চাকরির নামে সহবাস! Sex Tape প্রকাশ্যে আসতেই ইস্তফা কর্ণাটকের মন্ত্রীর

সরকারি চাকরি দেওয়ার নামে যৌন হেনস্থার অভিযোগে জড়িয়ে পদত্যাগে বাধ্য হলেন কর্ণাটকের বিজেপি সরকারের মন্ত্রী রমেশ জারকিহোলি।

সম্প্রতি কর্ণাটকের নিউজ চ্যানেলে সম্প্রচারিত হয় বিজেপি নেতা তথা মন্ত্রী রমেশ জারকিহোলির সেক্স টেপ। বিতর্কের মধ্যেই রাজ্যের মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ করলেন তিনি। অভিযুক্ত মন্ত্রীকে গ্রেফতারের দাবিতে ইতিমধ্যেই পথে নেমে আন্দোলন শুরু করে দিয়েছে কংগ্রেস। চাপ বাড়াচ্ছে অন্যান্য বিরোধীরাও। সব মিলিয়ে বিপাকে কর্ণাটকের বিজেপি সরকার।

পদত্যাগপত্রে জারকিহোলি সমস্ত অভিযোগ মিথ্যা বলে দাবি করেছেন। দলকে বিড়ম্বনার হাত থেকে বাঁচাতেই মন্ত্রিসভা থেকে পদত্যাগ বলে মনে করা হচ্ছে। অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণিত হলে নিজের পদে ফের ফিরে আসার কথা জানান তিনি। কিন্তু অভিযোগে তোলপাড় পড়ে যাওয়ার পর ইস্তফায় আদৌ কি বিজেপির ড্যামেজ কন্ট্রোল হবে? সেটাই এখন বড়ো প্রশ্ন।

জানা গিয়েছে, রমেশ জারকিহোলির ভাই ও এক বিজেপি নেতা বুধবার কর্ণাটকের মুখ্যমন্ত্রী বি এস ইয়েদুরুপ্পার সঙ্গে দেখা করেন। এর কয়েক ঘন্টার মধ্যেই পদত্যাগ করেন রমেশ জারকিহোলি। পুরো ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে সিবিআই।

দীনেশ কল্লাহল্লি নামে এক সমাজকর্মী কর্ণাটকের জলসম্পদ মন্ত্রী জারকিহোলির বিরুদ্ধে ভিডিও ক্লিপটি প্রকাশ্যে আনেন। স্থানীয় থানায় অভিযোগ দায়ের হয় জারকিহোলির বিরুদ্ধে। ওই মহিলার পরিবারকে হুমকি দেওয়া হয়েছিল বলেও অভিযোগ উঠে আসে। অন্যদিকে ভিডিওর মহিলাকে চেনেন না বলে দাবি করেন বছর ৬০-এর জারকিহোলি।

এর আগেও ২০১৬ সালে সিদ্ধরামাইয়ার নেতৃত্বাধীন তৎকালীন কংগ্রেস সরকারের এক প্রবীণ মন্ত্রী পদত্যাগ করেছিলেন। এক মহিলার সঙ্গে তাঁর ভিডিও ক্লিপের প্রেক্ষিতেই তিনি পদত্যাগ করেছিলেন।

Comments
Loading...