বিজেপিকে ভোট নয়, ছেলের সমাধিস্থলে প্রবেশ নিষেধ বিজেপি প্রার্থীর, ক্ষুব্ধ দাড়িভিটে মৃত ২ ছাত্রের পরিবার

বিজেপির প্রার্থী তালিকা নিয়ে রাজ্যের বিভিন্ন প্রান্তে চলছে বিক্ষোভ কর্মসূচী। এবার সেই আঁচ গিয়ে পড়ল উত্তর দিনাজপুরের দাড়িভিটে। দাড়িভিট কাণ্ডে নিহত দুই কলেজ পড়ুয়ার পরিবার জানিয়েছে, বিজেপিকে সমর্থন করলেও প্রার্থী তাঁদের না পছন্দ। আসন্ন নির্বাচনে বিজেপিকে ভোট তো দেবোই না, প্রার্থীকে ওই দুই ছাত্রের সমাধিস্থলেও ঢুকতে দেওয়া হবে না জানিয়ে দিয়েছেন নিহত ছাত্রদের পরিবার।

ইটাহার ও করনদিঘি আসন ছাড়া বৃহস্পতিবার উত্তর দিনাজপুর জেলায় বিজেপি প্রার্থীদের নাম ঘোষণা করা হয়েছে। ইসলামপুর থেকে লড়াই করবেন স্থানীয় চিকিৎসক সৌম্যরুপ মণ্ডল। এরপরেই প্রার্থী বদলের দাবিতে দাড়িভিটের বিভিন্ন দলীয় কার্যালয়ে ভাঙচুর চালানো হয়। এই আন্দোলনে সামিল হতে দেখা যায় দাড়িভিট কাণ্ডে দুই নিহত ছাত্রের পরিবারকেও।

২০১৮ সালে ইসলামপুরের দাড়িভিট হাইস্কুলে বাংলাd ভাষায় শিক্ষকের দাবিতে পড়ুয়াদের আন্দোলন শুরু হয়। আন্দোলনকে আয়ত্বে আনতে গুলি চালাতে বাধ্য হয় পুলিশ। পুলিশের গুলিতে রাজেশ সরকার ও তাপস বর্মন নামে দুই ছাত্র নিহত হয়। গুরুতর আহত হয় আরেক ছাত্র। ঘটনায় পুলিশদের শাস্তি ও সিবিআই তদন্তের দাবি জানিয়ে আন্দোলন শুরু করেন এলাকাবাসীরা। ঘটনায় প্রায় ৩ মাস বন্ধ ছিল ওই স্কুল। প্রতিবাদে ধর্মঘট ডাকে বিজেপি। দাড়িভিট কাণ্ডকে সামনে রেখে এলাকায় নিজেদের জমি শক্ত করে বিজেপি। এর প্রভাব পড়ে ২০১৯-এ লোকসভার ভোটে।

সেইসময় বিজেপি ছাড়া অন্য কোনও রাজনৈতিক দলের নেতারা দাড়ভিটে ঢুকতে পারেনি। ঘটনার তদন্ত শুরু করে সিআইডি। কিন্তু সিবিআই তদন্তের দাবিতে নিহত দুই ছাত্রকে সৎকার না করে এলাকার নদীর পাড়ে সমাধিস্থ করে রাখা হয়। লোকসভা নির্বাচনে রায়গঞ্জ বিজেপির হয়ে দাঁড়িয়ে দেবশ্রী চৌধুরী সেই সমাধিতে শ্রদ্ধা জানিয়ে প্রচার শুরু করেন। দ্বিতীয়বার প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নরেন্দ্র মোদি শপথ নেওয়ার সময়ও ওই দুই নিহত ছাত্রের পরিবারকে আমন্ত্রণ জানানো হয়।

উত্তর দিনাজপুর জেলায় বিজেপির আন্দোলনের পীঠস্থান দাড়িভিট হলেও বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপিকে ভোট দেবে না বলেই জানিয়ে দিয়েছে নিহত দুই ছাত্রের পরিবার। নিহত ছাত্র তাপস বর্মনের মায়ের অভিযোগ, এলাকার বিজেপি প্রার্থী চিকিৎসক সৌম্যরুপ মণ্ডল কোনও যোগাযোগ রাখেন না।

Comments
Loading...