সূর্যকান্ত মিশ্র: ‘সুশান্ত ঘোষ যা লিখেছেন তা বহিষ্কার যোগ্য অপরাধ’, thebengalstory.com এ লেখা ডায়রি নিয়ে বিতর্ক সিপিএমে

দীর্ঘদিন ধরে thebengalstory.com এ ডায়েরি লেখার জন্য এবার কি কড়া শাস্তির মুখে পড়তে চলেছেন রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী এবং সিপিএম নেতা সুশান্ত ঘোষ? সূত্রের খবর, তাঁকে দল থেকে বহিষ্কার করার জন্য প্রাথমিক সিদ্ধান্ত নিয়েই ফেলেছেন আলিমুদ্দিন স্ট্রিটের শীর্ষ নেতৃত্ব।
ঘটনার সূত্রপাত ২০১৮ সালের জুন মাসে। সেই সময় থেকে thebengalstory.com এ ধারাবাহিকভাবে একটি ডায়েরি লেখেন সুশান্ত ঘোষ। তাঁর নামেই এই ডায়েরি প্রত্যেক শুক্রবার thebengalstory.com এ প্রকাশিত হয়। সেখানে বিভিন্ন ইস্যুতে সুশান্ত ঘোষ তীব্র ভাষায় কখনও প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য, কখনও বিমান বসু, কখনও মহম্মদ সেলিম, কখনও সূর্যকান্ত মিশ্রর সমালোচনা করেন। সিপিএমের অন্দরে তো বটেই ‘সুশান্ত ঘোষের ডায়েরি’ অল্প সময়ের মধ্যেই ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করে। শুধু তাই নয়, তা সুশান্ত ঘোষের লেখা একাধিক অজানা ঘটনা (বিশেষ করে নন্দীগ্রাম, নেতাই নিয়ে) দলের মধ্যে তীব্র বিতর্কেরও সৃষ্টি করেছিল। সিপিএম নেতা রবীন দেব সেই সময় সুশান্ত ঘোষের ফ্ল্যাটে গিয়ে তাঁর সঙ্গে দেখাও করেন এবং দলের বিরুদ্ধে তাঁর ক্ষোভ নিয়ে কথা বলেন।


পড়ুন সুশান্ত ঘোষের ডায়েরি # পর্ব ১। ‘বন্ধুর চেয়ে পার্টি বড়,’ এ কথা আজ বুকে হাত দিয়ে বলতে পারব?


রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী এবং পশ্চিম মেদিনীপুরের প্রভাবশালী নেতার এই ডায়েরি লেখা নিয়ে দলের মধ্যে তীব্র বিতর্কের মাঝেই গোটা ঘটনায় নতুন মাত্রা যোগ করে সম্প্রতি লোকসভা নির্বাচনের আগে ও পরে সুশান্ত ঘোষের একাধিক রাজনৈতিক কর্মসূচি। এবং সুশান্ত ঘোষ যে সমস্ত দলীয় কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছেন তা সিপিএম শীর্ষ নেতৃত্বের অনুমতি ছাড়াই হয়েছে বলে জানিয়েছে আলিমুদ্দিন স্ট্রিট।
গত ২৩ এবং ২৪ শে জুলাই আলিমুদ্দিন স্ট্রিটে বসেছিল সিপিএমে রাজ্য কমিটির মিটিং। সেই মিটিংয়ে সুশান্ত ঘোষকে নিয়ে আলোচনা ওঠে। পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার পক্ষ থেকে তাপস সিংহ সরাসরি সুশান্ত ঘোষের বিরুদ্ধে তীব্র বিষোদগার করেন। thebengalstory.com এ যে ডায়েরি ধারাবাহিকভাবে সুশান্ত ঘোষ লিখেছেন তার উল্লেখ করে তাপস সিংহ বলেন, প্রাক্তন মুখ্যমন্ত্রী (বুদ্ধদেব ভট্টাচার্য) , প্রাক্তন স্বাস্থ্যমন্ত্রী (সূর্যকান্ত মিশ্র) সহ দলের সিনিয়ার নেতাদের লাগাতার আক্রমণ করা হয়েছে, তাঁদের কাজের সমালোচনা করা হয়েছে। এই সব কি দলে অনুমোদনযোগ্য? তাপস সিংহ ছাড়াও আরও কয়েকজন সুশান্ত ঘোষের সমালোচনা করেন। বাঁকুড়া জেলায় সম্প্রতি সুশান্ত ঘোষকে নিয়ে একটি দলীয় কর্মসূচি হয়েছিল। এর জন্য ওই জেলারই দুই নেতাকে দায়ী করে সুশান্ত ঘোষের সমালোচনা করেছে বাঁকুড়া জেলা। পাশপাশি, এক সিপিএম নেতা বলেন, দলীয় মুখপত্র গণশক্তিতে পর্যন্ত একটি অনুষ্ঠানের কথা ছাপা হয়েছিল, যেখানে বক্তা তালিকায় সুশান্ত ঘোষের নাম ছিল এক নম্বরে, যিনি দলের একজন জেলা কমিটির সদস্য। আর সুশান্ত ঘোষের নীচে নাম ছিল পলিটব্যুরো সদস্যের। পার্টি পত্রিকা এটা কীভাবে করতে পারল?
গোটা বিতর্ক শুনে সিপিএম রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্র বলেন, সুশান্ত ঘোষের যে লেখার কথা (thebengalstory.com) আপনারা উল্লেখ করেছেন তা আমি পড়েছি। তিনি যা লিখেছেন তা বহিষ্কার যোগ্য অপরাধ। চাইলে দল তাঁকে বহিষ্কার করতেই পারে। কিন্তু সেটাই একমাত্র সমাধান নয়। তাছাড়া সুশান্ত ঘোষ রাজ্য কমিটির সদস্যও নন। তিনি যে জেলার সদস্য তাদেরই উচিত বিষয়টা দেখা। এরপরই সূর্যকান্ত মিশ্র পশ্চিম মেদিনীপুরের সিপিএম সম্পাদক তরুণ রায়কে নির্দেশ দেন সুশান্ত ঘোষকে শো-কজ করতে।
সূত্রের খবর, রাজ্য সম্পাদকের এই নির্দেশের পর পশ্চিম মেদিনীপুর জেলা শীঘ্রই সুশান্ত ঘোষকে শো-কজ করবে এবং তার ভিত্তিতে তাঁর বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য আলিমুদ্দিন স্ট্রিটের কাছে সুপারিশ করবে। সিপিএম সূত্রে খবর, সুশান্ত ঘোষের বিরুদ্ধে কড়া ব্যবস্থা (বহিষ্কার) নেওয়ার পক্ষেই মত অধিকাংশ রাজ্য সম্পাদকমণ্ডলীর সদস্যের।

সুশান্ত ঘোষের পুরো ডায়েরি পড়ুন

Comments
Loading...