুন। কেন সে দেশে সংখ্যালঘুরা নির্যাতিত হচ্ছে তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদ করুন, স্লোগান দিন। তার ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই মোদীর জবাব ফিরিয়ে দিলেন তৃণমূল নেত্রী মমতা। শুক্রবার শিলিগুড়িতে তিনি বলেন, পাকিস্তানের চর্চা, পাকিস্তান করবে। যে দেশে আমরা থাকি, সে দেশের চর্চাই আমরা করব। বিজেপি বিরোধিতা মানেই দেশবিরোধিতা নয়। নেত্রীর বার্তা, কেন্দ্রের ‘অসাংবিধানিক’ আইনের বিরুদ্ধে প্রয়োজনে আরও একটা স্বাধীনতা আন্দোলন হবে। তিনি এদিন ফের হুঁশিয়ারি দেন, যতদিন না নাগরিকত্ব আইন প্রত্যাহার করছে মোদী সরকার, এই আন্দোলন তাঁরা চালিয়ে যাবেন।
নাগরিকত্ব সংশোধী আইন ও এনআরসি নিয়ে বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বকে এদিন তীব্র কটাক্ষ করেন মমতা। তাঁর কথায়, সকাল-দুপুর-বিকেল-সন্ধ্যে, এক একবেলা পরস্পরবিরোধী মন্তব্য করে চলেছেন মোদী ও শাহরা। অমিত শাহ বলছেন, এনআরসি হবে না, কেন্দ্রীয় আইনমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ বলছেন, নাগরিকপঞ্জি সারা দেশেই হবে। এভাবে মানুষকে বিভ্রান্ত করছেন বিজেপি নেতা-মন্ত্রীরা।  মমতার কটাক্ষ, প্রথমে এঁরা কনফিউজ (বিভ্রান্ত) করবেন। তারপর কন্ট্রাডিকশন (পরস্পরবিরোধী), আর শেষে ক্ল্যারিফিকেশন (সাফাই) দেবেন। এভাবে দিনের পর দিন দেশের মানুষকে বিভ্রান্ত করছেন তাঁরা। মমতার কটাক্ষ, যে মতুয়ারা এখনই দেশের নাগরিক, তাঁদের নাকি নতুন করে নাগরিকত্ব দেবে বিজেপি।
মমতা বলেন, রেশন থেকে আধার, যখন যেটা বলেছে, মানুষ লাইন দিয়ে সেই কার্ড তৈরি করেছে, সংগ্রহ করেছে। এখন কেন্দ্র বলছে, এদের কোনওটাই নাগরিকত্বের প্রমাণ নয়। এ দেশে থাকা প্রত্যেক উদ্বাস্তু, দলিত-সবাই নাগরিক। তাই ফের নাগরিকত্ব প্রমাণ দেওয়ার কোনও প্রয়োজন নেই। পাশাপাশি, আমজনতার উদ্দেশে মমতার বার্তা, ভোটার লিস্টে যেন তাঁরা অবশ্যই নাম তোলেন এবং সংশোধন করেন।
নেত্রীর অভিযোগ, উত্তরপ্রদেশ বা অসমে যেতে চাইলে তাঁদের প্রতিনিধি দলকে ঢুকতে দেওয়া হয় না। কিন্তু এ রাজ্যে এসে বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব অবাধে মিটিং-মিছিল করেন, তাঁর নিন্দে করেন। তৃণমূল নেত্রীর হুঁশিয়ারি, যতই আমাকে গালিগালাজ করুন, এই আন্দোলন থেকে পিছু হঠার প্রশ্নই নেই। সভার পর শিলিগুড়ি শহরে তিনি বিশাল পদযাত্রা করেন।
শিলিগুড়ি থেকে মমতার ঘোষণা, আগামী ৯ জানুয়ারি বারাসতে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি-র বিরুদ্ধে পদযাত্রা করবেন তিনি। এরপর ২২ তারিখ দার্জিলিঙে মিছিল করবেন।

Comments
Loading...