কী পড়বেন, কীভাবে গড়বেন কেরিয়ার? ছাত্র-ছাত্রীদের জন্য একগুচ্ছ কোর্স নিয়ে হাজির জেআইএস ইন্সটিটিউট অব অ্যাডভান্স স্টাডিজ অ্যান্ড রিসার্চ

The root of education are bitter, but the fruit is sweet-কথাটা একবারে সত্যি। পড়াশোনা করতে অনেকেই ভালোবাসে না, কিন্তু স্বপ্ন দেখে ভাল কেরিয়ার করার। আবার অনেকে আছে যারা বুঝে উঠতেই পারে না, কীসে তাদের ভালো কেরিয়ার হতে পারে। পড়ুয়াদের মধ্যে অনেকে আছে, যারা পড়াশোনা ও সঠিক কেরিয়ার দুটোই করতে চায়। কিন্তু বুঝে উঠতে পারে না স্নাতকের পর কীভাবে কেরিয়ার গড়ে তুলবে। তাহলে সহজে পড়াশোনা আর কেরিয়ার গড়ার কোনও উপায় কি নেই? আছে, উপায় আছে। কীভাবে? সেটাই একটু বলা যাক।
এই সমস্যার সমাধান নিয়ে হাজির হয়েছে জেআইএস ইন্সটিটিউট অফ অ্যাডভান্স স্টাডিজ অ্যান্ড রিসার্চ (জেআইএসআইএএসআর)। এবার একটু জেআইসআইএএসআর সম্পর্কে বলা যাক। কেন এখানে ছাত্র ছাত্রীরা পড়তে আসবে? আর পড়তে এলে কী কী সুবিধা পাবে তারা? আদৌ কি পাবে?
জেআইএসআইএএসআর এক কথায় এক ছাদের তলায় রকমারি সম্ভার। যা এতদিন কোথাও ছিল না। এখানে এমএসসি, এমটেক, এমবিএ থেকে গবেষণা, সব সম্ভব। শুধুই কি তাই? পড়াশোনার সঙ্গে সঙ্গে আছে প্লেসমেন্ট ট্রেনিংও। দেশ থেকে বিদেশ, সব জায়গায় রয়েছে কাজের সুযোগ। এই প্রসঙ্গে বলে রাখা ভালো, ২০১৯ সালে ২৩ ডিসেম্বর আইআইটি খড়গপুরের সঙ্গে জেআইএসআইএএসআর–এর একটি মউ চুক্তি হয়। যার লক্ষ্যই হল, আগামী পাঁচ বছরের মধ্যে যোগ্যতাসম্পন্ন ছাত্র-ছাত্রী তৈরি করা। এই মউ চুক্তি অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জেআইএসআইএএসআর-এর ডিরেক্টর প্রফেসর অজয় রায়, জিআইএস-এর এম ডি, তথা চ্যান্সেলার অব জেআইএস ইন্সটিটিউট সর্দার তরণজিৎ সিংহ সহ আরও বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ। এই বিষয়ে সর্দার তরণজিৎ সিংহ জানিয়েছেন, আগামী দশ বছরের মধ্যে যে নতুন টেকনোলজি ডেভেলপ করছে, বিশেষ করে আইসিটি সেক্টরে, ছাত্র-ছাত্রীরা সেগুলোই শিখবে। যেগুলো তাদের ভবিষ্যতে চাকরির ক্ষেত্রে কাজে লাগবে। সেই বিষয়গুলিকে লক্ষ্য রেখেই এই কোর্স চালু করেছি আমরা।

 

পাশাপাশি প্রফেসর অজয় রায় জানিয়েছেন, এই কোর্সগুলো এমনভাবে তৈরি করা হয়েছে, যাতে ছাত্র-ছাত্রীদের পড়াশোনা, ইন্টার্নশিপ এবং ইন্ডাস্ট্রি ভিজিট ছাড়াও, তারা ওয়ান টু ওয়ান ইন্টারেকশন করতে পারে এবং এরপর তারা ইন্ডাস্ট্রি সেক্টর বা গবেষণাতেও যেতে পারে।
সেই সঙ্গে এই মউ চুক্তির সুবিধে হল, জেআইএসআইএএসআর-এর ফ্যাকাল্টি, স্টাফ ও ছাত্র-ছাত্রীরা একসঙ্গে আইআইটি খড়গপুরের সঙ্গে যৌথভাবে কাজ করতে পারবেন। এমনকী তাঁদের সঙ্গে একসঙ্গে গবেষণাও করতে পারবেন। জেআইএসআইএএসআর-এর মুল কাজই হল ছাত্র-ছাত্রীদের এমনভাবে তৈরি করা, যাতে তাঁরা আগামী দিনে গবেষণা ও কোনও বড় সংস্থায় যোগ্যতার সঙ্গে কাজ করতে পারেন। কেরিয়ার গড়ার স্বাদ পেতে হলে অবশ্যই আসতে হবে জেআইএসআইএএসআর–এ।

Comments
Loading...