বাংলা-ত্রিপুরার পর কেরলেও কি ধাক্কা বামেদের! কেরলে কংগ্রেস ১৩-১৪, বামেরা ৩-৫, বিজেপি ১ আসন পেতে পারেঃ ওপিনিয়ন পোল

একাধিক সংবাদমাধ্যমের ওপিনিয়ন পোলে আগেই ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে, বাংলায় বামেদের এবার কোনও আসন মিলছে না। এবার কেরলের ওপিনিয়ন পোলে সে রাজ্যেও সিপিএম নেতৃত্বাধীন এলডিএফের ভরাডুবির আশঙ্কা প্রকাশ করা হল। যদিও ওপিনিয়ন পোলের আগাম অনুমান অনেক সময়ই মেলে না, এটা ঠিক। কিন্তু ত্রিপুরা, বাংলায় সরকার চলে যাওয়ার পর সেখানে বিশেষ ভাল ফলের আশা কোনও সিপিএম নেতাই করছেন না, এই অবস্থায় কেরলেও বামেদের ভরাডুবি হলে গোটা দেশের নিরিখে তা হবে লোকসভার ইতিহাসে এক নজিরবিহীন ঘটনা।
প্রথম দফা নির্বাচনের ঠিক একদিন আগে কেরলের ওপিনিয়ন পোলে প্রশ্নাতীতভাবে এগিয়ে রাখা হয়েছে কংগ্রেস নেতৃত্বধীন ইউডিএফ জোটকে। কেরলের দুটি সংবাদমাধ্যমের ওপিনিয়ন পোলে দেখা যাচ্ছে, সে রাজ্যে ২০ টির মধ্যে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউডিএফ পেতে পারে ১৩-১৪ টি আসন, বামেরা পেতে পারে ৩ টি আসন। বিজেপি পেতে পারে ১ টি আসন।
মনোরমা নিউজ ও মাথরুভূমি নিউজের করা ওপিনিয়ন পোল বলছে, কেরলের অধিকাংশ আসনে এবার জয়লাভ করতে চলেছে কংগ্রেস।
রাজ্যের ২০ টি লোকসভা সিটের মধ্যে ১৩ টি আসনে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউডিএফ’কে এগিয়ে রেখেছে মনোরমা সংবাদমাধ্যমের ওপিনিয়ন পোল। মাত্র ৩ টি আসনে সিপিএম নেতৃত্বাধীন এলডিএফ জয়লাভ করবে বলে জানাচ্ছে তারা। বাকি ৪ টি আসনের লড়াইয়ে কাউকেই খুব বেশি এগিয়ে বা পিছিয়ে রাখছে না তারা। তাদের হিসেবে, সেখানে হবে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই।
অন্যদিকে, মাথরুভূমি নিউজের ওপিনিয়ন পোল মনোরমার চেয়েও একটি বেশি আসনে এগিয়ে রাখছে কংগ্রেসের ইউডিএফ জোটকে। ১৪ টি আসনে কংগ্রেস জয়লাভ করতে পারে বলে জানাচ্ছে মাথরুভূমি সংবাদমাধ্যমের ওপিনিয়ন পোল। বামেদের এলডিএফ জোটকে ৫ টি ও বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোটকে ১ টি আসনে এগিয়ে রাখছে মাথরুভূমি সংবাদমাধ্যমের পোল সার্ভে।
তবে মনোরমা সংবাদমাধ্যমের ওপিনিয়ন পোল অনুযায়ী, থিরুভনন্থপুরম কেন্দ্রে কংগ্রেসের সাংসদ শশী থারুর ও বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ প্রার্থী কুম্মানাম রাজাশেখরণের লড়াই এবার হাড্ডাহাড্ডি হবে। শশী থারুর হেরেও যেতে পারেন।
কেরলের ওয়েনাড় লোকসভা কেন্দ্র থেকে এই প্রথমবার প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন রাহুল গান্ধী। যদিও এই কেন্দ্রে কংগ্রেস সভাপতির লড়াই করার সিদ্ধান্ত ঘোষণার আগেই দুটি ওপিনিয়ন পোল করা হয়েছে, কিন্তু কেরলের দুটি সংবাদমাধ্যমের ওপিনিয়ন পোলই জানাচ্ছে, ওই কেন্দ্রে ৪০ শতাংশেরও বেশি ভোট পাবে কংগ্রেস।
সাবরীমালা মন্দিরে ঋতুমতী মহিলাদের প্রবেশের অধিকার নিয়ে আড়াআড়ি ভাগ হয়ে গিয়েছে কেরলের রাজনীতি। একদিকে সুপ্রিম কোর্টের রায় বলবৎ করতে কঠোর অবস্থান নিয়েছিল পিনারাই বিজয়নের বাম সরকার। অন্যদিকে, মন্দিরে মহিলা প্রবেশ রুখতে আন্দোলন শুরু করেছিল বিজেপি-আরএসএস। বিজেপির আন্দোলনে সমর্থন না জানালেও, তাদের অবস্থানের দিকেই ঝুঁকেছিল কংগ্রেস। সেই সাবরীমালা ইস্যু নিয়ে আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে উঠে এসেছিল পাঠানামথিত্তা কেন্দ্র। এই লোকসভা কেন্দ্রে কংগ্রেস নেতৃত্বাধীন ইউডিএফ জোট শেষ হাসি হাসবে বলে মত মনোরমা সংবাদমাধ্যমের প্রাক নির্বাচনী সমীক্ষার। কিন্তু মাথরুভূমির ওপিনিয়ন পোল বলছে, কংগ্রেসে প্রার্থীর ওই কেন্দ্রে লড়াই সহজ হবে না।
তবে মোটের ওপর, বামেদের চেয়ে কংগ্রেসই যে কেরলে অনেকটা এগিয়ে, সে ব্যাপারে দ্বিধাহীন দুই ওপিনিয়ন পোলই। যদি এই ওপিনিয়ন পোলের ইঙ্গিত ঠিক হয় তবে জাতীয় রাজনীতিতে এক প্রকার বিপর্যয় হতে চলেছে বামেদের।

Comments
Loading...