রাকেশ আস্থানার বিরুদ্ধে রয়েছে জোরালো তথ্য প্রমাণ, আদালতে বললেন অপসারিত সিবিআই প্রধান অলোক ভার্মা

অর্থ তছরুপের মামলায় সতীশ সানা নামে এক অভিযুক্তের থেকে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগে সিবিআই-এর অন্যতন শীর্ষ পদাধিকারী রাকেশ আস্থানার বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করেছিল সিবিআই। তৎকালীন সিবিআই প্রধান অলোক ভর্মার নির্দেশে আস্থানার বিরুদ্ধে তদন্তও শুরু হয়। এর বিরুদ্ধে দিল্লি হাইকোর্টে মামলা করেন রাকেশ আস্থানা। শুক্রবার সেই মামলার শুনানিতে এফিডেভিট করে নিজের বক্তব্য জানিয়েছেন অপসারিত সিবিআই প্রধান অলোক ভর্মা।
আস্থানার আবেদন যাতে কোর্ট না শোনে তার দাবি করে ভার্মা কোর্টকে এদিন জানিয়েছেন, ঘুষ কাণ্ডে রাকেশ আস্থানার বিরুদ্ধে জোরালো তথ্য প্রমাণ আছে। তাই এই তদন্ত বন্ধ করা উচিত না। ভার্মা বলেছেন, সিবিআই নিয়ে আম-জনতার মনে যে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে, সেই বিশ্বাসযোগ্যতা ফিরে পেতে এই তদন্ত শেষ করা অত্যন্ত প্রয়োজন।
এদিন কোর্টে অলোক ভার্মার তরফে আরও বলা হয়, আস্থানার বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করতে কেন্দ্রের অনুমতির কোনও প্রয়োজন ছিল না। তাই সেই অনুমতি নেওয়াও হয়নি এফআইআর দায়েরের আগে। কোর্টে নিজের আবেদনে অলোক ভার্মার বিরুদ্ধে প্রতিহিংসাপরায়ণতা ও ঘুষ নেওয়ার পালটা যে অভিযোগ রাকেশ আস্থানার তরফে করা হয়েছিল, তাকেও ভিত্তিহীন এবং মনগড়া বলে জানিয়েছেন ভার্মা। এদিন অলোক ভার্মা আরও জানান, প্রাথমিক তদন্তে রাকেশ আস্থানার বিরুদ্ধে প্রমাণ পাওয়ার পরেই তাঁর নামে এফআইআর করা হয়েছিল।
উল্লেখ্য, হাই-প্রফাইল মাংস ব্যবসায়ী মইন কুরেশি অর্থ তছরুপ ও হাওয়ালা মামলায় অলোক ভার্মা ও রাকেশ আস্থানা দুজনেই পরস্পরের বিরুদ্ধে ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ এনেছেন। সিবিআই-এর একেবারে শীর্ষস্তরে এই অভিযোগ পালটা অভিযোগকে ঘিরে শুরু হয় নজিরবিহীন সংঘাত। সিবিআই-এর বিশ্বাসযোগ্যতা রক্ষায় পরে বাধ্য হয়ে হস্তক্ষেপ করতে হয় কেন্দ্রকে। ছুটিতে পাঠিয়ে দেওয়া হয় ভার্মা ও আস্থানাকে। এরপর কেন্দ্রের এই পদক্ষেপের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেন অলোক ভার্মা। বলেন, তাঁকে অন্যায়ভাবে সরানো হয়েছে। অন্যদিকে, তাঁর বিরুদ্ধে সিবিআই তদন্তের দাবিতে দিল্লি হাইকোর্টে মামলা করেন রাকেশ আস্থানা। বর্তমানে দুটি আবেদনই আদালতে বিচারাধীন।

Comments
Loading...