করোনা: রাজ্যে কম পরীক্ষার অভিযোগ ওড়ালেন মুখ্যমন্ত্রী, বিরোধী থেকে রাজ্যপালকে বার্তা, ‘এখন রাজনীতি করার সময় নয়’

রাজ্যে কম করোনা পরীক্ষা থেকে লকডাউন কার্যকর করাতে আধা সেনা নামানোর দাবি, বুধবার নবান্ন থেকে সমস্ত অভিযোগের জবাব দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি।

পাশাপাশি এদিনই মুখ্যসচিব জানিয়েছেন, রাজ্যে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ১৩২। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে ১৭ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। তবে রাজ্যে বাড়েনি মৃতের সংখ্যা। মুখ্যসচিব জানিয়েছেন, রাজ্যে এখনও পর্যন্ত ৭ জনের মৃত্যু হয়েছে। পাশাপাশি রাজীবা সিনহা জানান, বুধবারই অডিট কমিটির রিপোর্ট দেওয়ার কথা। সেক্ষেত্রে মৃতের সংখ্যায় অদল বদল হলে তা সংবাদমাধ্যমকে জানিয়ে দেওয়া হবে।

সম্প্রতি রাজ্য সরকার কম পরীক্ষা করাচ্ছে, এই অভিযোগ উঠেছিল। এর প্রেক্ষিতে মমতা ব্যানার্জির দাবি, রাজ্যে এতদিন মাত্র ২ টি ল্যাবরেটরিতে করোনা পরীক্ষা করা যেত। সম্প্রতি সেই সংখ্যাটা বাড়িয়েছে আইসিএমআর। তারপরই রাজ্যে পরীক্ষা বেড়ে গিয়েছে। মুখ্যমন্ত্রীর দাবি, রাজ্যে পরিকাঠামো অনুযায়ী পরীক্ষা চলছে।

এদিনই ট্যুইট করে লকডাউন কার্যকর করতে আধা সেনা নামানোর দাবি করেছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। মমতা এদিন নাম না করে সেদিকেও কটাক্ষ ছুড়ে দেন। বলেন, অনেকেই লকডাউন মানাতে আধা সেনা চাইছেন। জানতে চাই কী জন্য? প্যারা মিলিটারিদের করোনা আক্রান্ত হওয়ার ভয় নেই বুঝি! ফোর্ট উইলিয়ামে ডাক্তারের আক্রান্ত হওয়ার কথা মনে করিয়ে বলেন মুখ্যমন্ত্রী। পাশাপাশি জানিয়ে দেন, বাংলার পুলিশ মানবিক মুখ রেখেই লকডাউন কার্যকর করবে।

বুধবারই সিপিএমের মুখপত্রে প্রকাশিত হয়েছে যে রাজ্যে করোনায় মৃত্যু হয়েছে ৩০ জনের। মুখ্যমন্ত্রী এদিন নাম না করে সেই কাগজেরও সমালোচনা করেন। মমতা ব্যানার্জি বলেন অপপ্রচার করবেন না। ৩০ জনের মৃত্যুর খবর কোথা থেকে পেলেন? কেন রাজনৈতিক স্বার্থসিদ্ধি করতে গিয়ে মিথ্যে আতঙ্ক ছড়াচ্ছেন, প্রশ্ন মুখ্যমন্ত্রীর।

দেশের বিভিন্ন জায়গায় স্থানীয়দের বিক্ষোভের মুখে পড়ছেন করোনা-যুদ্ধে একেবারে প্রথম সারির যোদ্ধা স্বাস্থ্যকর্মীরা। মুখ্যমন্ত্রী এদিন বলেন, আমার কাছে এরকম বেশ কয়েকটি ঘটনার খবর এসেছে। আজ যাঁদের গ্রামে ঢুকতে দেবেন না বলে বিক্ষোভ দেখাচ্ছেন, কাল আপনি অসুস্থ হলে দেখাশোনা করবেন সেই স্বাস্থ্যকর্মীরাই। রানাঘাটে এক স্বাস্থ্যকর্মীকে পাড়ায় ঢুকতে না দেওয়ার অভিযোগের প্রেক্ষিতে মমতা ব্যানার্জি বলেন, ওই স্বাস্থ্যকর্মীর জন্য সরকারি ফ্ল্যাটের ব্যবস্থা করা হয়েছে। মমতা বলেন, যাঁরা এসব করছেন তাদের জেলে ভরার আইন হাতে মজুত। কিন্তু আমরা চাই না সেই আইন ব্যবহার করতে। মমতার কথায়, মানবিকতার উন্মেষ হোক। মুখ্যমন্ত্রীর কথায় উঠে আসে জামুড়িয়ায় পুলিশ অফিসারের পা ভাঙার ঘটনাও।

এদিন মুখ্যমন্ত্রী জানান, মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে তাঁর কথা হয়েছে। মুম্বই, দিল্লি, সুরাত সহ বিভিন্ন জায়গায় আটকে পড়া বাংলার শ্রমিকদের জন্য অর্থ সাহায্যের ব্যবস্থা করছে রাজ্য সরকার। মমতা বলেন, মুম্বইয়ের খারের বেশকয়েকজন বাংলার শ্রমিকের সঙ্গে তাঁর নিজের কথা হয়েছে। তাঁরা মুখ্যমন্ত্রীকে জানিয়েছেন, মহারাষ্ট্র সরকার কেবলমাত্র চাল দিয়েছে। কিন্তু তাঁদের কাছে তরকারি কেনার টাকা নেই। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে এভাবে আটকে থাকা শ্রমিক কিংবা বাংলার বাসিন্দাদের সাহায্যেও চেষ্টা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন মমতা। পাশাপাশি এ রাজ্যে যেসব পরিযায়ী শ্রমিক আছেন, স্বাস্থ্য দফতর সব খতিয়ে দেখে আগামী ২-৩ দিনের মধ্যে তাঁদের ছেড়ে দেওয়া হবে। তখন তাঁরা বাড়ি ফিরে যেতে পারবেন বলে জানিয়েছেন মমতা।

মুখ্যমন্ত্রী বলেন সর্বোচ্চ ১৫% হাজিরা নিয়ে রাজ্যের চটগুলো খুলে দেওয়া হবে। চটের বস্তার যোগান চেয়ে পাঞ্জাব, তেলেঙ্গানার মুখ্যমন্ত্রীদের পাশাপাশি কেন্দ্রীয় টেক্সটাইল মন্ত্রীও তাঁকে ফোন করেছিলেন, জানান মমতা।

উচ্চমাধ্যমিকের বাকি ৩ টি পরীক্ষা হবে জুনে। একাদশ শ্রেণির পড়ুয়াদের আটকানো হবে না। কলেজের ক্ষেত্রে সিলেবাস এগিয়ে যাবে একটি সেমিস্টার। ফলে পড়ুয়াদের একমাত্র ফাইনাল সেমিস্টার দিলেই চলবে।

Comments
Loading...