টুম্পা, লাল ফেরাও’ এর পর এবার পোস্ট কার্ড! বাম-প্রচারে অভিনবত্বের ছড়াছড়ি

বামেদের প্রচারে চমকের পর চমক। প্রচার থেকে শুরু করে প্রার্থী তালিকা সবেতেই চমক আনছে সংযুক্ত মোর্চা। আর ভোট প্রচারের অভিনবত্বে বাকিদের থেকে একটু হলেও এগিয়ে থাকছে বামেরা। সোশ্যাল মিডিয়া থেকে শুরু করে মাঠে ঘাটে, বাজারে প্রচারে ভালোরকম সাড়া ফেলেছে তাঁরা। এবার প্রচারের তালিকায় যোগ হল পোস্টকার্ড বিলি।

সিপিএমের কলকাতা জেলার সম্পাদক কল্লোল মজুমদার নিজের ফেসবুক প্রোফাইলে শেয়ার করেছেন এই অভিনব প্রচার সামগ্রী।

হাটে-বাজারে গেলে আপনার হাতেও উঠে আসতে পারে এই ঝলমলে পোস্টকার্ড। ঠিকানা? লেখা রয়েছে “জিনিসপত্রের মূল্যবৃদ্ধির বিরুদ্ধে আমার, আপনার সকলের ঠিকানা সংযুক্ত মোর্চা”।

এর আগে বামদের গানের প্যারোডি বাংলা মাতিয়েছে। ব্রিগেডের আগেই এসেছে ‘টুম্পা সোনা’ গানের প্যারোডি। এরপর ‘লাল ফেরাও, হাল ফেরাও’ গানের প্যারোডিও ঝড় তুলেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। বলিউডের জনপ্রিয় সিনেমার গান ‘লুঙ্গি ডান্স’ এর গানের সুরে তৈরি হয়েছে ‘লাল ফেরাও’ গানের প্যারোডি। যা হু হু করে ছড়িয়ে পড়ে ফেসবুক, টুইটার, টেলিগ্রাম, সিগনাল, হোয়াটসঅ্যাপে।

যদিও এই প্রচার পদ্ধতিকে অনেকেই বামদের সংস্কৃতি বিরুদ্ধ বলে প্রশ্ন তুলেছিলেন। সে সব মাথায় রেখে এবার এক অভিনব পদ্ধতি আনা হয়েছে প্রচারে। জিনিসপত্রের মূল্যবৃদ্ধির বিরুদ্ধে বাজারে বাজারে চলছে এই প্রচার। যেখানে ছড়ার মাধ্যমে লেখা রয়েছে,
কৃষক বেচে দু’তিন টাকায়
বাজারে দাম ষাট টাকা

ভারত জুড়ে রাজ্য জুড়ে
মরলে চাষা খাবো কী?

বিগত ১০ বছরের বাজার দরের হিসেব তুলে দেওয়া হয়েছে এই পোস্ট কার্ডে। যেখানে দেখা যাচ্ছে, ২০১০ সালে আলুর দাম ছিল ১০ টাকা, যা ২০২০ সালে এসে দাঁড়িয়েছে কেজিপ্রতি ৪৩ টাকা।
পেঁয়াজের দাম ছিল ১৫ টাকা, যা ২০-তে ৬৫ টাকা।
সরষের তেলের দাম ছিল ৫২ টাকা, যা ২০ সালে ১২০ টাকায় এসে পৌঁছেছে।
মুসুর ডালের দাম ছিল ৪৮ টাকা। ২০-তে কেজি প্রতি এই ডালের দাম ১০০ টাকা।

বাজারে গেছেন, জিনিসপত্রের মূল্যবৃদ্ধিতে মাথায় হাত? ভাবছেন কীভাবে চলবে সংসার! ঠিক সেই সময় এই কার্ড হাতে তুলে দেবেন এলাকারই কোনও বাম কর্মী সমর্থক। এভাবেই চলবে প্রচার।

Comments
Loading...