কাশ্মীরে নিহত ৫ জঙ্গি, গুলির লড়াইয়ের মাঝে পড়ে প্রাণ হারালেন এক মহিলা

কাশ্মীরে জঙ্গিদের সঙ্গে নিরপত্তা বাহিনীর পৃথক দুই সংঘর্ষে মৃত্যু হল ৫ জঙ্গির। পুলিশ জানিয়েছে, শুক্রবার প্রথম সংঘর্ষটি হয় বারামুলা জেলায়। সেখানে সীমান্ত পেরিয়ে জঙ্গিদের এদেশে প্রবেশের প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয় নিরাপত্তা বাহিনীর তৎপরতায়। জম্মু কাশ্মীর পুলিশের তরফে দাবি করা হয়েছে, উত্তর কাশ্মীরের বারামুলায়, উরির কাছে আন্তর্জাতিক সীমান্ত পেরিয়ে ভারতে প্রবেশের চেষ্টা চালাচ্ছিল ৩ জঙ্গি। নিরাপত্তারক্ষীরা তাদের বাধা দিলে, শুরু হয় দুই পক্ষের গুলির লড়াই। মারা যায় ৩ জঙ্গি। পুলিশ জানিয়েছে, গুলির আঘাতেই তাদের মৃত্যু হয়েছে, তবে দেহ উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি। ঘটনাস্থল থেকে ৪ টি এ কে সিরিজের বন্দুকসহ প্রচুর আগ্নেয়াস্ত্রও উদ্ধার করেছে পুলিশ।
শুক্রবার জঙ্গি-নিরাপত্তা বাহিনীর মধ্যে দ্বিতীয় সংঘর্ষটিও হয় বারামুলাতেই। পুলিশ জানিয়েছে, শুক্রবার দুপুরে বারামুলা রেল স্টেশনের কাছে ক্রালহাল এলাকায় এই সংঘর্ষ হয়। বারামুলা-শ্রীনগর হাইওয়ে ধরে একটি কালো স্করপিও করে পালাচ্ছিল দুই জঙ্গি। তল্লাশির জন্য পুলিশ তাদের দাঁড়াতে বললে, নিরাপত্তা বাহিনীকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে জঙ্গিরা। পালটা জবাব দেয় পুলিশও। এনকাউন্টারে ২ জঙ্গিরই মৃত্যু হয়। গুলিতে আহত হয় গাড়ির চালক। তাঁকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়, পরে তাঁকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। পুলিশ জানিয়েছে, মৃত ২ জঙ্গিই পাকিস্তানের বাসিন্দা, এবং জৈশ ই মহম্মদ গোষ্ঠীর সদস্য।
অন্যদিকে, দক্ষিণ কাশ্মীরের পুলওয়ামায় শাদিমার্গ গ্রামে শুক্রবার সন্ধ্যায় জঙ্গি-নিরাপত্তা বাহিনীর সংঘর্ষের মাঝে পড়ে মৃত্যু হয়েছে এক গর্ভবতী মহিলার। পুলিশ জানিয়েছে, ওই গ্রামে ৪৪ রাষ্ট্রীয় রাইফেলের ক্যাম্প লক্ষ্য করে প্রথমে গ্রেনেড ছোড়ে জঙ্গিরা। পালটা জবাব দেয় সেনা জওয়ানরাও। দুই পক্ষের মধ্যে কয়েক মিনিট তীব্র গুলির লড়াই চলে। তার মাঝে পড়ে যান, ফিরদোসা নামে এক গর্ভবতী মহিলা। পরে আহত অবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলেও তাঁকে বাঁচানো সম্ভব হয়নি। পরে পুলওয়ামায় একটি পুলিশ ক্যাম্প লক্ষ্য করেও গুলি চালিয়ে পালিয়ে যায় দুস্কৃতীরা।

Comments
Loading...