ডিগ্রি ছাড়াই অস্ত্রোপচার করলেন নার্সিংহোমের মালিক! ভূমিষ্ঠ হয়েও মৃত সন্তান, কোমায় মা

হেরিটেজ নার্সিংহোম অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ১০ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণ স্বাস্থ্য কমিশনের

নার্সিংহোমের মধ্যে ডিগ্রি ছাড়াই অস্ত্রোপচার করলেন মালিক। ভূমিষ্ঠ হয়েও বেঁচে থাকল না সদ্যজাত। কোমায় চলে গেলেন মা। শহর কলকাতার বুকেই ঘটল এই ঘটনা।  রিপন স্ট্রিটের হেরিটেজ নার্সিংহোম অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারকে ১০ লক্ষ টাকা ক্ষতিপূরণের ঘোষণা রাজ্যের স্বাস্থ্য কমিশনের।

আমহার্স্ট স্ট্রিটের বাসিন্দা সন্তানসম্ভবা সুলতানা খাতুন ভর্তি হন রিপন স্ট্রিটের একটি নার্সিংহোমে। সুলতানার সিজার সার্জারি করে সন্তান প্রসবের প্রয়োজন ছিল। নার্সিংহোমের মালিক নিজেই সিজার করে সন্তান ভূমিষ্ঠ করান। কিন্তু সিজারের পরই রক্তক্ষরণ হতে শুরু হয় সুলতানা খাতুনের। সেই সঙ্গে হয় প্রবল যন্ত্রনাও।

[আরও পড়ুন- তৃণমূল ছাড়লেন অভিনেতা হিরণ! এবার কি তবে বিজেপিতে, তুঙ্গে জল্পনা]

পরিবারের সদস্যরা তাঁকে ব্রড স্ট্রিটের একটি নার্সিংহোমে ভর্তি করান। কিন্তু সেখানে গিয়েও লাভ হয়নি। সুলতানাকে সল্টলেক আমরি হাসপাতালে স্থানান্তরিত করতে হয়। সল্টলেক আমরি হাসপাতাল সুলতানার চিকিৎসার বিল করে প্রায় ২০ লক্ষ টাকা। বাড়ি বিক্রি করে ১০ লক্ষ টাকা মেটাতে পারলেও বাকি টাকা মেটাতে পারেনি বাড়ির লোকেরা।

হেরিটেজ নার্সিংহোম অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারে ভুল চিকিৎসা হয়েছে এই অভিযোগে স্বাস্থ্য কমিশনের দ্বারস্থ হয় সুলতানার পরিবার। তদন্ত করার পর জানা যায়, ওই নার্সিংহোম অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারের মালিকের এমবিবিএস ডিগ্রি থাকলেও অস্ত্রোপচারের জন্য যে ডিগ্রি থাকার প্রয়োজন তা ছিলনা। সল্টলেক আমরি হসপিটালের বাকি ১০ লক্ষ টাকা হেরিটেজ নার্সিংহোম অ্যান্ড ডায়াগনস্টিক সেন্টারকেই মেটানোর নির্দেশ দেয় স্বাস্থ্য কমিশন।

বেসরকারি হসপিটালে রেখে সুলতানার চিকিৎসা করানো খরচ সাপেক্ষ। সেইকারনে এসএসকেএমে হাসপাতালে ভর্তি রয়েছেন সুলতানা। কোমায় রয়েছেন তিনি।

Comments
Loading...