নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে রাস্তায় মুখ্যমন্ত্রী, এনপিআর স্থগিত করল রাজ্য সরকার

এনআরসি এবং সিএবি ইস্যুতে কেন্দ্রের সাথে সংঘাত আরও বাড়াল রাজ্য সরকার। নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে সোমবার থেকে পথে নেমেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি। বলেছেন, এ রাজ্যে এনআরসি, সিএবি করতে হলে তাঁর মৃতদেহের উপর দিয়ে হাঁটতে হবে। মুখ্যমন্ত্রীর এই ঘোষনার পরই এক বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে রাজ্য সরকার। সেখানে বলা হয়েছে, আপাতত স্থগিত রাখা হচ্ছে ন্যাশনাল পপুলেশন রেজিস্ট্রার বা জাতীয় জনসংখ্যা নিবন্ধীকরণের কাজ। নবান্নের তরফে নির্দেশিকা জারি করে বলা হয়েছে, পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত এই বিষয়ে আর কোন পদক্ষেপ করতে পারবে না জেলা প্রসাশন ও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপকক্ষ।
সোমবার দুপুরে সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরোধিতায় কলকাতার রাস্তায় মিছিল করেছেন মমতা ব্যানার্জি। এরপর সন্ধ্যায় স্বরাষ্ট্র দফতরের জনগণনা সংক্রান্ত বিভাগ থেকে নির্দেশিকা জারি করে বলা হয়, রাজ্যে জনসংখ্যা নিবন্ধীকরণের কাজ স্থগিত রাখতে হবে। কলকাতা পুরসভার পাশাপাশি রাজ্যের প্রত্যেক জেলাশাসকের কাছে নির্দেশিকা পাঠানো হয়েছে। নির্দেশিকায় বলা হয়েছে, ন্যাশনাল পপুলেশন রেজিস্ট্রার তৈরি বা সংশোধনের কাজ আপাতত বন্ধ থাকবে। রাজ্য সরকারের পরবর্তী নির্দেশ না আসা পর্যন্ত এ ব্যাপারে কোনও পদক্ষেপ করা যাবে না।
প্রসঙ্গত, ন্যাশনাল পপুলেশন রেজিস্ট্রার ২০০৩ সালের নিয়ম অনুযায়ী, পাসপোর্ট বা ভিসা ছাড়া কোনও ব্যক্তি ভারতে এলে, তাঁকে নাগরিক হিসেবে ধরা হবে না। এর সঙ্গে নয়া নাগরিকত্ব আইন বা এনআরসির সংযোগ রয়েছে বলে অনেকেই অভিযোগ করেন। আগামী ১ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়ার কথা ছিল এনপিআর-এর কাজ। পাঁচ মাসের মধ্যে এই কাজ শেষ করতে হোত। এনআরসি বিরোধী আন্দোলনকারীরা প্রথম থেকে বলে আসছিলেন, এনপিআর হল এনআরসি-র প্রথম ধাপ। এর মাধ্যমে নাগরিকদের তথ্য জমা পড়বে কেন্দ্রের ডেটাবেসে। যার ভিত্তিতে পরে এনআরসি বাস্তবায়িত করবে কেন্দ্র। তাই এনআরসি রুখতে হলে আগে এনপিআর এর কাজ বন্ধ করতে হবে।

 

Comments
Loading...