টানটান উত্তেজনার মধ্যে ভোটগণনা শেষ হল যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ে। বিজ্ঞান বিভাগের ৩৯ টি ক্লাসের মধ্যে আটটি ক্লাসে ভোট হয়েছিল। বাকি ৩১ টিতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয় আগেই পেয়ে গিয়েছিল স্বাধীন ছাত্র সংগঠন ডব্লুটিআই। এখানে এবিভিপি কোনও প্রার্থী দেয়নি। আগের বারের মতো সেখানে অন্য কাউকে দাগ কাটতে না দিয়ে জয়ের ধারা অব্যাহত রেখেছে স্বাধীন ছাত্র সংগঠন।

বিজ্ঞান বিভাগ
কেন্দ্রীয় প্যানেলের জন্য যে ভোট দিয়েছেন বিজ্ঞান বিভাগের পড়ুয়ারা, সেখানেও কোনও কোনও দলের সঙ্গে যুক্ত না থাকা ডব্লুটিআইর জয়জয়কার। কেন্দ্রীয় প্যানেলে তারা পেয়েছে ১ হাজার ১৩ টি ভোট। সিপিএমের ছাত্র সংগঠন এসএফআই পেয়েছে ২১৬ টি ভোট। দ্বিতীয় স্থানে থাকলেও ডব্লুটিআই-র সঙ্গে তাদের ফারাকটা বিস্তর। তৃতীয় স্থানে রয়েছে এসইউসি-র ছাত্র সংগঠন ডিএসও।
সাধারণ সম্পাদকের লড়াইয়ে ডব্লুটিআই পেয়েছে ১ হাজার ১ টি ভোট। এসএফআই ২৩১ টি, ডিএসও ৩০ টি এবং টিএমসিপি মাত্র আটটি ভোট পেয়েছে।

ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ
ইঞ্জিনিয়ারিং পাঁচটি আসনেই বিপুল ব্যবধানে জয় ছিনিয়ে নিয়েছে ডিএসএফ। মোট ৩ হাজার ৮৫৭ টি ভোটের মধ্যে ডিএসএফের প্রাপ্ত ভোট ২ হাজার ৯৭৪ টি। এখানে আবার এসএএফআইকে পিছনে ফেলে দ্বিতীয় স্থানে উঠে এসেছে এবিভিপি। এ বছরই যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্বাচনে প্রথম অংশ নেওয়া এবিভিপি-র ভোট বাক্সে গিয়েছে ৪৮৫ টি ভোট। এসএফআই পেয়েছে ২৪৮ টি ভোট। মাত্র ৬৯ টি ভোট পেয়ে  সন্তুষ্ট থাকতে হয়েছে তৃণমূলকে। সান্ধ্য বিভাগের ৩৮৭ টি ভোটের মধ্যে ডিএসএফ পেয়েছে ২৪৭ টি ভোট।

কলা বিভাগ
কলা বিভাগে অবশ্য অন্য কাউকে দাগ কাটতে না দিয়ে ব্যাপক ব্যবধানে এগিয়ে রয়েছে এসএফআই। সেন্ট্রাল প্যানেলের চারটির চারটিতেই এসএফআই প্রার্থীরা এগিইয়ে আছেন। এখানে কোনও ছাপই ফেলতে পারেনি গেরুয়া শিবির এবং তৃণমূল ছাত্র পরিষদ।

ধারাবাহিকভাবে পাশে থাকার জন্য The Bengal Story র পাঠকদের ধন্যবাদ। আমরা যে ধরনের খবর করি, তা আরও ভালোভাবে করতে আপনাদের সাহায্য আমাদের উৎসাহিত করবে।

Login Support us

You may also like

Governor Home Department Tweet
BJP Leader Agnimitra Paul