সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশের পর বুধবার ভোরে কাজে যোগ দিলেন সিবিআই প্রধান অলোক ভার্মা। কেন্দ্র তাঁর ইচ্ছের বিরুদ্ধে ছুটিতে পাঠানোয়, ২০১৮ সালের ২৪ শে অক্টোবরের পর থেকে দিল্লির অফিসে পা রাখেননি অলোক। তাঁর জায়গায় সিবিআই মুখ্য আধিকারিকের ভার দেওয়া হয় এম নাগেশ্বর রাওকে। প্রায় তিনমাস পর নিজের অফিসে ফিরলেন সিবিআই-এর ডিরেক্টর।
সিবিআই-এর প্রধান কার্যালয়ের ১০ তলায় নিজের অফিসে বুধবার সকাল সকালই পৌঁছে যান আলোক ভার্মা। পদ ফিরে পেলেও সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশ মোতাবেক কোনও নীতিগত সিদ্ধান্ত এখনই নিতে পারবেন না তিনি। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি এবং বিরোধী নেতা নিয়ে গঠিত কমিটির চূড়ান্ত সিদ্ধান্তের পরই নির্ধারণ হবে অলোক ভার্মার অবস্থান। সে জন্য অলোক ভার্মাকে অপেক্ষা করতে হবে আরও এক সপ্তাহ।
প্রসঙ্গত, সিবিআই প্রধান অলোক ভার্মা এবং ডেপুটি ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানা নজিরবিহীনভাবে একে অন্যের বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ এনেছিলেন। মাংস ব্যবসায়ী মইন কুরেশি মামলায় রাকেশ আস্থানা ঘুষ নিয়েছিলেন, এই অভিযোগে খোদ ডেপুটি ডিরেক্টর আস্থানার বিরুদ্ধে মামলা পর্যন্ত চালু করেছিল সিবিআই। কেন্দ্রকে চিঠি লিখে আস্থানা পালটা অভিযোগ করেন, তিনি নন, ঘুষ নিয়েছেন খোদ সিবিআই ডিরেক্টর। ঝামেলা এমন জায়গায় পৌঁছোয় যে, কেন্দ্র দু’জনকেই ছুটিতে পাঠিয়ে দেয় এবং নাগেশ্বর রাওকে অন্তর্বর্তীকালীন ডিরেক্টর নিয়োগ করে। সেই সঙ্গে অলোক ভার্মা এবং রাকেশ আস্থানা দ’জনের বিরুদ্ধেই সেন্ট্রাল ভিজিলেন্স কমিশন (সিভিসি) তদন্ত শুরু করে।
অপসারণের বিরোধিতা করে সুপ্রিম কোর্টে কেন্দ্রের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করেন ভার্মা। আদালতে ভার্মা জানান, সম্পূর্ণ বেআইনিভাবে কেন্দ্র তাঁকে অপসারিত করেছে। সেই মামলায় মঙ্গলবার আদালত নির্দেশ দেয়, ভার্মাকে ফের সিবিআই প্রধানের পদে বসাতে হবে।

You may also like