রাজ্যের ৪২ টি লোকসভা আসনেই জয়লাভের লক্ষ্যমাত্রা নিয়েছেন তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই লক্ষ্য সামনে রেখে শুক্রবার কার্শিয়াঙের সভা থেকে দার্জিলিংয়ের মানুষের কাছে ভোট চাইলেন মুখ্যমন্ত্রী। গত পাঁচ বছরে বিজেপির সাংসদ পাহাড়ের কোনও উন্নয়নই করেননি বলে অভিযোগ করে মমতা বলেন, দার্জিলিংয়েরই প্রাক্তন বিধায়ক অমর সিংহ রাইকে এবারের লোকসভা নির্বাচনে প্রার্থী করেছে তাঁর দল। দার্জিলিংর মানুষের পাশে সবসময় থাকতে পারবেন ‘ভূমিপুত্র’ অমর সিংহ রাই।
এ দিন বিদায়ী বিজেপি সাংসদ এস এস আলুওয়ালিয়াকে নাম না করে আক্রমণ করে মমতা বলেন, ভোট ফুরিয়ে যাওয়ার পর দিল্লি থেকে আর দার্জিলিং মুখো হননি তিনি। পাশাপাশি পাহাড়ের অশান্তির পেছনে দিল্লির মদত রয়েছে বলে অভিযোগ করেন তৃণমূল নেত্রী। তিনি বলেন, দিল্লি থেকে পাহাড়ে আগুন লাগানোর চেষ্টা করা হয়।
২০১৪ সালে বিমল গুরুংয়ের গোর্খা জনমুক্তি মোর্চার সমর্থনে দার্জিলিং লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ হন এস এস আলুওয়ালিয়া। যদিও, এবারে আর তাঁকে প্রার্থী করেনি বিজেপি। অন্যদিকে, বিভিন্ন মামলায় গা ঢাকা দিয়েছেন বিমল গুরুং, আর মোর্চারই কয়েকজন এখন তৃণমূলকে সমর্থন করছেন। সেই সূত্র ধরে বিজেপি ও গুরুংকে খোঁচা দিয়ে মমতার কটাক্ষ, বিমল গুরুংয়ের সাংসদ কোথায় গেলেন? পৃথক গোর্খাল্যান্ডের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল যে বিজেপি, তারা পাহাড়ের কোনও প্রতিশ্রুতিই রক্ষা করেনি বলে কটাক্ষ করেন তৃণমূল নেত্রী। তিনি বলেন, একটা কেন্দ্রীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের জন্য আবেদন করা হয়েছিল, সেটাও করতে পারেনি বিজেপি।
দিল্লির নেতা হেলিকপ্টারে এসে আবার উড়ে যাবেন বলে কটাক্ষ করে মমতা বলেন, আগামী দিনে দার্জিলিংয়ের সার্বিক উন্নয়নের জন্য তৃণমূল মনোনীত প্রার্থী তথা এখানকার মানুষ অমর সিংহ রাইকেই যেন ভোট দিন পাহাড়বাসী।