মাঝ আকাশে জেট এয়ারের বিমানে যাত্রীদের নাক, কান দিয়ে রক্তপাত, আতঙ্ক

রানওয়ে থেকে টেক অফ করার পর বিমানের ভিতরে বায়ুর চাপ স্বাভাবিক রাখতে বিমানেই নির্দিষ্ট কৃত্রিম ব্যবস্থা থাকে, যাতে মাঝ আকাশে বায়ুর চাপ কমে গেলেও যাত্রীদের কোনও শারীরিক ক্ষতি বা সমস্যা না হয়। নিয়ম অনুযায়ী, বিমান আকাশে ওড়ার সময়ই ওই ব্যবস্থা চালু করে দেওয়া সংশ্লিষ্ট বিমানের কেবিন ক্রু’দের দায়িত্ব। কিন্তু বৃহস্পতিবার এক সম্পূর্ণ উল্টো ঘটনার সাক্ষী থাকলেন মুম্বই থেকে জয়পুরগামী বেসরকারি বিমান সংস্থা জেট এয়ারওয়েজের যাত্রীরা। জানা গেছে, এদিন বায়ুচাপ নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা চালু করেই মুম্বই থেকে জয়পুরের উদ্দেশ্য টেক অফ করে বিমানটি। যার ফল হয়েছে মারাত্মক। জানা গেছে এই ঘটনার জেরে বিমানের প্রায় ৩০ জন যাত্রী গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন। শরীর এই বায়ু চাপের অসামঞ্জস্য সামলাতে না পেরে বিমানের মধ্যেই তাঁদের নাক ও কান থেকে গলগল করে রক্ত বেরোতে শুরু করে। তীব্র আতঙ্ক ছড়ায় বিমানের ভিতর। পরিস্থিতি এমন দাঁড়ায় যে, জয়পুর না গিয়ে বিমানটিকে আবার মুম্বইয়ে ফিরিয়ে নিয়ে আসেন পাইলট। জরুরি অবতরণ করানো হয় জেট এয়ারের এই বিমানটিকে। বিমানটিতে মোট ১৬৬ জন যাত্রী ছিলেন। পরে সকাল সওয়া ১০ টা নাগাদ পুনরায় বিমানটি জয়পুরের উদ্দেশ্যে রওনা হয়। অসুস্থ বিমান যাত্রীদের হাসপাতালে পাঠানো হয়।
কিন্তু কেন এমন ভয়ঙ্কর ঘটনা ঘটল মাঝ আকাশে? জেট এয়ারওয়েজ কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ওই বেমানটির কেবিন ক্রু বিমানের বায়ু চাপ নিয়ন্ত্রক ব্যবস্থাটি চালু করতে ভুলে গিয়েছিলেন, যার জেরে এত বড় বিপত্তি। ঘটনায় বিবৃতি জারি করে যাত্রীদের কাছে লিখিতভাবে ক্ষমা চেয়েছে এই বিমান সংস্থাটি। আপাতত অভিযুক্ত কেবিন ক্রু’দের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে বলে সংস্থার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

Comments
Loading...