‘জয় বাংলা স্লোগান দেশদ্রোহিতা এবং উপ-জাতীয়তাবাদ’, তৃণমূলকে বেনজির আক্রমণে রাজ্যপাল তথাগত রায়! রাজ্যের নাম বাংলা, পালটা তৃণমূল

সম্প্রতি কেন্দ্রীয় সরকারের হিন্দি ভাষা শিক্ষা বাধ্যতামূলক করার ইস্যুতে ভিন রাজ্যে কর্মরত বাঙালিদের নিয়ে করা তাঁর ট্যুইটে বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছিল। প্রাক্তন বিজেপি নেতা এবং মেঘালয়ের বর্তমান রাজ্যপাল তথাগত রায় লিখেছিলেন, ‘এখন বাঙালির ছেলেরা হরিয়ানা থেকে কেরালা পর্যন্ত সব জায়গায় ঘর ঝাঁট দেয়, বাঙালি মেয়েরা মুম্বইতে বার-ডান্স করে, যা আগে অকল্পনীয় ছিল।’ এই ট্যুইটের মধ্যে দিয়ে বাঙালিদের অপমান করা হয়েছে বলে প্রকাশ্যেই জানিয়েছিলেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী।
এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের তোলা জয় বাংলা স্লোগানকে ‘ইচ্ছাকৃত দেশদ্রোহিতা’ এবং ‘ছদ্ম উপ-জাতীয়তাবাদ’ বলে উল্লেখ করে তৃণমূলকে বেনজির আক্রমণ করলেন তথাগত রায়। বৃহস্পতিবার পর পর দুটি ফেসবুক পোস্টে ‘জয় বাংলা’ স্লোগানের কথা উল্লেখ করে নাম না করে তৃণমূল নেত্রীকে তীব্র আক্রমণ করেন তিনি। গোটা ঘটনায় অত্যন্ত ক্ষুব্ধ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।
বৃহস্পতিবার সকালে প্রাক্তন বিজেপি নেতা এবং বর্তমান রাজ্যপাল তথাগত রায় তাঁর নিজস্ব ফেসবুক ওয়ালে প্রথমে একটি পোস্ট করেন। তাতে তিনি লেখেন, ‘জয় বাংলা স্লোগানটি বাংলাদেশের সঙ্গে সম্পর্কিত। ইদানীং একটা ধারণা তৈরি করা হয়েছে, এই স্লোগানটি যে কোনও বাঙালি দিতে পারেন। এটা ইচ্ছাকৃতভাবে দেশদ্রোহিতা এবং ছদ্ম উপ-জাতীয়তাবাদ ছড়িয়ে দেওয়ার অপচেষ্টা। সাবধান’।

দক্ষিণ কলকাতা লোকসভা আসন থেকে ২০১৪ সালে বিজেপির প্রতীকে ভোটে দাঁড়ানো তথাগত রায়ের এই পোস্টের লক্ষ্য আসলে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বিজেপি-আরএসএসের হিন্দি-হিন্দু-হিন্দুস্থান তত্ত্বের কট্টর সমালোচক মমতা। নির্বাচনী প্রচার কিংবা অন্য কোনও সভা থেকে সম্প্রতি ‘জয় বাংলা’ স্লোগান দিচ্ছেন মুখ্যমন্ত্রী। বাঙলায় থাকলে বাঙলা বলতে হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি। এবার সেই স্লোগানকেই ‘দেশদ্রোহিতা’ বলে অভিহিত করলেন তথাগত রায়। এবং নিজের মত প্রতিষ্ঠা করতে গিয়ে প্রাক্তন বিজেপি নেতা তথাগত রায়ের দাবি, এই স্লোগান কেবলমাত্র বাংলাদেশিদের একছত্র।
তথাগত রায়ের এই ফেসবুক পোস্টে অত্যন্ত ক্ষুব্ধ মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূলের বক্তব্য, এঁরা আসলে বাংলা বিরোধী। বিধানসভায় রাজ্যের নাম বাংলা করার জন্য সর্বসম্মত সিদ্ধান্ত হয়েছে। ফলে রাজ্যের নাম ব্যবহার করে ‘জয় বাংলা’ স্লোগান দেওয়া অত্যন্ত গর্বের। বাংলাদেশ একটি পৃথক দেশ। তার সঙ্গে এর কোনও সম্পর্ক নেই। রাজ্যের নাম বাংলা করা হয়েছে বলেই ‘জয় বাংলা’ স্লোগান দেওয়া হচ্ছে।
লোকসভায় তৃণমূল সাংসদদের দেওয়া এই স্লোগান দেওয়া নিয়েও বৃহস্পতিবার আরও একটি পোস্ট করেন তথাগত রায়। সেখানে তিনি লেখেন, ‘লোকসভায় কয়েকজন সদস্যের জয় বাংলা স্লোগান শুনে আমি পীড়িত। এটি সার্বভৌম দেশ বাংলাদেশের স্লোগান। ওই সদস্যরা ‘গড সেভ দ্য ক্যুইন’ কিংবা ‘পাকিস্তান জিন্দাবাদ’ বলেও স্লোগান দিতে পারতেন’।

সদ্য শেষ হওয়া লোকসভা ভোটে বাংলায় ১৮ টি আসন জিতেছে বিজেপি। এই অবস্থায় নিজেদের দাপট দেখাতেই গেরুয়া শিবির ‘জয় শ্রীরাম’ স্লোগান ব্যবহার করছে। তার পাল্টা হিসেবে তৃণমূল নেতা-কর্মীরা ব্যবহার করছেন ‘জয় বাংলা’ স্লোগান। এই পরিস্থিতিতে তৃণমূল-বিজেপির স্লোগান যুদ্ধে একজন রাজ্যপাল কীভাবে অংশ নিচ্ছেন, কেন রাজনৈতিক লড়াইয়ে অংশ নিচ্ছেন তা নিয়েও প্রশ্ন তুলছে তৃণমূল।

আরও পড়ুনঃ বাঙালিদের নিয়ে রাজ্যপাল তথাগত রায়ের কুরুচিকর ট্যুইট ঘিরে বিতর্ক, দেশজুড়ে নিন্দার ঝড়

 

Comments
Loading...