কেন বিয়ে করেননি সঞ্জীব কুমার? ফাঁস করলেন অঞ্জু মহেন্দ্রু, কারণ শুনলে চমকে যাবেন! অর্থ, চূড়ান্ত যশ- খ্যাতি থাকা সত্বেও ব্যক্তিগত জীবনে বড্ড একা ছিলেন সঞ্জীব কুমার

সঞ্জীব কুমার বলিউডের কিংবদন্তি অভিনেতা। তার আসল নাম হরিহর জেঠলাল জরিওয়ালা। ইন্ডাস্ট্রিতে সকলেই তাকে ভালবেসে ‘হরিভাই’ বলে ডাকতেন। দিলীপ কুমারকে পর্দার ‘ট্রাজেডি কিং’ বলা হলেও বাস্তবজীবনে সঞ্জীব কুমার ছিলেন আসল ‘ট্রাজেডি কিং’। তিনি ব্যক্তিগত জীবনে অনেক ওঠাপড়ার মধ্যে দিয়ে গেছেন। সম্প্রতি অঞ্জু মাহেন্দ্রুর পুরনো এক সাক্ষাৎকার থেকে জানা গিয়েছে কেন অভিনেতা সারাজীবন অবিবাহিতই থেকে গেলেন!

সম্প্রতি এই পুরনো সাক্ষাৎকারে অঞ্জু মহেন্দ্রুর কথা থেকেই ফাঁস হলো রহস্য। জানা গেছে, সঞ্জীব কুমারকে বেশিরভাগ সময়ই মেয়েরাই ঘিরে থাকতো। তিনি যেহেতু খুবই খেতে ভালোবাসতেন, সেহেতু অনেক মহিলারাই ভালো ভালো খাবার রান্না করে খাওয়াতেন। আর তার জন্যই তারা উঠে আসছেন অভিনেতা পছন্দের তালিকায়। তার হাসি এবং ব্যক্তিত্ব ছিল খুবই আকর্ষণীয়, অঞ্জু মহেন্দ্রুর মতে। খুব স্বাভাবিকভাবেই তার দিকে আকর্ষিত হত মহিলারা জানান তিনি।

এই বলিউড কিংবদন্তি অভিনেতার বলিউডের বেশ কয়েকজন অভিনেত্রীর সঙ্গে নাম জড়িয়েছিল। একসময়ে বলিউডের হেমা মালিনী, সুচিত্রা সেন এবং সুলক্ষণা পণ্ডিতের মত অভিনেত্রীদের সঙ্গে নাম জড়িয়েছিল অভিনেতার। তবে সেকথা তিনি কখনোই প্রকাশ্যে স্বীকার করেননি। পরবর্তীকালে হেমা মালিনীর সঙ্গে বলিউড অভিনেতা ধর্মেন্দ্রর বিয়ে হয়ে যায়। কিন্তু সুলক্ষণা পণ্ডিত সারাজীবন অবিবাহিতই থেকে গিয়েছেন। জানা যায় সুলক্ষণা পণ্ডিত সঞ্জীব কুমারের থেকে বয়সে অনেকটা ছোট হওয়ায় তিনি তার প্রেমের প্রস্তাব স্বীকার করেননি।

তিনি যখনই কোন মহিলার কাছাকাছি আসতেন তখনই তার বন্ধুরা তাকে বুঝাতেন যে কেউ ভালবেসে তার কাছে আসছে না। বরং তার টাকা দেখেই তার কাছে আসছে। পরবর্তীকালে এই কথাটাই অভিনেতার মাথায় জেঁকে বসেছিল, সাক্ষাৎকারে এমনটাই জানিয়েছেন অঞ্জু মহেন্দ্রু। পরে তিনি অনেক বুঝিয়েছিলেন অভিনেতাকে কিন্তু তাতে কোন কাজ হয়নি। শেষপর্যন্ত তিনি সারা জীবন অবিবাহিতই থেকে গিয়েছিলেন।

সঞ্জীব কুমার খুব খাদ্য রসিক মানুষ ছিলেন। সঞ্জীব কুমার তার গোটা পরিবারের সদস্যদের মধ্যে একটু অন্যরকম ছিলেন। তাদের পারিবারিক জরির ব্যবসা ছিল। কিন্তু তিনি ব্যবসায়ে যোগদান না করে সোজা চলে এসেছিলেন অভিনয় জগৎ-এ। অভিনেতার সেদিনের সেই সিদ্ধান্ত যে একেবারেই ঠিক ছিল তা আজকের দিনে দাঁড়িয়েও বোঝা যায়। তার অভিনয় জীবন বেশি দিনের না হলেও তার অভিনীত সিনেমাগুলি দর্শক মনে থেকে গেছে আজও।

তার অভিনীত জনপ্রিয় কিছু সিনেমার নাম হল ‘সত্যকাম’, ‘খিলোনা’, ‘দস্তক’, ‘অনুভব’, ‘কোশিশ’, ‘অনহোনি’, ‘মৌসম’,’আঁধি’, ‘অনামিকা’, ‘শতরঞ্জ কে খিলাড়ি’, ‘শোলে’, ‘সিলসিলা’ ইত্যাদি। শোনা যায় অভিনেতার বাড়ির সকল পুরুষের আয়ু ৫০ বছরের বেশি ছিল না, আর প্রায় সকলেরই হার্টের প্রবলেম ছিল। সঞ্জীব কুমারের ক্ষেত্রেও তার অন্যথা হয়নি। অভিনেতাও ৪৭ বছর বয়সে মারা। এটাও ছিল তার বিয়ে না করার অন্যতম কারণ। তার চলে যাওয়া অভিনয় জগৎ-এর এক অপূরণীয় ক্ষতি, যা আজও পূরণ হয়নি।

Comments are closed.