রাম মন্দির তৈরির কাজ শুরু হবে ২১ শে ফেব্রুয়ারি, ঘোষণা দ্বারকাপীঠের শঙ্কারাচার্য স্বামী স্বরূপানন্দ সরস্বতীর

অযোধ্যায় রাম মন্দির তৈরির কাজ শুরু হবে আগামী ২১ শে ফেব্রুয়ারি থেকে, ঘোষণা করলেন দ্বারকাপীঠের শঙ্কারাচার্য স্বামী স্বরূপানন্দ সরস্বতী। বুধবার তিনি বলেন, ১০ ই ফেব্রুয়ারি প্রয়াগরাজে কুম্ভ মেলা শেষ হওয়ার পরেই অযোধ্যার উদ্দেশ্যে যাত্রা করবেন তাঁরা। দ্বারকাপীঠের শঙ্কারাচার্য স্বামী স্বরপানন্দ সরস্বতী তাঁর শিষ্য ও অনুগামীদের ৪ টি করে ইট নিয়ে অযোধ্যায় যেতে নির্দেশ দিয়েছেন। তিনি এর নাম দিয়েছেন ‘ইস্টিকা ন্যাস’।
দু’দিন আগেই রাম মন্দির নির্মাণের জন্য অযোধ্যার অবিতর্কিত জমি রাম জন্মভূমি ন্যাসের হাতে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য সুপ্রিম কোর্টে আর্জি জানিয়েছে কেন্দ্রীয় সরকার। ঠিক এই সময়ই ধর্মীয় নেতার এই বক্তব্য বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে। কারণ, যত লোকসভা ভোট এগোচ্ছে ততই মন্দির নির্মাণ এবং তাকে কেন্দ্র করে ধর্মীয় ভাবাবেগ তৈরিতে নেমেছেন বিজেপি নেতারা।
সংবাদ সংস্থা পিটিআইকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে স্বামী স্বরূপানন্দ সরস্বতী জানান, এই যাত্রায় তাঁরা গুলির মুখোমুখি হতেও প্রস্তুত। পাশাপাশি, রাম মন্দির ইস্যুতে বিজেপি সরকারের ওপর চাপ সৃষ্টি করে তিনি বলেন, লোকসভায় বিল পাশ করিয়ে অনেক আগেই রাম মন্দির তৈরির কাজ শুরু করে দেওয়া উচিত ছিল মোদী সরকারের। সরকার আর্থিক পিছিয়ে পড়া উচ্চবর্ণের জন্য শিক্ষা ও চাকরি ক্ষেত্রে সংরক্ষণ বিল পাশ করাতে সক্ষম হয়েছে। চাইলেই তারা রাম মন্দির তৈরির জন্যও বিল আনতে পারত বলে মন্তব্য করেছেন তিনি।
অন্যদিকে, বিশ্ব হিন্দু পরিষদ প্রয়াগরাজে বৃহস্পতিবার থেকে দু’দিনের ‘ধর্মী সংসদ’ শুরু করতে চলেছে , সেখানেও রামমন্দির ইস্যু নিয়ে আলোচনা হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল।
প্রসঙ্গত, স্বামী স্বরূপানন্দ এর আগে একাধিকবার বিতর্কিত মন্তব্য করেছেন। ২০১৫ সালে যখন মহারাষ্ট্র সরকার গো মাংস বিক্রি বন্ধ করেছিল, তখন স্বরূপানন্দ সরস্বতী মহারাষ্ট্র সরকারকে সাধুবাদ জানিয়ে সারা দেশে গো হত্যা বন্ধ করতে আইন আনার কথা বলেছিলেন। তিনি বিজেপি সরকার ও আরএসএস সংগঠনেরও বিভিন্ন সময়ে সমালোচনা করেছেন।

Comments
Loading...