প্রার্থীর বিরুদ্ধে কী কী মামলা? জানাতে হবে জনসমক্ষে, নির্দেশ নির্বাচন কমিশনের

নির্বাচন কমিশনের নির্দেশে, এই প্রথম কোনও প্রার্থীর বিরুদ্ধে অপরাধমূলক মামলা থাকলে তা জনসমক্ষে আনতে হবে। কমিশনের নির্দেশ, কোনও প্রার্থীর ক্রিমিনাল রেকর্ড থাকলে, তাঁকে টেলিভিশন, সংবাদপত্র ইত্যাদি গণ মাধ্যমে বিজ্ঞাপন দিয়ে আমজনতাকে সেই সম্পর্কে অবহিত করতে হবে।
২০১৮ সালের ১০ ই অক্টোবর এই নির্দেশিকা জারি হয়েছিল। কিন্তু এই প্রথমবার, আগামী ১১ ই এপ্রিল থেকে শুরু হতে চলা সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনে এই বিধি বলবৎ করল নির্বাচন কমিশন।
বিধি অনুসারে, প্রার্থীর বিরুদ্ধে কোনও অপরাধমূলক মামলা থেকে থাকলে, তাঁকে দলকে সেই ক্রিমিনাল রেকর্ডের কথা জানাতে হবে। রাজনৈতিক প্রচার চলাকালীন অন্তত তিনবার যে কোনও অধিক প্রচারিত সংবাদপত্রে এবং টিভি চ্যানেলে বিজ্ঞাপন দিতে হবে।
প্রার্থীর বিরুদ্ধে কোনও মামলা চললে কিংবা কোনও মামলা শেষ হয়ে গেলেও, দলকে তা জানানো আবশ্যিক। আর সংশ্লিষ্ট রাজনৈতিক দলকেও নিজস্ব ওয়েবসাইটে প্রার্থীদের বিরুদ্ধে মামলার ব্যাপারে যাবতীয় তথ্য তুলে ধরতে হবে।
যদিও এই বিজ্ঞাপনী খরচ সংশ্লিষ্ট প্রার্থীকেই বহন করতে হবে কি না এ সম্পর্কে কমিশনের তরফে স্পষ্ট করে কোনও দিশা দেওয়া হয়নি। তবে কমিশনের এক আধিকারিকের কথায়, ‘যেহেতু এটি নির্বাচন সংক্রান্ত খরচের মধ্যেই পড়ছে। তাই এই খরচ প্রার্থী বহন করাই বিধিসম্মত। নির্বাচন কমিশনের নির্দেশ, মোট কতজন প্রার্থীর বিরুদ্ধে মামলা রয়েছে, তার সংখ্যাও প্রতিটি রাজনৈতিক দলকে দিতে হবে।

Comments
Loading...