‘ভারতীয় সেনাকে অপমান করা হয়েছে’ আজ তক চ্যানেল বন্ধের জন্য কেন্দ্রের কাছে আর্জি প্রযোজক নীলেশ নাভলাখার

হিন্দি নিউজ চ্যানেল আজ তক বন্ধ করে দেওয়ার আর্জি জানিয়ে তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকে অভিযোগ দায়ের। লাদাখের গালওয়ান ভ্যালিতে চিনের আগ্রাসনে ভারতীয় সেনার মৃত্যুর ঘটনায় আজ তক চ্যানেল অসংবেদনশীল, অবজ্ঞাসূচক এবং বিরক্তি উৎপাদনকারী মন্তব্য করেছ, এই অভিযোগে আজ তক চ্যানেল বন্ধ করার আর্জি জানিয়ে কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রকে আবেদন জানালেন প্রযোজক নীলেশ নাভলাখা।
অভিযোগ পত্রে নীলেশ নাভলাখা লিখেছেন, ভারত-চিন দ্বন্দ্ব নিয়ে খবর পরিবেশনের সময় আজ তকের অ্যাঙ্কর শ্বেতা সিংহ এবং রোহিত সরদানা এই মন্তব্যগুলো করেছেন। নীলেশ নাভলাখা লিখিতভাবে জানিয়েছেন কোন মন্তব্য নিয়ে তাঁর আপত্তি।
প্রযোজক নীলেশ নাভলাখা জানিয়েছেন, আজ তক চ্যানেলে এই দুই অ্যাঙ্কর বলেছেন,
‘এটা সেনার দায়িত্ব, এ জন্য সরকারকে দোষারোপ করে লাভ নেই’
‘ভারতীয় ভূখণ্ডে চিনা আগ্রাসন নিয়ে শুধু সরকারের ঘাড়ে দোষ চাপিয়ে লাভ নেই। এর দায় সেনারও, কারণ সেনাই সীমান্তে নজরদারির কাজ করে থাকে, সরকার না’
‘কোনও ঘটনা ঘটার পর প্রশ্ন করার সময় এটা নয়। এখানে কিছু প্রশ্নের উত্তর পাওয়া দরকার। প্রথমত, চিনের পিপলস লিবারেশন আর্মি আমাদের ভূখণ্ডে প্রবেশ করল এবং আমাদের সেনাকর্মীরা সেই সময় ঘুমিয়েছিলেন। তাহলে এর উত্তর আর্মিকেই দিতে হবে, কারণ সীমান্তে টহল দেওয়ার কাজ আর্মির, সরকারের নয়’
প্রযোজক নীলেশ নাভলাখার পাঠানো অভিযোগপত্রে তাঁর আইনজীবী রাজেশ জি ইনামদার এবং অমিত পাই লিখেছেন, এই ধরনের সংবাদ সম্প্রচার ভারতের সার্বভৌমত্ব এবং অখণ্ডতার উপর সরাসরি হামলা, দেশের নিরাপত্তার পক্ষে বিপজ্জনক এবং কোনওভাবেই ফ্রিডম অফ প্রেসের নিদর্শন নয়।
অভিযোগপত্রে আরও বলা হয়েছে, প্রতিরক্ষা বিষয়ে বিশেষজ্ঞ না হয়েও যেভাবে সংবাদ পরিবেশিত হয়েছে তাতে দেশের নিরাপত্তা বাহিনীর মনোবলে আঘাত লাগতে পারে। সুদূরপ্রসারী প্রভাব পড়তে পারে রাষ্ট্রের সামগ্রিক সুরক্ষা ব্যবস্থায়। উত্তেজক পরিস্থিতিতে যখন সম্প্রচারিত সংবাদ কোটি কোটি মানুষের মধ্যে পৌঁছচ্ছে, তখন ভারতীয় সেনাকে ছোট করে দেখানো হয়েছে, যা সরাসরি প্রোগ্রাম কোডের পরিপন্থী।
নীলেশ নাভলাখার অভিযোগ, এই চ্যানেল এবং তার দুই অ্যাঙ্কর এই মুহূর্তে দেশের জন্য কাজ করে চলা প্রতিটি জওয়ান এবং দেশের প্রতিটি বাসিন্দাকে অসংবেদনশীল, অবজ্ঞাসূচক এবং বিরক্তি উৎপাদনকারী মন্তব্যের মধ্যে দিয়ে অপমান করেছেন।
পাশাপাশি প্রযোজকের অভিযোগ, মুম্বইয়ের তরুণ অভিনেতা সুশান্ত সিংহ রাজপুতের আত্মহত্যার খবর সম্প্রচারের ক্ষেত্রেও অসংবেদনশীলতার পরিচয় দিয়েছে জনপ্রিয় হিন্দি নিউজ চ্যানেল আজ তক। বিভিন্ন ছবি, ফেক ট্যুইট প্রভৃতির মাধ্যমে সুশান্ত সিংহ রাজপুতের আত্মহত্যার ঘটনাকে মানুষের মধ্যে অসংবেদনশীলভাবে ছড়িয়ে দেওয়া হয়েছে।
কেবল টেলিভিশন নেটওয়ার্ক অ্যাক্টের অধীনে কেন্দ্রের হাতে যে কোনও চ্যানেল বন্ধ করে দেওয়ার সংস্থান রয়েছে। প্রযোজক নীলেশ নাভলাভা অভিযোগ পত্রে এই ক্ষমতা প্রয়োগ করে আজ তক চ্যানেল বন্ধ করে দেওয়া এবং বিশাল পরিমাণ আর্থিক শাস্তির আর্জি জানিয়েছেন।

Comments
Loading...