গাড়ি শিল্পে ভয়াবহ সঙ্কট, জুলাইয়ে বিক্রি কমেছে ৩১ শতাংশ, কেন্দ্রীয় হস্তক্ষেপের আবেদন

ভয়াবহ মন্দার মুখে ভারতের গাড়ি বাজার। জুলাই মাসে যাত্রীবাহী গাড়ি বিক্রি কমেছে প্রায় ৩১ শতাংশ, বাণিজ্যিক পরিবহণে ব্যবহৃত গাড়ি বিক্রির হার কমেছে ২৫ শতাংশেরও বেশি। গত দু’দশকের মধ্যে সবচেয়ে খারাপ পরিস্থিতি। গাড়ি বাজারের মন্দার পরিসংখ্যান তুলে ধরে অটোমোবাইল সেক্টরে দ্রুত কেন্দ্রীয় সরকারের হস্তক্ষেপের আর্জি জানাল সোসাইটি অফ ইন্ডিয়ান অটোমোবাইল ম্যানুফাকচারার্স (সিয়াম)। টানা ৯ মাস ধরে যাত্রী পরিবাহী গাড়ি বিক্রি কমছে তাৎপর্যপূর্ণভাবে, মঙ্গলবার সিয়ামের রিপোর্টে উঠে এলো গাড়ি বাজারের সেই দুর্বিষহ চিত্র।
সিয়ামের সাম্প্রতিক রিপোর্ট বলছে, জুলাই মাসে চারচাকা থেকে দু’চাকার মোটর গাড়ি, সবেরই বিক্রি কমছে হু-হু করে। যাত্রীবাহী গাড়ি বিক্রি কমেছে ৩০.৯ শতাংশ, চার চাকার ছোট গাড়ি বিক্রিও কমেছে ৩৬ শতাংশ। জুলাই মাসে ২৫.৭ শতাংশ কমেছে বাণিজ্যিক কাজে ব্যবহৃত গাড়ি বিক্রি। বাইক ও স্কুটার বিক্রিতেও একই অবস্থা। জুলাই মাসে বাইক ও স্কুটার বিক্রি কমেছে ১৬.৮ শতাংশ।
মঙ্গলবার সিয়ামের প্রেসিডেন্ট বিষ্ণু মাথুর জানান, এই তথ্য থেকে পরিষ্কার যে দেশের গাড়ি বাজার এখন কোথায় দাঁড়িয়ে। গাড়ি সংস্থাগুলি তাদের সাধ্যমতো চেষ্টা চালালেও, বর্তমান পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার জন্য তা যথেষ্ট নয়। গাড়ি শিল্পের ঘুরে দাঁড়াতে দ্রুত সরকারি হস্তক্ষেপের আবেদন জানিয়েছেন। অন্যথায় আরও বেশি সংখ্যক মানুষ কর্মহীন হবেন বলে আশঙ্কা সংগঠনের।
কয়েক মাস ধরে টানা মন্দার জেরে দফায় দফায় উৎপাদন বন্ধ রাখছে অটোমোবাইল সংস্থাগুলি। চলছে নাগাড়ে কর্মী ছাঁটাই। মারুতি সুজুকি ১,২০০ কর্মীকে ইতিমধ্যে ছাঁটাই করেছে বলে খবর। গত কয়েক মাসে হন্ডা মোটরস থেকে কাজ হারিয়েছেন প্রায় ৭০০ কর্মী। গাড়ি শিল্পের সঙ্গে যুক্ত কয়েক লক্ষ মানুষের রুজি রোজগার প্রশ্নের মুখে। এই প্রেক্ষিতে গত বুধবার কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারমনের সঙ্গে দীর্ঘ বৈঠক করেন অটোমোবাইল সংস্থার শীর্ষ কর্তারা। পরিস্থিতি মোকাবিলায় জিএসটি অন্তত ১০ শতাংশ কমানোর আবেদন জানান তাঁরা। বর্তমানে ২৮ শতাংশ হারে জিএসটি লাগু। কিছু সময়ের জন্য সেই হার কমিয়ে ১৮ শতাংশ করার আর্জি জানিয়েছেন তাঁরা।

Comments
Loading...