মুক্তিযুদ্ধের সমর্থনে সত্যাগ্রহ করে জেলে গিয়েছি, ঢাকার সভায় বললেন মোদী

ঢাকার সভায় প্রধানমন্ত্রী মোদী ছিলেন কার্যত বঙ্গবন্ধুতে মজে

মুক্তিযুদ্ধের সমর্থনে অহিংস আন্দোলন এবং সেই সূত্রেই জীবনে প্রথম জেলযাত্রা। ঢাকায় বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষ এবং স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী অনুষ্ঠানের মঞ্চে দাঁড়িয়ে বললেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী।
শুক্রবার সকালেই শাহ জালাল আন্তর্জাতিক বিমান বন্দরে মোদীকে স্বাগত জানান বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিকেলে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের স্মরণ অনুষ্ঠানে যোগ দেন মোদী। সেখানেই নিজের জীবনের এই ঘটনার কথা উল্লেখ করেন। জানান, আমার বয়স তখন ২০ হবে। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সমর্থনে আরও অনেকের সঙ্গে ধরনা সত্যাগ্রহে বসেছিলাম। তারপর নরেন্দ্র মোদী যোগ করেন, সত্যাগ্রহের জেরে প্রথমবার জেলে যাওয়ারও সুযোগ হয়েছিল।
ঢাকার সভায় প্রধানমন্ত্রী মোদী ছিলেন কার্যত বঙ্গবন্ধুতে মজে। বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের বিখ্যাত ভাষণেরও কিছু অংশ বাংলায় বলে ওঠেন তিনি। মোদীর মুখে বাংলা শুনে তখন বিশাল প্রেক্ষাগৃহে করতালিতে কান পাতা দায়।
বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে গাধীঁ শান্তি পুরস্কারে ভূষিত করে প্রধানমন্ত্রী মোদী বলেন, এই ঘটনা প্রত্যেক ভারতবাসীর কাছে গর্বের বিষয়। মুজিব জন্মশতবার্ষিকী অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে আরও বললেন, এটি আমার জীবনের অন্যতম স্মরণীয় দিন। বাংলাদেশ আমাকে এই অনুষ্ঠানে অন্তর্ভুক্ত করেছে বলে আমি কৃতজ্ঞ। মুক্তিযুদ্ধের শহিদ এবং ভারতীয় সেনাদের শ্রদ্ধা জানাই।
ভারতীয় সৈন্যদের সাহসিকতাকে বাহবা জানিয়ে মোদী বলেন, ভারতীয় সৈন্য যারা বাংলাদেশের সৈন্যদের পাশে দাঁড়িয়েছিলেন তাঁদের আমরা কখনও ভুলব না… আমরা তাঁদের ভুলতে পারিনি, আর কখন ভুলব না।”

Comments
Loading...