ভারতের প্রথম ২৫ ধনকুবেরের মিলিত সম্পদের পরিমাণ জিডিপির ১০ শতাংশ, শীর্ষে মুকেশ আম্বানী, সম্পদ প্রায় ৪ লক্ষ কোটি টাকা

এই নিয়ে পরপর ৮ বছর। ফের দেশের ধনীতম ব্যক্তির শিরোপা উঠল রিলায়েন্স কর্ণধার মুকেশ আম্বানীর মাথায়। তাঁর মোট সম্পদের পরিমাণ ৩,৮০,৭০০ কোটি টাকা। বুধবারই প্রকাশিত হয়েছে আইআইএফএল ওয়েলথ হুরান ইন্ডিয়া রিচ লিস্ট। সেখানে প্রথম স্থান থেকে এবারও নড়ানো যায়নি রিলায়েন্স ইন্ডাস্ট্রিজের মালিককে। মুকেশের ঠিক পিছনে, দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে এস পি হিন্দুজা অ্যান্ড ফ্যামিলি। তাদের মিলিত সম্পত্তির পরিমাণ ১,৮৬,৫০০ কোটি টাকা। হিন্দুজারা বর্তমানে লন্ডনের বাসিন্দা। তৃতীয় স্থানে রয়েছেন উইপ্রো কর্ণধার আজিম প্রেমজি। তাঁর সম্পদের পরিমাণ ১,১৭,১০০ কোটি টাকা। ১,০৭,৩০০ কোটি টাকা নিয়ে চতুর্থ আর্সেলর মিত্তলের কর্ণধার এল এন মিত্তল। পঞ্চম স্থানে আদানি গোষ্ঠীর প্রধান গৌতম আদানি। তাঁর মোট সম্পদের পরিমাণ ৯৪,৫০০ কোটি টাকা।

আইআইএফএল ওয়েলথ হুরান ইন্ডিয়া রিচ লিস্ট অনুযায়ী, ১ হাজার কোটি টাকার বেশি সম্পদশালী ভারতীয়ের সংখ্যা গত বছরের তুলনায় বেড়েছে। ২০১৮ সালে ১ হাজার কোটি টাকার বেশি সম্পদশালী ব্যক্তি ছিলেন ৮৩১ জন। এবার তা বেড়ে হয়েছে ৯৫৩ জন। যদিও মার্কিন ডলারের নিরিখে বিলিওনিয়ারের সংখ্যা গত বছরের চেয়ে কমেছে। ২০১৮ সালে ডলারের সাপেক্ষে বিলিওনিয়ারের সংখ্যা ছিল ১৪১। এবার তা কমে হয়েছে ১৩৮।

তালিকার প্রথম ২৫ জনের সম্পদ ভারতের মোট জিডিপির ১০ শতাংশ। জানুয়ারিতে প্রকাশিত অক্সফামের রিপোর্টে দেখা গিয়েছিল, ভারতের সবচেয়ে বিত্তবান মাত্র ৯ জন ব্যক্তির মোট সম্পদের পরিমাণ দেশের আর্থিকভাবে পিছিয়ে পড়া ৫০ শতাংশ মানুষের মোট সম্পদের সমান। শুধু তাই নয়, দেশের সবচেয়ে বড়লোক ১০ শতাংশ মানুষের হাতে রয়েছে ভারতের মোট সম্পদের ৭৭.৪ শতাংশ। আর এর মধ্যে এক শতাংশ মানুষের হাতেই রয়েছে দেশের মোট সম্পদের ৫১.৫৩ শতাংশ সম্পদ! অক্সফাম তার রিপোর্টে জানিয়েছিল, ঠিক কোন কোন ক্ষেত্রে এমন অফুরান সম্পদ বৃদ্ধি হচ্ছে

হুরান রিপোর্ট ইন্ডিয়ার রিপোর্টে উঠে এসেছে তালিকায় নাম থাকা ৮২ জন অনাবাসী ভারতীয়ের সম্পদের পরিমাণও। তারমধ্যে ৩১ জনই থাকেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। অনাবাসী ভারতীয়দের পছন্দের তালিকায় আমেরিকার পরই রয়েছে যথাক্রমে সংযুক্ত আরব আমিরশাহী এবং ইংল্যান্ড।

রিপোর্টে দেখা যাচ্ছে, দেশের সবচেয়ে তরুণ ধনকুবেরের তকমা গিয়েছে ২৫ বছর বয়স্ক ওয়ো কর্ণধার রীতেশ আগরওয়ালের কাছে। তাঁর সম্পদের পরিমাণ ৭,৫০০ কোটি টাকা। তারপরই আছেন মিডিয়া ডট নেটের মালিক দিব্যাঙ্ক তুরাখিয়া।

তালিকায় উঠে এসেছে মহিলা ধনকুবেরদের নামও। দেশের সবচেয়ে ধনী মহিলা এইচসিএল টেকনোলজির রোশনি নাদার। দিল্লির বাসিন্দা ৩৭ বছরের রোশনির সম্পদের পরিমাণ ৩৬,৮০০ কোটি টাকা। তারপরেই ৩১,৪০০ কোটি টাকার সম্পদ নিয়ে রয়েছেন গোদরেজের স্মিতা ভি কৃষ্ণা।

হুরান রিপোর্ট ইন্ডিয়ার এমডি তথা মুখ্য গবেষক আনস রহমান জুনেইদ বলছেন, ভারত সরকার ৫ ট্রিলিয়ন অর্থনীতির লক্ষ্য রেখেছে। সেই অনুযায়ী আগামী ৫ বছরের মধ্যে এই তালিকা ৩ গুণ বৃদ্ধি পাবে, বলেই মনে করছেন জুনেইদ।

Comments
Loading...