এনপিআর তালিকা থেকে নাগরিকের বাবা-মায়ের জন্মস্থানের কলামটি বাদ দেওয়ার জন্য মোদী সরকারকে আবেদন করবেন বিহারের মুখ্যমন্ত্রী নীতিশ কুমার। মঙ্গলবার জেডিইউ-র তরফে এমনটাই জানানো হয়েছে সাংবাদিকদের। বলা হয়েছে, মুখ্যমন্ত্রী মনে করছেন, এনপিআর লিস্টকে কেন্দ্র করে আমজনতার মধ্যে ‘ধন্দ, সংশয় এবং তিক্ততা’ বাড়ছে।
সপ্তাহ খানেক আগেই দিল্লিতে সরকারি বৈঠকে কেন্দ্রের তরফে জানানো হয়েছিল, এনপিআর ফর্মে বাবা-মায়ের জন্মস্থান নিয়ে যে কলামটি রয়েছে তা পূরণ করা ‘বাধ্যতামূলক’ নয়। তা নিয়ে নীতিশ কুমারের প্রতিক্রিয়া, দেশের মানুষ আবার ভয়ের চোটে ওই অংশটি খালি রাখতে চাইছেন না। তাঁদের আশঙ্কা, এটাই পরে ভুলভাবে ব্যাখ্যা করা হতে পারে।
মঙ্গলবার পাটনায় দলীয় বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের মুখোমুখি হয়ে নীতিশ কুমার জানান, এই ব্যাপারে তিনি পরের এনডিএ বৈঠকে অবশ্যই আলোচনা করবেন। তাঁর কথায়, আমি নিজে মনে করি না, এনপিআর ফর্মে নতুন ফরম্যাটের কোনও প্রয়োজন আছে। যেখানে বাবা-মায়ের জন্মস্থান জানতে চাওয়া হয়েছে, সেই জায়গাটিও অপ্রয়োজনীয়। আমিও আমার মায়ের জন্মস্থান বলতে পারব না। তিনি বলেন, বেশিরভাগ মানুষই এই তথ্য দিতে অসমর্থ হবেন। তাই ২০১১ সালের এনপিআর ফর্মই যথাযথ বলে মনে করেন নীতিশ কুমার।
প্রসঙ্গত, এনপিআর ফর্মের সংশ্লিষ্ট অংশ নিয়ে ঠিক একই অভিযোগ করেছেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিও। তিনি ঘোষণা করেছেন, যতদিন না এই কলামটি কেন্দ্র সংশোধন করবে, ততদিন তাঁদের এনপিআর বিরোধী আন্দোলন চলবে।
পাশাপাশি সিএএ নিয়ে দেশজোড়া আন্দোলনের প্রেক্ষিতেও মুখ খোলেন নীতিশ কুমার। তিনি বলেন, সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন নিয়ে যে আন্দোলন চলছে, তা দেশের সংহতির পক্ষে বিপজ্জনক। এখন বিষয়টি যেহেতু সুপ্রিম কোর্টে উঠেছে, তাই আদালত কীভাবে এই বিষয়টি দেখছে তার জন্য অপেক্ষা করতে হবে আমাদের।

ধারাবাহিকভাবে পাশে থাকার জন্য The Bengal Story র পাঠকদের ধন্যবাদ। আমরা শুরু করেছি সাবস্ক্রিপশন অফার। নিয়মিত আমাদের সমস্ত খবর এসএমএস এবং ই-মেইল এর মাধ্যমে পাওয়ার জন্য দয়া করে সাবস্ক্রাইব করুন। আমরা যে ধরনের খবর করি, তা আরও ভালোভাবে করতে আপনাদের সাহায্য আমাদের উৎসাহিত করবে।

Login Support us

You may also like

India Coronavirus Death Toll