রাজ্যে অপসংস্কৃতি প্রচারের চেষ্টা বিজেপির! প্রতিবাদে একঝাঁক নাট্যশিল্পী যোগ দিলেন তৃণমূলে

মমতার উপর ভরসা রেখেই সংস্কৃতির সঙ্গে যুক্তরা যোগ দিচ্ছেন তৃণমূলে, দাবি ব্রাত্যর

বিজেপি কোনোদিন শিল্প-সংস্কৃতির পাশে দাঁড়ায়নি। বাংলায় অন্য সংস্কৃতি প্রচলন করতে চাইছে গেরুয়া বাহিনী। কোনওভাবেই বিজেপির সেই পরিকল্পনা সফল করতে না দেওয়ার প্রয়াস নিয়ে একঝাঁক থিয়েটার শিল্পী যোগ দিলেন তৃণমূলে। এদের মধ্যে রয়েছেন শেখর সমাদ্দার, গৌতম মুখার্জি, মুরারি মুখার্জি প্রমুখ। রাজ্যের তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী, নাট্যকার, পরিচালক, অভিনেতা ব্রাত্য বসু জানান, বাংলায় অপসংস্কৃতি প্রচার করতে চাইছে বিজেপি। যা কোনওভাবেই হতে দেওয়া যাবে না। এর বিরুদ্ধে শহর থেকে জেলায় প্রতিবাদ মঞ্চ গড়ে তোলা হবে। সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে তৃণমূল নেত্রী তথা সাংসদ অর্পিতা ঘোষ জানান, বাংলায় জোর করে অন্য সংস্কৃতি ঢুকিয়ে দেওয়ার প্রয়াসকে রুখে দিতে থিয়েটারের মানুষ আজ তৃণমূলে যোগ দিচ্ছেন। তাঁর দাবি, একমাত্র মমতা ব্যানার্জি থিয়েটারের মানুষদের কথা চিন্তা করেছেন। মমতার উপর ভরসা রেখেই সংস্কৃতির সঙ্গে যুক্তরা যোগ দিচ্ছেন তৃণমূলে।

এদিন ব্রাত্য বসু আরও বলেন, তৃণমূলের সঙ্গে সরাসরি যুক্ত হয়ে কাজ করতে চাইছেন বাংলার শিল্পীরা ফের প্রমাণ হয়ে গেল। বিজেপি বম্বের গায়ককে দলে যোগ দেওয়াতে পারবেন। কিন্তু একজনও বুদ্ধিজীবীকে দলে যোগ দেওয়াতে পারবেন না। এর আগে একাধিক শিল্পী বিজেপিতে যোগ দিয়েছেন। পরবর্তী কালে আবার ফিরেও এসেছেন। অনুরাগ কাশ্যপকে অপমান করেছে। আয়ুষ্মান খুরানাকে দলিতদের পক্ষ নেওয়ার জন্য অপমান করা হয়েছে, বলে দাবি ব্রাত্যর। 

অমিত শাহের বঙ্গ সফর প্রসঙ্গে ব্রাত্য বসু অভিযোগ করে বলেন, মতুয়া ভোট কেনার চেষ্টা করছেন অমিত শাহ। এর আগে মতুয়াদের দেবতা হরিচাদ ঠাকুরকে হরিশচন্দ্র ঠাকুর বলে অপমান করেছেন। মতুয়াদের উচিত তাঁকে কালো পতাকা দেখানো। রামচন্দ্রকে অপমান করা দোষের হলে মতুয়াদের গুরু হরিচাদ ঠাকুরকে অপমান করাও দোষের। মন্তব্য ব্রাত্য বসুর। 

Comments
Loading...