দুর্নীতি-বাণে বিদ্ধ রাজীব, বন সহায়কের পর এবার নদী বাঁধ সংস্কার নিয়ে অভিযোগ

ফের রাজীব ব্যানার্জির বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ। নদী বাঁধ সংস্কারের ক্ষেত্রে বিপুল টাকার দুর্নীতি হয়েছে বলে অভিযোগ উদয়নারায়ণপুরের তৃণমূল বিধায়ক সমীর পাঁজার। ইতিমধ্যেই বন সহায়ক পদে নিয়োগে দুর্নীতির অভিযোগে রাজীবের বিরুদ্ধে তদন্ত করছে রাজ্য সরকার। সেই রেশ মিটতে না মিটতেই নতুন দুর্নীতির অভিযোগ সদ্য বিজেপিতে যোগ দেওয়া রাজীব ব্যানার্জির বিরুদ্ধে।

প্রতি বছরই হাওড়ার আমতা ও উদয়নারায়ণপুরের বিস্তীর্ণ এলাকা বন্যায় ভাসে। সমস্যা মেটাতে বাঁধের মেরামতির কাজ করা হয়। তবে অভিযোগ, তাতেও সমস্যা মেটেনি। এ জন্য প্রাক্তন সেচমন্ত্রী রাজীবকে কাঠগড়ায় তুলেছেন তৃণমূল বিধায়ক। সমীর পাঁজার অভিযোগ, সেচমন্ত্রী হওয়ার পর রাজীব তাঁর পছন্দমতো ঠিকাদার এবং অফিসারদের দিয়ে নদীবাঁধ মেরামতির কাজ করিয়েছেন। বাঁধ মেরামতিতে পাহাড় প্রমাণ দুর্নীতির কারণেই উদয়নারায়ণপুরের বন্যা সমস্যার সমাধান হয়নি। পাশাপাশি তাঁর দাবি, রাজীব সেচমন্ত্রী থাকাকালীন নিম্ন দামোদর অববাহিকা এলাকায় যেসব নদীবাঁধ মেরামতির কাজ হয়েছে তারও তদন্ত করা হোক।

[আরও পড়ুন- দীনেশ ত্রিবেদী: জনতা দল থেকে কংগ্রেস হয়ে তৃণমূল, পরবর্তী গন্তব্য…] 

২০১১ সালে তৃণমূলের টিকিটে ডোমজুড় বিধানসভা থেকে জয়ী হন রাজীব ব্যানার্জি। এরপর ২০১২ সালে তিনি সেচমন্ত্রী হন। ২০১৬ সালে মমতা ব্যানার্জি দ্বিতীয়বারের জন্য মুখ্যমন্ত্রী হলে তিনি ফের সেচ দফতরের দায়িত্ব পান। ২০১৮ সালে তাঁকে সেচ থেকে সরিয়ে অনগ্রসর উন্নয়ন মন্ত্রী করা হয়।
তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগের উত্তরে রাজীব বলেন, আমি এসবের উত্তর দিই না, কে কেমন আগামী দিনে ভোটের রায়ে তা প্রমান হয়ে যাবে।

Comments
Loading...