স্বরা ভাস্করের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলায় সম্মতি দিলেন না অ্যাটর্নি জেনারেল কে কে বেনুগোপাল

বলিউড তারকা স্বরা ভাস্করের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার প্রক্রিয়া শুরুতে সম্মতি দিলেন না অ্যাটর্নি জেনারেল কে কে বেনুগোপাল। সাফ জানালেন, স্বরার মন্তব্যে আদালত অবমাননা হয়েছে বলে তিনি মনে করেন না। সুপ্রিম কোর্টে অবমাননার মামলা করতে গেলে অ্যাটর্নি জেনারেলের অনুমতি নেওয়া বাধ্যতামূলক।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে এক আলোচনা সভায় সুপ্রিম কোর্টের রাম মন্দির রায় নিয়ে মন্তব্য করেছিলেন স্বরা। সেই মন্তব্যের প্রেক্ষিতে আইনজীবী অনুজ সাক্সেনা ১৯৭১ সালের আদালত অবমাননা আইনের ১৫ নম্বর ধারা অনুযায়ী স্বরার বিরুদ্ধে ফৌজদারি মামলা করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু অ্যাটর্নি জেনারেল সম্মতি না দেওয়ায় মামলা খারিজ হয়ে গেল।

গত শনিবার আদালত অবমাননা মামলার ফৌজদারি আইনি প্রক্রিয়া শুরু করার অনুমতি দিতে অসম্মত হন অ্যাটর্নি জেনারেল কে কে বেনুগোপাল। তার আগের দিন আদালতে এই মামলার শুনানি শুরুর আবেদন জানিয়েছিলেন আইনজীবী অনুজ সাক্সেনা। বেনুগোপাল সাফ জানিয়ে দেন, স্বরার মন্তব্যে আদালত অবমাননা হয়েছে বলে তিনি মনে করেন না।

কোনও ব্যাক্তির বিরুদ্ধে মানহানি মামলার শুনানি শুরুর আগে অ্যাটর্নি জেনারেলের অনুমতি নিতে হয়। সব কিছু খতিয়ে দেখার পর ওই আইনজীবীর চাওয়া অনুমোদন খারিজ করে দেন অ্যাটর্নি জেনারেল কে কে বেনুগোপাল।

২০১৯ সালের ৯ নভেম্বর সুপ্রিম কোর্টের রায়ে অযোধ্যার বিতর্কিত জমি রাম মন্দির ট্রাস্টের হাতে তুলে দেওয়ার নির্দেশ দেয় সুপ্রিম কোর্ট। সেই সঙ্গে উত্তরপ্রদেশ সরকারকে বলা হয় অযোধ্যার অন্য এক স্থানে মসজিদ কমিটিকে জমি তুলে দিতে হবে। এই মামলার বিষয় নিয়ে গত ১ ফেব্রুয়ারি একটি বিতর্ক সভায় স্বরার মন্তব্যের প্রেক্ষিতে তাঁর বিরুদ্ধে আদালত অবমাননার মামলা করেন আইনজীবী সাক্সেনা। ওই আইনজীবী অভিযোগ করেন, বিতর্ক সভায় স্বরা ভাস্কর বক্তব্য রাখতে গিয়ে বলেছিলেন, আমরা এখন এমন একটা অবস্থায় রয়েছি যেখানে আমাদের আদালতও নিশ্চিত নয় তারা সংবিধানে বিশ্বাস করে কি না। আমরা এমন এক দেশে বাস করি, যেখানে আমাদের দেশের সুপ্রিম কোর্ট এক রায়ে বলেছে, বাবরি মসজিদ ভাঙাটা বেআইনি, আবার একই রায়ে যারা মসজিদটা গুঁড়িয়ে দিয়েছে, তাদেরই পুরস্কৃত করেছে। এই বক্তব্যে স্বরা আদালত অবমাননা করেছেন বলে অভিযোগ করেন ওই আইনজীবী।

অ্যাটর্নি জেনারেল জানিয়েছেন, আমার মনে হয় না এটা এমন কোনও ব্যাপার যেখানে আদালতের সম্মানহানি বা তার কর্তৃত্বকে খাটো করার মতো অপরাধ ঘটেছে। তাই স্বরা ভাস্করের বিরুদ্ধে আদালত অবমাননা প্রক্রিয়া শুরুতে আমার সম্মতি নেই।

প্রশান্ত ভূষণের মামলার প্রেক্ষিতে আদালত অবমাননার মামলা নিয়ে যখন উত্তাল দেশ, তখন অ্যাটর্নি জেনারেলের এই সিদ্ধান্তকে অত্যন্ত তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছেন পর্যবেক্ষকরা।

Comments
Loading...