কে এই সৈকত চক্রবর্তী, যিনি মার্কিন কংগ্রেসে নির্বাচিত ডেমোক্রাটিক সোশ্যালিস্ট অ্যালেক্সান্দ্রিয়া ওকাসিও কোর্টেজের চিফ অফ স্টাফ

চলতি বছরের জানুয়ারি মাসের শুরুতে সবচেয়ে কম বয়সী মহিলা হিসেবে প্রথমবারের জন্য অ্যালেক্সান্দ্রিয়া ওকাসিও কোর্টেজ ইউনাইটেড স্টেটস কংগ্রেসের প্রতিনিধি নির্বাচিত হয়েছেন।  AOC ডাকনামেই বেশি পরিচিত এই তরুণীর জীবনের বিষয়ে এমন অনেক তথ্য আছে যা আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করতে বাধ্য।
ব্রনক্সে জন্ম নেওয়া ওকাসিও কোর্টেজের বয়স ২৯ বছর। তিনি ডেমোক্রেটিক সোশ্যালিস্ট অফ আমেরিকা নামে একটি সংগঠনের সদস্য। এই সংগঠনটি পরিবর্তনের মাধ্যমে শ্রমজীবী মানুষের ক্ষমতায়নের পক্ষে কথা বলে। ইউনাইটেড স্টেটস কংগ্রেসের সদস্য হিসাবে শপথ নেওয়ার দিন সাদা পরিধান পরিহিত  AOC একটি ট্যুইটার বার্তায় জানিয়েছিলেন, এটা সেই সমস্ত মহিলাকে সম্মান জানানোর জন্য, যাঁরা আমার আগে এই কঠিন পথ পেরিয়ে এসেছেন এবং আগামী দিনে আরও যাঁরা আসবেন। AOC একজন জনপ্রিয় সমাজকর্মী। আমি তাঁকে ইনস্টাগ্রাম ও ট্যুইটারেও ফলো করি।
একদিন অ্যালেক্সান্দ্রিয়ার ইনস্টাগ্রাম পোস্টের ভিডিওতে একটা জিনিস দেখতে পাই, যা চমকে ওঠার মতো। সেখানে এক যুবক সবুজ রঙের টি শার্ট পরে বসে আছেন, যেখানে তাঁর বুকের কাছে নেতাজি সুভাষ চন্দ্র বসুর ছবি লাগানো। এটা দেখেই আমার মনে প্রশ্ন জাগে, কে ইনি? এই সময়ে বোসকে গুরুত্ব দিচ্ছেন, এঁরা কারা! এরপরই আমি জানতে পারি ওই যুবক সম্পর্কে। তিনি সৈকত চক্রবর্তী। তিনি হলেন  AOC’র চিফ অফ স্টাফ। সৈকত আমেরিকা নিবাসী এক প্রবাসী বাঙালী।
টেক্সাসে জন্মগ্রহণ করা সৈকত হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের স্নাতক। বেশ কিছু বছর কাটিয়েছেন সিলিকন ভ্যালিতে। মকিংবার্ড নামে একটি ওয়েব ডিজাইন টুলেরও সহ-প্রতিষ্ঠাতা তিনি। পেমেন্ট প্রসেসর প্রডাক্ট টিমেরও একজন সদস্য ছিলেন। এরই মাঝে কর্মসূত্রে কিছু সময়ের জন্য তাঁর যাতায়াত ছিল ওয়াল স্ট্রিটেও। কিন্তু এরপরই কিছুটা ব্যতিক্রমীভাবে তিনি সব ছেড়ে যোগ দেন বার্নি স্যান্ডার্সের প্রচারে। দ্য রোলিং স্টোন ম্যাগাজিনকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে স্যান্ডার্সের প্রচার সম্পর্কে সৈকত জানিয়েছিলেন, সমস্ত সমস্যার সমাধান স্যান্ডার্সের কাছে আছে কিনা এবিষয়ে তিনি নিশ্চিত না হলেও, তিনি এটা জানেন, স্যান্ডার্স অন্তত প্রকৃত সমস্যাগুলি নিয়েই কথা বলছেন।
যখন স্যান্ডার্সের হয়ে প্রচার চালাচ্ছিলেন সৈকত, সে সময় তাঁর সঙ্গে সাক্ষাৎ হয় অ্যালেক্সান্দ্রা রোজাস ও কর্বিন ট্রেন্ট নামে দুই ব্যক্তির। এই দুই ব্যক্তি যৌথভাবে জাস্টিস ডেমোক্রেটস নামে একটি পলিটিকাল অ্যাক্সান কমিটি তৈরি করেছেন। এই কমিটির পরিচিতির মূল কথা হল, ‘ আমাদের সময়ে এমন এক ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রয়োজন, যারা ভোটারদের হয়ে লড়বে, শুধুমাত্র কর্পোরেট দাতাদের জন্য নয়।’
এই জাস্টিস ডেমোক্রেটস এবং এদের মতোই আরও একটি সংগঠন ব্যান্ড নিউ কংগ্রেস, যার সহ প্রতিষ্ঠাতা হলেন সৈকত চক্রবর্তী, তাঁরা একসঙ্গে হাত মিলিয়ে মানুষের সঙ্গে কথা বলে প্রার্হী বাছাই শুরু করেন।
এরপর হাজার খানেক আবেদনের মধ্যে থেকে প্রাইমারি নির্বাচনের জন্য ডেমোক্রেটিক্সরা সৈকত ও তাঁর টিমকে বেছে নেন, যাঁরা ১২ জন প্রার্থীকে প্রচারে সাহায্য করবেন।
সৈকতদের সেই সফল প্রচার কর্মসূচিরই একটি মুখ হলেন অ্যালেক্সান্দ্রিয়া ওকাসিও কোর্টেজ। ওই ১২ জনের মধ্যে অ্যালেক্সান্দ্রিয়াই একমাত্র, যিনি নির্বাচিত হয়েছেন মার্কিন কংগ্রেসে। সৈকতই হলেন তাঁর ক্যাম্পেন ম্যানেজার ও চিফ অফ স্টাফ।
বছর ৩২ এর সৈকত মনে-প্রাণে একজন সোশ্যালিস্ট। গ্রিন নিউ ডিলের পক্ষে সওয়াল করছেন তিনি। আর্থিক বৈষম্য  ও আবহাওয়া পরিবর্তন নিয়ে ওকাসিও কোর্টেজ যে ১২ পৃষ্ঠার বক্তব্য পেশ করেছিলেন, এক সপ্তাহের মধ্যে তা তাঁকে লিখতে সাহায্য করেছিলেন সৈকত ও তাঁর টিম। পরে এপ্রসঙ্গে সৈকত জানিয়েছিলেন, ‘আমরা এক সপ্তাহের মধ্যে সমস্ত আইনি বিষয় জেনে ওই প্রস্তাবটি তৈরি করেছিলাম।’ টিমের প্রত্যেকের কাছেই এত গুরুত্বপূর্ণ কাজ সেটাই প্রথম ছিল বলে জানিয়েছেন সৈকত।
কিছুদিন আগেই সৈকতের নাম উঠেছে পলিটিকোস পাওয়ার লিস্টে। পলিটিকো’কে সৈকত জানিয়েছেন, আগামী দু’বছরে তিনি আরও যেটা করতে চান, তা হল ডেমোক্রাটসরা জিতলে কী কী করা সম্ভব তা তিনি মার্কিনীদের দেখাতে চান। এবং আগামী দিনের এই বহুকাঙ্খিত, বড় পরিবর্তনের লক্ষ্যেই নিজেদের সেরাটা উজার করে দিয়ে তাঁরা কাজ করতে চান বলে জানিয়েছেন সৈকত।
এমন একটা সময় যখন বাংলার মতো বামপন্থার আঁতুরঘরেই বামপন্থা প্রায় পিছনের সারিতে, তখন পুঁজিবাদের কেন্দ্রস্থলেই কি এই পরিবর্তন উঁকি দিচ্ছে?

Comments
Loading...