রাজীব কুমার বনাম সিবিআই মামলার পরবর্তী শুনানি আগামী ২২ শে এপ্রিল। রাজীব কুমারকে হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা দরকার বলে সিবিআই যে আবেদন করেছিল, এদিন তারই শুনানি হওয়ার কথা ছিল সুপ্রিম কোর্টে। এদিন রাজীব কুমারের পক্ষে আইনজীবী ইন্দিরা জয় সিংহ আদালতে উল্লেখ করেন, শিলংয়ে তাঁকে যে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়েছে তার ভিডিও রেকর্ডিং পেশ করুক সিবিআই।
রাজীব কুমারের এই আবেদনের জবাব দিতে সিবিআই এদিন আদালতে সময় চায়। আদালত সিবিআইকে সাত দিন সময় দিয়েছে। জানা গিয়েছে, পুরো বিষয়টি নিয়ে একেবারে আগামী ২২ শে এপ্রিল শুনানি হবে।
গত সোমবার কলকাতার প্রাক্তন পুলিশ কমিশনার রাজীব কুমারকে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করার জন্য সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেছিল সিবিআই। পাশাপাশি, কিছু তথ্যও সিবিআই পেশ করেছিল আদালতে। সেই তথ্যকে ‘খুবই গুরুত্বপূর্ণ’ বলে মন্তব্য করে আদালত। এবং আবেদনের প্রেক্ষিতে প্রধান বিচারপতি রঞ্জন গগৈ সাত দিনের মধ্যে রাজীব কুমারকে হলফনামা জমা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন। গত শনিবার সেই হলফনামা দাখিল করেন রাজীব কুমার।
সূত্রের খবর, রাজীব কুমার তাঁর হলফনামায় জানান, সিবিআইয়ের তৎকালীন অন্তর্বর্তীকালীন প্রধান নাগেশ্বর রাওয়ের স্ত্রী ও মেয়ের যোগ রয়েছে, এমন একটি সংস্থার বিরুদ্ধে কলকাতা পুলিশ তদন্ত শুরু করায় তাঁর বিরুদ্ধে সারদা মামলায় অসহযোগিতার অভিযোগ আনে সিবিআই। রাজীব কুমারের দাবি, সিবিআই তদন্ত শুরু করার প্রায় তিন বছর পর, ২০১৭ সাল নাগাদ কেন হঠাৎ করে সিবিআইয়ের মনে হল তিনি সারদা তদন্তে সহযোগিতা করছেন না?
পাশাপাশি, তাঁর বিরুদ্ধে কুনাল ঘোষের করা যে অভিযোগকে হাতিয়ার করে সিবিআই অভিযোগ আনছে, সে প্রসঙ্গে রাজীব কুমারের জবাব, ৬-৭ বার জিজ্ঞাসাবাদের পর কুনাল ঘোষকে গ্রেফতার করা হয়েছিল। এমনকী সিবিআইও তাঁর জামিনের বিরোধিতা করে। এখন একজন অভিযুক্তের কথার ভিত্তিকে কীভাবে মামলার সাক্ষীকে গ্রেফতার করা যায়?

You may also like