অমিত শাহ: সৌরভ বিজেপিতে যোগ দিতে চাইলে স্বাগত, তবে তাঁর বিসিসিআই সভাপতি হওয়া নিয়ে কোনও ডিল হয়নি

সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় বিজেপিতে যোগ দিতে চাইলে তাঁকে স্বাগত। সোমবার বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট পদে মনোনয়ন জমা দেওয়া নিয়ে মুম্বইয়ে যখন মহানাটকের শেষ অঙ্ক চলছে, ঠিক সেই সময় রাজধানী দিল্লিতে বসে একটি নিউজ চ্যানেলকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে তাৎপর্যপূর্ণ মন্তব্য অমিত শাহের।
বিসিসিআই অন্দরের সমস্ত হিসেব উলটে দিয়ে শ্রীনিবাসন ঘনিষ্ঠ ব্রিজেশ প্যাটেলকে সরিয়ে যেভাবে দেশের ক্রিকেট নিয়ামক সংস্থার সর্বোচ্চ পদে সৌরভ বসতে চলেছেন, তাতে অনেকেই তাঁর সঙ্গে বিজেপির সম্পর্কে নয়া সমীকরণের গন্ধ পাচ্ছেন। জল্পনা জোরালো হতে শুরু করেছে, তাহলে কি বাংলায় ২০২১ বিধানসভা নির্বাচনে সৌরভ বিজেপির মুখ হতে পারেন? সেই শর্তেই কি বিজেপি শীর্ষ নেতৃত্ব তাঁকে বিসিসিআইয়ের সর্বোচ্চ পদে বসতে সমর্থন করল? সেই আলোচনাই এবার নয়া গতি পেল কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী তথা বিজেপি সভাপতির এই মন্তব্যে। যদিও সৌরভ নিজে এমন কোনও সম্ভাবনার কথা উড়িয়ে দিয়েছেন।
টিভি টুডে গ্রুপের নিউজ ডিরেক্টর রাহুল কানওয়ালকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে অমিত শাহও মহারাজের সঙ্গে বিজেপির কোনও শর্তসাপেক্ষ আলোচনার কথা অস্বীকার করেছেন। তবে একইসঙ্গে জানিয়েছেন, সৌরভ বিজেপিতে আসতে চাইলে তাঁকে স্বাগত। পাশাপাশি জানিয়ে দিয়েছেন, সৌরভ তাঁর সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলেন। অমিত শাহের মতে, সৌরভ আমার সঙ্গে দেখা করতে আসতেই পারেন। আমি নিজে দীর্ঘদিন ক্রিকেট প্রশাসনের সঙ্গে যুক্ত ছিলাম। তাই সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় আমার সঙ্গে দেখা করতে চাইলে আমার কোনও সমস্যা নেই।
তবে সৌরভকে বিজেপিতে স্বাগত জানালেও, বর্তমানে বাংলায় বিধানসভা নির্বাচন জিততে তাঁদের কোনও মুখের প্রয়োজন হবে না বলেও সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন অমিত শাহ। তিনি বলেন, লোকসভায় বাংলায় ১৮ টি আসন পেয়েছে বিজেপি। সেজন্য কোনও মুখের প্রয়োজন হয়নি।
এদিকে রাজ্য বিজেপির অন্দরে গুঞ্জন, বিজেপিতে যোগ দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দিয়েছেন সৌরভ। সৌরভের বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট পদের মেয়াদ প্রায় ১০ মাস। তারপর তাঁকে চলে যেতে হবে বাধ্যতামূলক তিন বছরের কুলিং অফ পিরিয়ডে। বঙ্গ বিজেপির একাংশের চোখে আলোর ঝিলিক সেই সময় নিয়েই। তাঁদের যুক্তি, সেই সময় বাংলা দখলের লড়াই চলে যাবে কার্যত শেষ ল্যাপে। ভোটের ঢাকে কাঠি পড়ার পর ক্রিকেট প্রশাসন থেকে বেরিয়ে আসা সৌরভ গেরুয়া শিবিরে যোগ দিতে পারেন।
প্রেসিডেন্ট পদে মনোনয়ন জমা দিয়ে সোমবার মুম্বইয়ে সৌরভ মুখোমুখি হয়েছিলেন সাংবাদিকদের। তাঁকে প্রশ্ন করা হয়েছিল, তিনি কি রাজনীতিতে প্রবেশের ব্যাপারে ভাবছেন? সৌরভ উত্তর দেন, আপাতত ক্রিকেট প্রশাসনই তাঁর ধ্যান-জ্ঞান। তারপরেই তাৎপর্যপূর্ণভাবে প্রিন্স অফ ক্যালকাটা যোগ করেন, একসঙ্গে সব কাজ করলে, সবই গোলমাল হওয়ার সম্ভাবনা। তাই তিনি এক এক করে কাজ করার পক্ষপাতী। প্রাক্তন ভারত অধিনায়কের এই মন্তব্যকেই অত্যন্ত ইঙ্গিতবহ বলেই মনে করছে বঙ্গ বিজেপির একাংশ।

Comments
Loading...