জমির মালিকানার তথ্যের জন্য এবার আধার কার্ডের আদলে স্বতন্ত্র নম্বর ব্যবস্থা চালু করার পথে কেন্দ্র

এবার জমির মালিকনার ক্ষেত্রেও আধার কার্ডের মতো স্বতন্ত্র আইডি নম্বর চালুর পরিকল্পনা নিল কেন্দ্র। সূত্রের খবর, শীঘ্রই জমির মালিকানায় স্বচ্ছতা আনা এবং সন্দেহজনক জমি মালিকদের অধিকার খর্ব করতে ইউনিক আইডেন্টিটি নম্বর (ইউআইডি) চালু করা হবে। ইতিমধ্যে কেন্দ্রের গ্রামীণ উন্নয়ন মন্ত্রকের উদ্যোগে এ ব্যাপারে উদ্যোগ শুরু হয়ে গিয়েছে বলে খবর।
আধার কার্ডের মতো নতুন জমি আইডি কার্ডেও থাকছে স্বতন্ত্র নম্বর। তাতে রাজ্য, জেলা, তহশিল বা তালুক, ব্লকস্তর ও সরণির বিস্তারিত তথ্য থাকবে। তাছাড়া জমির পরিমাণ ও মালিকের যাবতীয় তথ্য তো থাকছেই। পাশাপাশি, এই স্বতন্ত্র জমি মালিকানা সংক্রান্ত নম্বর আধার কার্ড ও রাজস্ব হিসাবের সঙ্গে সংযুক্ত করা হতে পারে বলে এক কেন্দ্রীয় শীর্ষ আধিকারিক সূত্রে খবর। তাঁর কথায়, কেন্দ্রের লক্ষ্য আবাসন শিল্পে আর্থিক লেনদেনে স্বচ্ছতা আনা, জমির মালিকানা সংক্রান্ত নানা অসুবিধা ও অস্বচ্ছতা দূর করা। তাই আধার কার্ডের মতো স্বতন্ত্র নম্বরের মাধ্যমে আবাসনে লেনদেন, সম্পত্তি আয়কর হিসাবে স্বচ্ছতা আনা এবং সর্বপরি কোনও পাবলিক প্রোজেক্টের ক্ষেত্রে জমি অধিগ্রহণেরও সুবিধা হবে সরকারের।
এই স্বতন্ত্র আইডি নম্বরের মাধ্যমে সম্পত্তির মালিকানা, বেচা-কেনা, কর সংগ্রহ, জমি মালিকানা সংক্রান্ত বিশদ তথ্য জমা থাকবে।
বছরের পর বছর ধরে জমি মালিকানা, জমির অধিকার বা জমির রেকর্ড সংক্রান্ত প্রচুর মামলা আদালতে ঝুলে থাকে। পাশাপাশি, জমি বন্ধক রেখে ভারতের প্রচুর কৃষক কৃষি ঋণ নেন। কিন্তু জমির মালিকানা সংক্রান্ত জটিলতার জেরে অনেক সময় বিপাকে পড়েন তাঁরা। তাছাড়া, জমি মালিকানা সংক্রান্ত ব্যাপারে স্বচ্ছতা এলে শিল্পক্ষেত্রেও সুবিধা হবে বলে মনে করছেন শিল্পপতিদের একাংশ। তাই সব ক্ষেত্রেই ইউনিক আইডেন্টিটি নম্বর বা ইউআইডির মাধ্যমে একদিকে যেমন বহু সমস্যা মোকাবিলা সম্ভব হবে, তেমনি জমি অধিগ্রহণ সংক্রান্ত নীতি সহজ হলে বিদেশি বিনিয়োগও বাড়বে বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল। ইতিমধ্যেই জমি রেকর্ড ও সম্পত্তির রেজিস্ট্রিকরণ সংক্রান্ত ব্যাপারে প্রযুক্তির সাহায্য নিয়েছে কেন্দ্র। এবার জমি মালিকানা সংক্রান্ত নথিপত্রকে ডিজিটাল করতে আরও একধাপ এগোচ্ছে তারা।

Comments
Loading...