রাজ্যের সব ভোটকেন্দ্রকে ‘অতি স্পর্শকাতর’ ঘোষণার দাবি তুলে সম্প্রতি দিল্লিতে নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছে বিজেপি। এভাবে বাংলার মানুষকে অপমান করছে বিজেপি, অভিযোগ করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

এবার এই ‘অপমানের’ প্রতিবাদে রাস্তায় নামল তৃণমূল কংগ্রেস। রানি রাসমণি অ্যাভিনউয়ে শুক্রবার থেকে শুরু ৪৮ ঘন্টার অবস্থান বিক্ষোভ।
পশ্চিমবঙ্গের আইন-শৃঙ্খলা নিয়ে প্রশ্ন তুলে লোকসভা ভোটে সব বুথকে অতি স্পর্শকাতর ঘোষণার দাবি করেছে বিজেপি নেতৃত্ব। অন্যদিকে, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অভিযোগ, কেন্দ্রীয় বাহিনীকে ব্যবহার করে বিজেপি আসলে নিজেদের নেতাদের ‘আড়াল’ করার চেষ্টা করছে। বুধবার কালীঘাটে তৃণমূল নেত্রীর কটাক্ষ, ভোটের মুখে ভয় পেয়ে কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছে বিজেপি। মুখ্যমন্ত্রীর দাবি, এ রাজ্যের পঞ্চায়েত নির্বাচনে যতজন রাজনৈতিক কর্মী খুন হয়েছিলেন, তার অধিকাংশই তৃণমূলের। আর প্রায় প্রত্যেকটি ক্ষেত্রেই খুনের অভিযোগও বিজেপির বিরুদ্ধেই।
তৃণমূলকে রাজনৈতিকভাবে মোকাবিলা করতে না পেরে একদিকে অপপ্রচার, আর অন্যদিকে সিবিআই, ইডি, আয়কর দপ্তর-সহ কেন্দ্রীয় এজেন্সি দিয়ে রাজ্যের শাসক দলকে হেনস্থা করার কৌশল নিয়েছে বিজেপি, অভিযোগ করেছিল তৃণমূল নেতৃত্ব।
এবার এই অভিযোগকে সামনে রেখেই শুক্রবার পথে নামল জোড়াফুল শিবির। তৃণমূলের মহিলা শাখার সভানেত্রী তথা মন্ত্রী চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যের কথায়, ভোটে নিজেদের বিপর্যয়ের আঁচ পেয়ে বিজেপি ফের কুৎসার আশ্রয় নিয়েছে। দাবি করছে রাজ্যের সব বুথ নাকি অতি স্পর্শকাতর! তাদের এই দাবি শুধু কোনও দলকে নয়, রাজ্যবাসীকেই অপমানের নামান্তর বলে মনে করেন তিনি। এর বিরুদ্ধে জনমত গড়ে তুলতেই এই ধর্নার আয়োজন করা হয়েছে।

You may also like