Coronavirus Scare: আস্থা ভোট পিছিয়ে মধ্যপ্রদেশ বিধানসভা স্থগিত করলেন অধ্যক্ষ, সুপ্রিম কোর্টে গেল বিজেপি

মধ্যপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী কমল নাথের স্বস্তি দীর্ঘস্থায়ী হল না। সোমবার করোনাভাইরাসের কারণে বিধানসভার অধিবেশন ২৬ মার্চ পর্যন্ত স্থগিত রাখার কথা ঘোষণা করেন স্পিকার নর্মদাপ্রসাদ প্রজাপতি। তাতে স্বস্তি পেয়ে কমল নাথ ভিক্ট্রি সাইন দেখিয়ে বিধানসভা ছাড়তেই বিজেপি ১২ ঘণ্টার মধ্যে আস্থা ভোট চেয়ে সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছে। সুপ্রিম কোর্টে সেই মামলার শুনানি হবে মঙ্গলবার। তাদের আবেদন, সুপ্রিম কোর্ট যেন মুখ্যমন্ত্রীকে ১২ ঘণ্টার মধ্যে আস্থা করানোর জন্য নির্দেশ দেয়। বিজেপির আবেদনে বলা হয়েছে, কংগ্রেসের ২২ জন বিধায়ক ইস্তফা দিয়েছেন। ছ’জনের ইস্তফাপত্র স্পিকার গ্রহণও করেছেন। ফলে এই সরকার সংখ্যালঘু হয়ে পড়েছে। তার জন্যই আস্থা ভোট দরকার।
এদিন রাজ্যপালের ভাষণের পরেই সরকার পক্ষের বিধায়করা সভায় হই চই জুড়ে দেন, করোনাভাইরাসের এই আতঙ্কের মধ্যে আস্থা ভোট নেওয়া ঠিক নয়। বিজেপি বিধায়করা পালটা দাবি করেন, এদিনই আস্থা ভোট করতে হবে। তুমুল চেঁচামেচির মধ্যে স্পিকার প্রথমে দশ মিনিটের জন্য অধিবেশন স্থগিত করে দেন। পরে তিনি সভায় জানান, করোনার জন্য অধিবেশন ২৬ তারিখ পর্যন্ত মুলতুবি থাকবে।
সূত্রের খবর, কমল নাথরা আগে থেকেই এরকম একটা পরিকল্পনা ছকে রেখেছিলেন। রবিবার থেকেই কংগ্রেসের নেতা, মন্ত্রী, বিধায়করা বলতে শুরু করেন, করোনার এই আতঙ্কের মধ্যে বিধানসভার অধিবেশন করা ঠিক নয়। কংগ্রেস দাবি করে, দলের যে বিধায়করা জয়পুর থেকে ভোপালে ফিরেছেন, তাঁদের মধ্যে দু’জনের করোনা-লক্ষণ দেখা দিয়েছে। সোমবার অধিবেশন শুরু হতেই কংগ্রেস বিধায়করা চিৎকার জুড়ে দেন।

Comments
Loading...