একেই কি বলে সর্ষের মধ্যে ভুত?
জটিল কেসের রহস্য উন্মোচন থেকে দুর্নীতির তদন্তে সিদ্ধহস্ত, কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা সিবিআই-এর অভ্যন্তরেই ঘোর অন্ধকার? সিবিআই-এর স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানার নামে গুরুতর দুর্নীতির অভিযোগ। পদাধিকারবলে এই মুহূর্তে সিবিআই-এর দু’নম্বর রাকেশ আস্থানার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগে কয়েক দিন আগেই তদন্ত শুরু করেছে সিবিআই। অন্যদিকে, তাঁর বিরুদ্ধে চক্রান্তের অভিযোগ এনে রাকেশ আস্থানা সরাসরি আঙুল তুলেছেন সিবিআই প্রধান অলোক ভার্মার বিরুদ্ধে। সংবাদমাধ্যম এনডি টিভি ইন্ডিয়ার রিপোর্ট অনুযায়ী, বর্তমান সিবিআই প্রধান অলোক ভর্মার নামে চক্রান্তের অভিযোগ এনে সরাসরি কেন্দ্রীয় সরকারকে চিঠি লিখেছেন আস্থানা। লিখেছেন, তিনি নন, ঘুষ নিয়েছেন খোদ সিবিআই প্রধান অলোক ভার্মাই। সিবিআই-এর এক এবং দুই নম্বর অফিসারের এই ঘুষ নেওয়ার অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগকে কেন্দ্র করে তোলপাড় কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থার অন্দরমহল।
ঘটনার সূত্রপাত একটি অর্থ তছরুপের মামলায়। যার তদন্ত করছে সিবিআই। মাংস রপ্তানি ব্যবসার সাথে যুক্ত মইন কুরেশি নামে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে বহু কোটি টাকার অর্থ তছরুপের অভিযোগের তদন্ত করছিল কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থা। এই অর্থ তছরুপের মামলায় সতীশ সানা নামের  হায়দারাবাদ নিবাসী আর এক ব্যবসায়ীর নামও উঠেছে। ঘটনা হল, জেরায় নাকি এই সতীশ সানা তদন্তকারী আধিকারিকদের জানিয়েছেন, এই ঘটনার তদন্তে চার্জশিটে যাতে তাঁর নাম না আসে তার জন্য তিনি রাকেশ আস্থানাকে ২ কোটি টাকা ঘুষ দিয়েছিলেন। ২০১৭ সালের ডিসেম্বর থেকে পরবর্তী দশ মাসে কিস্তিতে তিনি এই টাকা দেন আস্থানাকে। শীর্ষ সিবিআই আধিকারিককে ঘুষ দেওয়ার এই অভিযোগ জানাজানি হতেই সিবিআইয়ের অন্দরে চাঞ্চল্য তৈরি হয় গত কয়েক দিনে। এর পরিপ্রেক্ষিতে স্পেশাল ডিরেক্টর রাকেশ আস্থানার বিরুদ্ধে নির্দিষ্ট মামলা শুরু করে খোদ সিবিআই।
এবার সরাসরি কেন্দ্রীয় সরকারকে একটি চিঠি লিখে নিজের বিরুদ্ধে ওঠা যাবতীয় অভিযোগ অস্বীকার করে বর্তমান সিবিআই প্রধান অলোক ভর্মার বিরুদ্ধে পালটা তোপ দেগেছেন রাকেশ আস্থানা।
এনডি টিভির রিপোর্ট অনুযায়ী, আস্থানা জানিয়েছেন, সতীশ সানা নামের ওই ব্যবসায়ী ও শীর্ষ কিছু সিবিআই আধিকারিক ইচ্ছাকৃতভাবে মিথ্যা অভিযোগ এনে তাঁর নাম তদন্তে জড়াতে চাইছে। প্রায় দশটি ঘটনার উল্লেখ করে আস্থানার পালটা অভিযোগ, দুর্নীতির সাথে যুক্ত খোদ বর্তমান সিবিআই প্রধান অলোক ভর্মা। স্পেশাল ডিরেক্টর আস্থানা সিবিআই প্রধান অলোক ভর্মা ও তাঁর এক সহযোগী ভিজিলেন্স অফিসার অরুণ শর্মার বিরুদ্ধে তদন্তে হস্তক্ষেপ, দুর্নীতি এবং দুষ্কৃতীদের সুবিধে পাইয়ে দেওয়ার মতো গুরুতর অভিযোগ এনেছেন।
আস্থানার আরও অভিযোগ, তদন্তে নিজের নাম ধামাচাপা দিতে সতীশ সানা নামের ওই ব্যবসায়ী সিবিআই প্রধানকেই ২ কোটি টাকা ঘুষ দিয়েছেন। আস্থানার দাবি, তেলেগু দেশম পার্টির এক সাংসদের মাধ্যমে ওই ব্যবসায়ী অলোক ভর্মার সাথে যোগাযোগ করেছিলেন। গত ১০ আগস্ট কেন্দ্রীয় ক্যাবিনেট সেক্রেটারিকে চিঠি লিখে একথা জানিয়েছেন রাকেশ আস্থানা।
প্রশ্ন উঠছে, যে সংস্থা সারা দেশের বিভিন্ন ব্যক্তি, সংস্থার বিরুদ্ধে দুর্নীতির তদন্ত করে, তাদের দুই শীর্ষ কর্তা একে অপরের বিরুদ্ধে গুরুতর দুর্নীতির অভিযোগ আনায়, সিবিআই-এর কি আদৌ কোনও বিশ্বাসযোগ্যতা থাকছে?

You may also like