রাফাল চুক্তি নিয়ে বোমা ফাটালেন প্রাক্তন ফরাসি প্রেসিডেন্ট, চরম অস্বস্তিতে নরেন্দ্র মোদী সরকার

ভারতের সঙ্গে রাফাল যুদ্ধ বিমান চুক্তি নিয়ে বোমা ফাটালেন প্রাক্তন ফরাসি প্রেসিডেন্ট ফ্রসঁয়ে ওঁলাদ। একটি ফরাসি সংবাদমাধ্যমের প্রতিবেদন অনুযায়ী, তাদের প্রশ্নের উত্তরে প্রাক্তন ফরাসি প্রেসিডেন্ট জানিয়েছেন, ওই চুক্তির সময় অনিল আম্বানীর সংস্থার নাম ভারত সরকারের তরফেই প্রস্তাব করা হয়েছিল এবং এ নিয়ে অন্য কোনও বিকল্প তাঁদের দেওয়া হয়নি। ভারত সরকারের পক্ষ থেকে ওই একটি সংস্থার নামই জানানো হয়েছিল।
ওঁলান্দে জানিয়েছেন, ৩৬ টি রাফাল যুদ্ধ বিমান কেনার জন্য ভারত-ফ্রান্স এর মধ্যে হওয়া চুক্তির মধ্যে যে ‘অফসেট ক্লজ’ ছিল, তার জন্য চুক্তি হয় ফ্রান্সের তরফে ড্যাসল্ট অ্যাভিয়েশন ও ভারতের তরফে অনিল আম্বানীর রিলায়েন্স ডিফেন্সের মধ্যে। ভারতের তরফে অন্য কোনও সংস্থার নাম দেওয়া না হওয়ায়, আম্বানীর এই সংস্থার সাথেই দর কষাকষি করে চুক্তি চূড়ান্ত করে ড্যাসল্ট অয়াভিয়েশন। রাফাল যুদ্ধ বিমানের প্রস্তুতকারী সংস্থা এই ড্যাসল্ট অয়াভিয়েশন। ফ্রান্সের থেকে ৩৬ টি রাফাল যুদ্ধ বিমান কেনার মূল চুক্তি ছাড়াও নরেন্দ্র মোদীর আমলে দুই দেশের মধ্যে যে চুক্তি হয়, তাতে বলা হয়েছিল, ফ্রান্সের এই যুদ্ধ বিমান প্রস্তুতকারী সংস্থাটিকে কোনও ভারতীয় সংস্থার সাথে চুক্তি করতে হবে যাতে পরবর্তীকালে যুদ্ধ বিমানের রক্ষণাবেক্ষণ ও আধুনিকীকরণ ভারতেই করা যায়। সেই অনুযায়ী ড্যাসল্ট অ্যাভিয়েশন চুক্তি করে আম্বানীর রিলায়েন্স ডিফেন্সের সঙ্গে।
এতদিন কংগ্রেসের তরফে দাবি করা হচ্ছিল, মনমোহন সিংহের জমানায় এই যুদ্ধ বিমান কেনা নিয়ে দুই দেশের মধ্যে আলোচনা শুরু হয়েছিল এবং চুক্তির খসড়াও অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছিল, যা পরবর্তীকালে বিজেপি সরকার এসে সম্পূর্ণ করে। কিন্তু তারই মাঝে চুক্তিতে কিছু পরিবর্তন করে মোদী ঘনিষ্ঠ শিল্পপতি অনিল আম্বানীকে সুবিধা পাইয়ে দেওয়া হয়েছে। হিন্দুস্তান এরোনটিক্স লিমিটেডের মতো সংস্থা ছেড়ে কেন অনিল আম্বানীর সদ্য গঠিত সংস্থার সাথে চুক্তি করা হল তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। চুক্তি প্রকাশ্যে আনার দাবি জানায় কংগ্রেস। কিন্তু কেন্দ্রের তরফে বারবার দাবি করা হয়েছে, এই দুই বাণিজ্যিক সংস্থার চুক্তির মধ্যে কোনও হস্তক্ষেপ করেনি কেন্দ্র। ফরাসী সংস্থাটিই রিলায়েন্স ডিফেন্সকে বেছে নিয়েছে। ফ্রসঁয়ে ওঁলাদের এদিনের দাবির পর তাই যথেষ্টই বেকায়দায় পড়েছে মোদী সরকার।
যদিও সরকারিভাবে কেন্দ্রের প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের তরফে বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়েছে, প্রাক্তন ফরাসি প্রেসিডেন্ট কী বলেছেন তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। কেন্দ্রের এখনও দাবি, চুক্তির বাণিজ্যিক, আর্থিক দিক নিয়ে  এই দুই সংস্থার মধ্যে হওয়া সমঝোতায় দুই সরকারের তরফেই কোনও হস্তক্ষেপ করা হয়নি। এদিকে প্রাক্তন ফরাসি প্রেসিডেন্টের এই বক্তব্য সামনে আসতেই ট্যুইট করে নিজের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন কংগ্রেস সভাপতি রাহুল গান্ধী। তিনি লিখেছেন, এর থেকেই প্রমাণ হয় দেশের সাথে চরম বিশ্বাসঘাতকতা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ভারতীয় সেনার রক্তকে অপমান করেছেন তিনি।  রাহুলের দাবি, প্রধানমন্ত্রী নিজে এই চুক্তিতে হস্তক্ষেপ করে বন্ধ দরজার আড়ালে এই চুক্তিতে পরিবর্তন করে তাঁর ঘনিষ্ঠ শিল্পপতিকে সুবিধা পাইয়ে দিয়েছেন।

Comments
Loading...