শুভেন্দু: প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লেখা লেটারহেড ছাপিয়ে রাখুন মমতা, জিতব আমরাই, মদন বললেন ‘ও লড়বে না, পালাবে’

খেজুরিতে শুভেন্দু বনাম মমতা

খেজুরির দুই প্রান্তে শুভেন্দুর নেতৃত্বে বিজেপি বনাম মদনের নেতৃত্বে তৃণমূলের সভায় সরগরম হল পূর্ব মেদিনীপুর। মঙ্গলবার হেঁড়িয়ার সভা থেকে তৃণমূল নেত্রী মমতা ব্যানার্জিকে তীব্র আক্রমণ করলেন শুভেন্দু। আর বিদ্যাপীঠ স্কুল মাঠের সভায় দাঁড়িয়ে শুভেন্দু সহ অধিকারী পরিবারকে নিশানা করেন তৃণমূল নেতা মদন মিত্র। এদিন হেঁড়িয়ার সভা থেকে শুভেন্দুর মন্তব্য, মমতাকে দু’জায়গায় দাঁড়াতে দেব না। শুধু নন্দীগ্রাম থেকেই ভোটে লড়তে হবে এবং খালি হাতেই ফিরতে হবে। অন্যদিকে শুভেন্দুকে নিশানা করে মদনের কটাক্ষ, ‘পারলে কামারহাটিতে দাঁড়ান শুভেন্দু। ও লড়বে না, পালাবে।’

সোমবার তৃণমূল নেত্রী নন্দীগ্রাম সভায় ঘোষণা করে দিয়েছেন এবার ওই কেন্দ্রে তিনিই প্রার্থী। সম্ভব হলে তাঁর পুরনো নির্বাচনী কেন্দ্র ভবানীপুর থেকেও একুশের ভোটে প্রার্থী হবেন তিনি। যা নিয়ে এদিন নন্দীগ্রাম থেকে কয়েক কিলোমিটার দূরে হেঁড়িয়ার সভা থেকে শুভেন্দুর কটাক্ষ, তৃণমূল নেত্রী উদভ্রান্ত, রাজনৈতিকভাবে হতাশাগ্রস্ত। তাঁর আরও কটাক্ষ, ‘দিদিমণি আপনাকে একজায়গায় দাঁড়াতে হবে। দু’জায়গায় দাঁড়াতে দেব না।’ তবে তিনি নিজে নন্দীগ্রাম কেন্দ্রে বিজেপির টিকিটে দাঁড়াবেন কিনা জানাননি পদত্যাগী বিধায়ক। শুভেন্দুর কথায়, আমি বিজেপি করি। বিজেপির প্রার্থী মঞ্চে ঘোষণা হয় না। তৃণমূল প্রাইভেট লিমিটেডে এসব হয়। শুভেন্দু আরও বলেন, কার ভরসায় নন্দীগ্রামে দাঁড়াবেন তৃণমূল নেত্রী? প্রাক্তন এমএলএ, প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী লেখা লেটারহেড ছাপিয়ে রাখতে হবে মমতাকে। ‘জিতব আমরাই’, মুষ্টিবদ্ধ হাত তুলে ঘোষণা শুভেন্দুর।

এদিকে হেঁড়িয়া থেকে প্রায় ২৫ কিলোমিটার দূরে বিদ্যাপীঠ স্কুল ময়দান থেকে মদনের ঘোষণা, একুশের পর নন্দীগ্রাম থেকেই মমতার সরকার চলবে। নবান্নকে তুলে নন্দীগ্রামে নিয়ে আসবেন মমতা। শুভেন্দুকে নিশানা করে তাঁর মন্তব্য, নন্দীগ্রামে ৫০ হাজার ভোটে হারানোর কথা বলছেন উনি। সেই চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করলাম। অফার দিলাম কামারহাটি থেকে দাঁড়িয়ে দেখান। তারপরই মদনের খোঁচা, প্রথমত ও লড়বে না, পালাবে।

মদনের কটাক্ষ, মমতা দু’চার লক্ষ ভোটে জিতবেন এটাই বলতে গিয়ে ভুল করে হাফ লাখ ভোটের ব্যবধানে তাঁকে হারানোর কথা বলে ফেলেছেন শুভেন্দু। হেঁড়িয়ার সভা থেকে তৃণমূলের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ করেন শুভেন্দু। খেজুরির অপর প্রান্তে দাঁড়িয়ে মদনের তোপ, মমতা শুভেন্দুকে সব পদ দিয়ে দিয়েছিলেন শুধু বিশ্বাস করে। তারপরও শুভেন্দু ‘বেইমানি’ করেছেন। তাঁর কটাক্ষ, শুধু নোবেল দেওয়া হয়নি তাঁকে। শুভেন্দুর গড়ে দাঁড়িয়ে অধিকারী পরিবারকে নিশানা করে মদনের ঘোষণা, ‘খেলা হবে, খেলা হবে।’

Comments
Loading...