২ বর্ধমান, নদিয়া, বীরভূমের ৮ কেন্দ্র মিলে সবচেয়ে বেশি সম্পত্তি মমতাজ সংঘমিতার, দুইয়ে অধীর, তিনে মুনমুন সেন

শুরু হয়ে গেল সাধারণ নির্বাচন। গত ৮ ই এপ্রিল thebengalstory.com-এ প্রকাশিত হয়েছিল, উত্তরবঙ্গের ৮ টি এবং দক্ষিণবঙ্গের মুর্শিদাবাদ ও জঙ্গিপুর আসনের প্রার্থীদের সম্পত্তির খতিয়ান। এবার ৯ ই এপ্রিল পর্যন্ত রাজ্যের যে ৮ টি লোকসভা কেন্দ্রে মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন তৃণমূল, কংগ্রেস, বিজেপি ও বাম প্রার্থীরা, তাঁদের সম্পত্তির পরিমাণ কত, আসুন দেখে নিই। ৯ ই এপ্রিল পর্যন্ত মনোনয়ন জমা দেওয়া প্রার্থীদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি সম্পত্তি বর্ধমান-দুর্গাপুর কেন্দ্রে তৃণমূল প্রার্থী মমতাজ সংঘমিতার এবং সবচেয়ে কম সম্পত্তির মালিক বহরমপুরের বিজেপি প্রার্থী কৃষ্ণ জোয়ারদার।
প্রথম দু’দফায় যে কেন্দ্রগুলিতে ভোট রয়েছে, সেগুলিকে বাদ দিয়ে কৃষ্ণনগর, রানাঘাট, বীরভূম, বোলপুর, আসানসোল, বহরমপুর, বর্ধমান-দুর্গাপুর এবং বর্ধমান-পূর্ব, এই ৮ টি লোকসভা কেন্দ্রে ৯ ই এপ্রিল পর্যন্ত মনোনয়ন পত্র জমা দিয়েছেন প্রার্থীরা। নির্বাচন কমিশনে জমা দেওয়া হলফনামায় সম্পত্তির যে খতিয়ান পেশ করেছেন সংশ্লিষ্ট দলের প্রার্থীরা, তাতে দেখা যাচ্ছে, সবচেয়ে বড়লোক প্রার্থী বর্ধমান-দুর্গাপুর কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী মমতাজ সংঘমিতা। স্থাবর-অস্থাবর মিলিয়ে তাঁর মোট সম্পত্তির পরিমাণ ১৩ কোটি ৬৬ লক্ষ ৮০ হাজার ৯৯৩ টাকা। সম্পত্তির বিচারে তাঁর পরেই রয়েছেন বহরমপুর লোকসভা কেন্দ্রের কংগ্রেস প্রার্থী অধীর রঞ্জন চৌধুরী। কংগ্রেস প্রার্থী ও তাঁর পরিবারের মোট সম্পত্তির মূল্য ১০ কোটি ১৩ লক্ষ ১৩ হাজার ৪৩৬ টাকা। তৃতীয় স্থানে রয়েছেন আসানসোল লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী মুনমুন সেন। কমিশনে জমা দেওয়া হলফনামা থেকে দেখা যাচ্ছে, স্বামী ও তাঁর সম্পত্তি মিলিয়ে প্রায় ১০ কোটি ১০ লক্ষ টাকার রয়েছে তৃণমূলের এই তারকা প্রার্থীর।
হলফনামায় উল্লিখিত সম্পত্তির নিরিখে এই ৮ টি লোকসভা কেন্দ্রে সবচেয়ে কম সম্পত্তির মালিক বহরমপুরের বিজেপি প্রার্থী কৃষ্ণ জোয়ারদার। তাঁর কোনও স্থাবর সম্পত্তি নেই। অস্থাবর সম্পত্তির পরিমাণ মাত্র ৬ হাজার ২০০ টাকা।
কৃষ্ণনগর লোকসভা কেন্দ্রের চার দলের প্রার্থীর মধ্যে সবচেয়ে বেশি সম্পত্তির মালিক তৃণমূলের মহুয়া মৈত্র। স্থাবর-অস্থাবর মিলিয়ে তাঁর সম্পত্তির মূল্য ২ কোটি ৬৪ লক্ষ ৯৫ হাজার ২৫০ টাকা। ওই কেন্দ্রে সবচেয়ে কম সম্পদ রয়েছে কংগ্রেসের ইন্তাজ আলি শাহের। তাঁর সম্পত্তির আনুমানিক মূল্য ১ কোটি টাকা।
রানাঘাট লোকসভা কেন্দ্রে সবচেয়ে বড়লোক প্রার্থীর নাম বিজেপির জগন্নাথ সরকার। তাঁর মোট সম্পত্তির আনুমানিক মূল্য ১ কোটি ৭৭ লক্ষ টাকা। সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রে সবচেয়ে কম সম্পত্তি রয়েছে কংগ্রেস প্রার্থী মিনতি বিশ্বাসের। তাঁর সম্পত্তির আনুমানিক মূল্য ৩২ লক্ষ টাকা।
বীরভূম কেন্দ্রের সবচেয়ে বেশি সম্পত্তির অধিকারী শতাব্দী রায়। তৃণমূল প্রার্থী শতাব্দী রায়ের স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তি মিলিয়ে রয়েছে প্রায় ৪ কোটি ৮৬ লক্ষ টাকা। ওই কেন্দ্রে সবচেয়ে কম সম্পত্তির মালিক বিজেপির দুধকুমার মণ্ডল। ৬৫ লক্ষ টাকার মালিক তিনি।
বোলপুর কেন্দ্রে সবচেয়ে বেশি সম্পদ রয়েছে বিজেপি প্রার্থী রামপ্রসাদ দাসের। বিজেপি প্রার্থীর সম্পত্তির পরিমাণ ১ কোটি ১৫ লক্ষ টাকা। ওই কেন্দ্রে সবচেয়ে কম সম্পত্তি তৃণমূলের অসিত মালের। ১৩ লক্ষ ১০ হাজার টাকার মালিক এই তৃণমূল প্রার্থী।
আসানসোল লোকসভা কেন্দ্রের সবচেয়ে বিত্তবান প্রার্থীর নাম মুনমুন সেন। তৃণমূলের এবারের প্রার্থীর সব মিলিয়ে রয়েছে ১০ কোটি ৯ লক্ষ ৭ হাজার টাকা। সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রে সবচেয়ে কম সম্পত্তি সিপিএমের প্রার্থী গৌরাঙ্গ চট্টোপাধ্যায়ের। সিপিএম প্রার্থীর সম্পদের পরিমাণ ১৬ লক্ষ ১৮ হাজার ৪০০ টাকা।
বহরমপুর লোকসভা কেন্দ্রে সবচেয়ে বড়লোক প্রার্থীর নাম অধীর রঞ্জন চৌধুরী। এই কংগ্রেস প্রার্থীর সম্পত্তির পরিমাণ প্রায় ১০ কোটি ১৩ লক্ষ টাকা। সবচেয়ে কম সম্পত্তি রয়েছে বিজেপির কৃষ্ণ জোয়ারদারের।
পূর্ব বর্ধমান কেন্দ্রের সবচেয়ে বড়লোক প্রার্থীর নাম বিজেপির পরেশ চন্দ্র দাস। তাঁর স্থাবর-অস্থাবর মিলিয়ে রয়েছে প্রায় আড়াই কোটি টাকার সম্পত্তি। সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রে সবচেয়ে কম সম্পত্তির মালিক কংগ্রেসের সিদ্ধার্থ মজুমদার। ২৪ লক্ষ ৩৭ হাজার ৬৬৯ টাকার সম্পত্তি রয়েছে তাঁর।

Comments
Loading...