নির্ধারিত সময়ের আগেই তৈরি রাশিয়ান টিকার প্রথম ব্যাচ, অগাস্টের শেষ থেকে টিকাকরণ

নির্ধারিত সময়ের একদিন আগেই করোনা প্রতিষেধক বাজারে আনার কথা ঘোষণা করে সবাইকে অবাক করে দিয়েছিল রাশিয়া। এবার নির্ধারিত সময়ের আগে প্রথম ব্যাচের টিকা দেওয়ার কথাও জানিয়ে দিল রুশ প্রশাসন।

আন্তর্জাতিক সংবাদ সংস্থা রয়টার্স সূত্রে খবর, অগাস্টের শেষ সপ্তাহ থেকেই রাশিয়ায় প্রথম ব্যাচের করোনা টিকা দেওয়া শুরু হবে। স্পুটনিক ভি নামে এই করোনা টিকা সেপ্টেম্বরে উৎপাদন এবং অক্টোবর থেকে রাশিয়ার সব নাগরিকের মধ্যে দেওয়ার কথা জানিয়েছিল রুশ প্রশাসন। কার্যক্ষেত্রে তারা আগেভাগেই কাজ শুরু করছে।

রাশিয়ার করোনা টিকা নিয়ে সন্দেহ প্রকাশ করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO)। সব কটি ট্রায়াল সম্পূর্ণ না করে ভ্যাকসিন প্রকাশ্যে আনায় একে সরকারিভাবে স্বীকৃতি দেয়নি হু। হু-এর চূড়ান্ত পর্যায়ের ট্রায়ালে অংশ নেওয়া যে ৯ টি ভ্যাকসিনের তালিকা তাতে রাশিয়ার ভ্যাকসিনটির নাম নেই। সেই বিতর্কের মধ্যেই করোনা ভ্যাকসিনের উৎপাদনও শুরু করে দিল পুতিনের দেশ। মস্কোর তরফ থেকে জানানো হয়েছে, প্রথম ব্যাচের টিকা দেওয়া হবে চিকিৎসক ও প্রথম সারির করোনা যোদ্ধাদের। তারপর ধীরে ধীরে রাশিয়ার নাগরিকদের ভ্যাকসিন দেওয়া হবে।

রাশিয়ার দাবি অনুযায়ী স্পুটনিক-ভি (Sputnik V) হল বিশ্বের প্রথম কার্যকরী করোনা ভ্যাকসিন। খোদ রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিন সাংবাদিক বৈঠক করে দাবি করেছেন, তাঁদের তৈরি ভ্যাকসিন করোনার বিরুদ্ধে লড়াইয়ে উপযোগী এবং এর তেমন কোনও পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। রাশিয়ার গ্যামালিয়া ইনস্টিটিউট অফ এপিডেমোলজি অ্যান্ড মাইক্রোবায়োলজিতে এই করোনা প্রতিষেধক তৈরি হয়েছে। ইতিমধ্যে তা বিভিন্ন ধাপে ১৬০০ জনের উপর পরীক্ষামূলক প্রয়োগও হয়েছে বলে দাবি রুশ চিকিৎসা বিজ্ঞানীদের। তাঁদের আরও দাবি, ওই টিকা প্রয়োগে তাঁদের শরীরে তৈরি হওয়া অ্যান্টিবডি কোভিড ১৯ এর বিরুদ্ধে লড়তে প্রস্তুত।

যদিও রাশিয়ার দাবি মানতে নারাজ বহু দেশ। তাদের অভিযোগ, রাশিয়ার করোনা ভ্যাকসিন এখনও হিউম্যান ট্রায়ালের সমস্ত ধাপ উত্তীর্ণ করেনি। তাই এর কার্যকারিতা নিয়ে সংশয় আছে। আবার এর মধ্যেই ভিয়েতনাম সহ বেশ কয়েকটি দেশ ভ্যাকসিন পেতে রাশিয়ার সঙ্গে চুক্তি সেরে ফেলেছে।

বিশ্বে প্রায় ১৬০ টি ভ্যাকসিন ক্যান্ডিডেট প্রি ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের মধ্যে রয়েছে। এদের ২৯ টি ভ্যাকসিন ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের চূড়ান্ত পর্যায়ের দিকে এগিয়েছে। ৬ টি ভ্যাকসিন তৃতীয় পর্যায় তথা হিউম্যান ট্রায়ালের চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। এর মধ্যেই প্রতিষেধকের গণ বিলি শুরু করছে রাশিয়া।

Comments
Loading...