বিজেপির নবান্ন অভিযানে অস্ত্র হাতে ধৃত ব্যক্তি পাঞ্জাবের বাসিন্দা, পিস্তলের লাইসেন্স কাশ্মীরের! আমাদের নেতার দেহরক্ষীকে কেন গ্রেফতার, প্রশ্ন অর্জুনের

বিজেপির নবান্ন অভিযানকে কেন্দ্র করে বৃহস্পতিবার ধুন্ধুমার ঘটনা ঘটেছে কলকাতা, হাওড়ার বিভিন্ন এলাকায়। রাজ্য প্রশাসন ও পুলিশের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ এনেছেন বিজেপি নেতারা। কিন্তু রাজনৈতিক আন্দোলনে উপস্থিত এক ব্যক্তির কাছ থেকে হাওড়ায় পিস্তল উদ্ধার গোটা ঘটনায় নয়া মাত্রা যোগ করেছে। কী উদ্দেশ্যে ওই ব্যক্তি বন্দুক নিয়ে রাজনৈতিক কর্মসূচিতে অংশ নিয়েছিলেন তা নিয়ে রাজ্যজুড়ে প্রশ্ন উঠছিল এদিন দুপুর থেকেই। ধৃত ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদ করে সন্ধ্যায় উঠে এল চাঞ্চল্যকর তথ্য!

রাজ্য পুলিশ জানাচ্ছে, এদিন দুপুরে হাওড়ায় বিজেপির মিছিল থেকে পিস্তল সহ যে ব্যক্তিকে গ্রেফতার করা হয়েছে তাঁর নাম বলবিন্দর সিংহ। বয়স ৪৩ বছর। তাঁর বাড়ি পাঞ্জাবের ভাতিন্ডা জেলায়। ভাতিন্ডায় ক্যানাল কলোনী থানা এলাকার বাসিন্দা বলবিন্দর কী করতে এসেছিলেন হাওড়ায়? পুলিশ জানিয়েছে, জেরায় ধৃত বলেছেন, তিনি বারাকপুরের কাঁকিনাড়ার বিজেপি নেতা প্রিয়াংশু পাণ্ডের সূত্রে এদিনের কর্মসূচিতে গিয়েছিলেন। প্রিয়াংশু পাণ্ডে আবার বারাকপুরের বিজেপি সাংসদ অর্জুন সিংহের ঘনিষ্ঠ বলে পরিচিত।

পুলিশ জানিয়েছে, ধৃতের কাছে যে পিস্তলটি উদ্ধার হয়েছে, জম্মু-কাশ্মীরের রাজৌরি থেকে সেটির লাইসেন্স করা হয়েছে। পিস্তলটি কেনা হয়েছিল ২০১৮ সালে। ২০২১ সালের ৩ জানুয়ারি পর্যন্ত লাইসেন্স রিনিউ করা আছে। পুলিশের বক্তব্য, অস্ত্র আইন অনুসারে এই পিস্তল নিয়ে রাজৌরির বাইরে কোথাও গেলে তা বেআইনি বলে বিবেচিত হবে। সেই কারণেই পশ্চিমবঙ্গে এই বন্দুক নিয়ে ঘোরা বেআইনি এবং ভারতীয় দণ্ডবিধির ২৫/২৭ অস্ত্র আইনে বলবিন্দর সিংহের বিরুদ্ধে মামলা রুজু করা হয়েছে।

বলবিন্দর সিংহের গ্রেফতার এবং বিজেপি সাংসদ অর্জুন ঘনিষ্ঠ বারাকপুর কাঁকিনাড়ার প্রিয়াংশু পাণ্ডের সঙ্গে যোগাযোগ নিয়ে ইতিমধ্যে অভিযোগ তুলতে শুরু করেছে তৃণমূল। তৃণমূলের অভিযোগ, বাইরে থেকে লোক এনে গণ্ডগোল পাকানোর চেষ্টা করছে বিজেপি।

এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করা হলে অর্জুন সিংহ জানিয়েছেন, প্রিয়াংশু আমার পরিচিত, কিন্তু যাঁকে পুলিশ গ্রেফতার করেছে তিনি ওঁর ব্যক্তিগত দেহরক্ষী। কেউ ব্যক্তিগত নিরাপত্তার জন্য দেহরক্ষী মোতায়েন করতেই পারেন, এতে অন্যায়ের কিছু নেই।

 

Comments
Loading...