ভিজিলেন্স কমিশনের তদন্তে কেন্দ্রকেই নিশানা করলেন অপসারিত সিবিআই প্রধান অলোক ভার্মা

সেন্ট্রাল ভিজিলেন্স কমিশনের (সিভিসি) জমা দেওয়া রিপোর্টের পরিপ্রেক্ষিতে অপসারিত সিবিআই প্রধান অলোক ভার্মার উত্তর চাইল সুপ্রিম কোর্ট। সোমবার দুপুর ১ টার মধ্যে মুখবন্ধ খামে সে উত্তর জমা দিতে হবে। অলোক ভার্মার জবাব পাওয়ার পরই আগামী মঙ্গলবার ২০ শে নভেম্বর মামলার পরবর্তী শুনানি হবে বলে জানিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। সেই মতো শীর্ষ আদালতে সিভিসি যে গোপন রিপোর্ট দিয়েছে, তার একটি কপি অলোক ভার্মাকেও দেওয়ার নির্দেশ দেন দেশের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ।
অলোক ভার্মার আইনজীবী ফলি নরিম্যানের হাতে গোপন রিপোর্টের কপি দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া হলেও সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানার আইনজীবী মুকুল রোহতগির ক্ষেত্রে তা নাকচ দিয়েছে সুপ্রিম কোর্ট। অলোক ভার্মার বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট কয়েকটি মামলায় তদন্তে বাধা দেওয়ার পাশাপাশি ২ কোটি টাকা ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ করেছিলেন সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা। অন্যদিকে, রাকেশ আস্থানার বিরুদ্ধেই পাল্টা ঘুষের অভিযোগে এফআইআর করে সিবিআই। যার জেরে মামলা জটিল হয়। সিবিআই-এর দুই কর্তার কোন্দল মেটাতে হস্তক্ষেপ করেন প্রধানমন্ত্রী। এবং গত ২৩ শে অক্টোবর রাত ২ টোর সময় অলোক ভার্মা এবং আস্থানা, দু’জনকেই অনির্দিষ্টকালের জন্য ছুটিতে পাঠানোর নির্দেশ দেয় কেন্দ্র।
কেন্দ্রের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধেই সুপ্রম কোর্টে মামলা দায়ের করেন অলোক ভার্মা। তারপর সিভিসি’কে তদন্তের রিপোর্ট জমা দিতে বলেছিল দেশের সর্বোচ্চ আদালত। সূত্রের খবর, তদন্তে অলোক ভার্মার বিরুদ্ধে অভিযোগের নির্দিষ্ট কিছু প্রমাণ মেলেনি সিভিসির তদন্তে। বরং সিভিসির তদন্তকারীদের সামনে নিজেকে নির্দোষ বলার পাশাপাশি কেন্দ্রের একাধিক সিদ্ধান্ত নিয়েও প্রশ্ন তোলেন সিবিআই-এর অপসারিত প্রধান। সূত্রের খবর, অভিযোগের তদন্ত করতে গিয়ে অলোক ভার্মার সঙ্গে কথা বলে কিছু ক্ষেত্রে সন্তুষ্ট হলেও অনেক ক্ষেত্রে প্রশ্ন রয়ে গিয়েছে বলেই সুপ্রিম কোর্টকে জানিয়েছে সিভিসি। প্রসঙ্গত, নির্ধারিত সময় পার হয়ে যাওয়ার পর গত সোমবার সেই রিপোর্ট জমা পড়ায় সুপ্রিম কোর্টের তরফে ভর্ৎসনা করা হয় সিভিসি’কে। পাশাপাশি সুপ্রিম কোর্ট জানায়, ওই রিপোর্টে নির্দিষ্ট করে কোনও সমাধান সূ্ত্র খুঁজে বের করা হয়নি। ফলে ওই মিশ্র রিপোর্টের উপর ভিত্তি করে কোনও সিদ্ধান্তে পৌঁছানো সম্ভব নয়। সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ জানিয়েছেন, এই তদন্ত রিপোর্টে কিছু অভিযোগে সম্মতিসূচক, কিছু অভিযোগ সম্মতিসূচক নয় এবং কিছু অভিযোগ খুব অস্পষ্ট।

Comments
Loading...