দৃষ্টান্ত: মহারাষ্ট্রের বিধায়কদের মধ্যে সবচেয়ে গরিব সিপিএমের বিনোদ নিকোল, বিধায়কদের গড় সম্পত্তি ১০ কোটি টাকার, নিকোলের সম্পত্তি ৫১ হাজার

সদ্য সমাপ্ত মহারাষ্ট্রের বিধানসভা নির্বাচনে ২৮৮ জন নির্বাচিত বিধায়কের মধ্যে সবচেয়ে কম সম্পত্তির মালিক সিপিএম বিধায়ক বিনোদ নিকোল। নির্বাচনের আগে নির্বাচনে কমিশনে জমা দেওয়া প্রার্থীদের সম্পত্তির তথ্য বিশ্লেষণ করে এই তথ্যই উঠে এসেছে অ্যাসোসিয়েশন ফর ডেমোক্রেটিক রিফর্মস বা এডিআর-এর রিপোর্টে।
জানা গিয়েছে, দাহানু বিধানসভা কেন্দ্র থেকে নির্বাচিত এই সিপিএম প্রার্থীর স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তির পরিমাণ মাত্র ৫১ হাজার ৮২ টাকার। তাঁর পরে সবথেকে কম সম্পত্তি থাকার নিরিখে যাঁর নাম উঠে আসছে তিনি হলেন বিজেপির মালশিরাস বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক রাম ভিট্টল শতপুতে। তাঁর স্থাবর-অস্থাবর সম্পত্তির পরিমাণ প্রায় ১০ লক্ষ টাকার! যে রাজ্যে জয়ী বিধায়কদের গড় সম্পত্তির পরিমাণ যেখানে ১০ কোটি টাকারও বেশি, সেখানে জয়ী একমাত্র সিপিএম বিধায়কের সম্পত্তি মাত্র ৫১ হাজার টাকার, যা এই সময়ে দাঁড়িয়ে ব্যতিক্রমী।
উল্টোদিকে, নবনির্বাচিত বিধায়কদের মধ্যে সম্পত্তির পরিমাণ সবথেকে বেশি ঘাটকোপার পূর্ব বিধানসভা থেকে নির্বাচিত বিজেপি প্রার্থী পরাগ শাহের। তাঁর মোট সম্পত্তির পরিমাণ ৫০০ কোটি টাকারও বেশি। তাঁর পরেই রয়েছেন মালাবার হিল থেকে জেতা বিজেপি বিধায়ক মঙ্গলপ্রভাত লোধা। তাঁর সম্পত্তির পরিমাণ প্রায় ৪৪১ কোটি টাকার। তৃতীয় স্থানে রয়েছেন পুরন্দরের কংগ্রেস বিধায়ক সঞ্জয় চন্দ্রকান্ত জগতপ। প্রায় ২৪৫ কোটি টাকার সম্পত্তির মালিক তিনি।
এডিআর-এর রিপোর্ট বলছে, মহারাষ্ট্রের নবনির্বাচিত ২৮৮ জন বিধায়কের মধ্যে ২৬৪ জন বিধায়কই কোটিপতি। ২০১৪ সালের বিধানসভা নির্বাচনে এই সংখ্যাটা ছিল ২৫৩। এবার বিজেপির ১০৫ জন বিধায়কের মধ্যে ১০০ জনই কোটিপতি। শিবসেনার ৫৬ জন বিধায়কের মধ্যে কোটিপতি বিধায়কের সংখ্যা ৫১। এনসিপি এবং কংগ্রেসের যথাক্রমে ৪৭ এবং ৪২ জন কোটিপতি বিধায়ক রয়েছেন। মহিলা বিধায়কের সংখ্যা গত নির্বাচনের তুলনায় ৪ জন বেড়ে হয়েছে ২৪ জন।

(বিনোদ নিকোলের ছবি সিপিএমের ট্যুইটার অ্যাকাউন্ট থেকে নেওয়া)

Comments
Loading...