সুখবর: বাংলায় সংক্রমিতকে ছাড়িয়ে গেল সুস্থ হওয়ার সংখ্যা, সংক্রমণ বেশি কলকাতা সহ ৩ জেলায়, সবচেয়ে কম ঝাড়গ্রামে

এর আগে পরপর দু’দিন কমেছিল অ্যাকটিভ কোভিড রোগীর সংখ্যা। এবার বাংলায় সংক্রমিতের সংখ্যাকে ছাপিয়ে গেল সুস্থ হওয়া মানুষের সংখ্যা। মঙ্গলবার সকাল ৯ টা পর্যন্ত রাজ্যে মোট অ্যাকটিভ কোভিড সংক্রমিতের সংখ্যা ৫,৮৮৬। সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরে গেছেন ৬,০২৮ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে মৃত্যু হয়েছে ১০ জনের। এর ফলে মোট মৃতের সংখ্যা হল ৪৯৫।
করোনা পর্ব শুরুর পর গত রবিবার ও সোমবার মোট অ্যাকটিভ কোভিড কেসের সংখ্যা কমে। গত শনিবার রাজ্যে মোট অ্যাকটিভ কেসের সংখ্যা ছিল ৫,৬৯৩, রবিবার প্রথমবার তা কমে হয় ৫,৫৫২ এবং সোমবার দ্বিতীয় দিন তা আরও কমে হয় ৫,৫১৫। কিন্তু সেই সময় চিন্তার জায়গা ছিল সুস্থ এবং সংক্রমিতের পার্থক্য। তবে মনে করা হয়েছিল, কয়েকদিনের মধ্যেই সুস্থ মানুষের সংখ্যা পেরিয়ে যাবে মোট সংক্রমিতের সংখ্যাকে। তারপর কেটেছে মাত্র ২৪ ঘণ্টা। তার মধ্যেই অ্যাকটিভ কোভিড রোগীর সংখ্যাকে ছাপিয়ে গেল সুস্থ হওয়া মানুষের সংখ্যা।
স্বাস্থ্য দফতরের তরফে প্রকাশ করা তালিকায় দেখা যাচ্ছে, করোনা সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে প্রায় সমস্ত জেলায়। তবে কলকাতা, দুই ২৪ পরগনা, হাওড়ায় প্রকোপ বেশি। গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যের জেলাওয়াড়ি হিসেবে সবচেয়ে বেশি সংক্রমিতের সন্ধান মিলেছে কলকাতায়। এছাড়া উত্তর ২৪ পরগনা এবং হাওড়াতেও কোভিড রোগীর সংখ্যা বেড়েছে উল্লেখযোগ্য হারে।
স্বাস্থ্য দফতরের হিসেব অনুযায়ী, মঙ্গলবার সকাল ৯ টা পর্যন্ত কলকাতায় মোট সংক্রমিতের সংখ্যা ৩,৯৪৬। তার মধ্যে ১,৫৪৮ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গিয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ৩০১ জনের। ফলে কলকাতা জেলায় এখন মোট অ্যাকটিভ কোভিড রোগীর সংখ্যা ২,০৯৭। এরপরেই রয়েছে হাওড়া। সেখানে মোট সংক্রমিতের সংখ্যা ১,৭৯৮। ৯৮৬ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গিয়েছেন। মৃত্যু হয়েছে ৬৫ জনের। ফলে মোট অ্যাকটিভ সংক্রমিতের সংখ্যা ৭৪৭। উত্তর ২৪ পরগনায় মোট সংক্রমিতের সংখ্যা ১,৬৮৯। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৮৭৪ জন। মৃত্যু হয়েছে ৭৭ জনের। ফলে মঙ্গলবার সকাল ৯ টা পর্যন্ত উত্তর ২৪ পরগনায় মোট অ্যাকটিভ কোভিড কেসের সংখ্যা দাঁড়াল ৭৩৮। দক্ষিণ ২৪ পরগনায় মোট সংক্রমিতের সংখ্যা ৪৭৪। সুস্থ হয়েছেন ১৭৪ জন। মৃত ১৬। মঙ্গলবার সকাল ৯ টায় দক্ষিণ ২৪ পরগনায় মোট অ্যাকটিভ কেসের সংখ্যা ২৮৪।
সরকারি হিসেবে দেখা যাচ্ছে, ঝাড়গ্রামে ১৯ জন সংক্রমিত ছিলেন। তার মধ্যে ১১ জন সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন। একজনেরও মৃত্যু হয়নি। এই মুহূর্তে ঝাড়গ্রামে অ্যাকটিভ কোভিড রোগীর সংখ্যা ৮ জন। পুরুলিয়াতে মোট সংক্রমিতের সংখ্যা ছিল ৮৬। ইতিমধ্যেই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৮৪ জন। মৃত্যু হয়নি। এই মুহূর্তে পুরুলিয়া জেলায় অ্যাকটিভ কোভিড কেসের সংখ্যা ২।

Comments
Loading...