শীতের আমেজ গায়ে মেখে শুরু হয়ে গিয়েছে কলকাতায় বড়দিনের উদযাপন পর্বের প্রস্তুতি। হাতে আর মাত্র কটাদিন। তারপরই আলোর মালায় সেজে উঠবে পার্ক স্ট্রিট। আকাশ বাতাস মাতাল করে বইবে কেকের গন্ধ। কলকাতায় বড়দিন মানেই ভূবনমোহিনী কেকের সাম্রাজ্য, কবজি ডুবিয়ে পশ্চিমী খানাপিনা। আর সে সবের প্রস্তুতিও শুরু হয়ে গিয়েছে জোরেশোরে।
বড়দিন নামটি মনে এলেই নাকে এসে লাগে গরম কেকের মনমাতানো খোশবাই। আর কেক মানেই নিউ মার্কেটের নাহুমস। বাগদাদ থেকে গঙ্গাপাড়ে এসে কেকের দোকানের প্রতিষ্ঠার পর কেটে গিয়েছে অন্তত দেড়শো খানা বড়দিন। নাহুমস ক্রমেই হয়ে উঠেছে বঙ্গজীবনের অবিচ্ছেদ্য অঙ্গ। এবারের বড়দিন উপলক্ষ্যেও নাহুম আনছে বেশ কিছু স্পেশাল কেকের পসরা। স্বাদে-গন্ধে জগৎ মাতানো এই স্পেশাল কেক কিনতে নিউ মার্কেটে ট্র্যাফিক জ্যাম লাগাটাও অসম্ভব নয়। উপরি হিসেবে রয়েছে বিভিন্ন স্বাদ গন্ধের পেস্ট্রি, প্যাটি। আর নাহুমের আগমার্কা রাম বলের স্বাদ নিতে আগ্রহী নন, এমন বাঙালি আছেন নাকি কেউ?
নাহুমসের পাশাপাশি ফ্লুরিজও নিজ চরিত্রে উজ্জ্বল। তবে কেবলমাত্র পার্ক স্ট্রিটই নয়, ফ্লুরিজ এখন আপনার পাড়াতেও। সম্প্রতি ফ্র্যাঞ্চায়েজি দেওয়া শুরু করেছে প্রাচীন এই কনফেকশনার। ফলে লাইন এড়াতে পাড়ার ফ্লুরিজেও ঢু মারতেই পারেন। তবে নাহুমস আবার ফ্র্যাঞ্চায়েজি ঘরাণার ঘোর বিরোধী। নাহুমসের বর্তমান কর্তারা বলেন, এ স্বাদের ভাগ হবে না। এখনও এটাই নাহুমসের আভিজাত্য। শুধু কি মিঠে, বড়দিনে ঝাল-ঝাল পশ্চিমি পদ চাখতে বড়ই উতলা হয় বাঙালি। মজুত রয়েছে বিশ্বমানের বিলিতি খাওয়ার আস্তানাও। সব সেরা পর্কের সম্ভার নিয়ে তৈরি হচ্ছে চামনস। পার্ক সার্কাস মার্কেটের চামনসে লিন পর্কের পাশাপাশি একটু অপেক্ষা করলে, মিলবে হাতে গরম সসেজ বা সালামি। একেবারে চোখের সামনে সসেজ তৈরি দেখা, বাঙালির কাছে পরে পাওয়া চোদ্দআনা। চামনসও বড়দিন উপলক্ষে আনছে বেশ কিছু স্পেশাল উপকরণ। এতেও মন ভরছে না?
কেক, পেস্ট্রি ছাড়াও বড়দিনের একটা বড় আকর্ষণ পার্ক স্ট্রিটে খাওয়া-দাওয়া। পার্ক স্ট্রিটকে ঢেলে সাজাচ্ছে পর্যটন দফতর। পার্ক স্ট্রিট বড়দিনের মরসুমে শহরবাসীর কাছে একটা বড় আকর্ষণ। রাস্তার ধারে পসরা সাজিয়ে বসছে বিভিন্ন খাবারের দোকান। বড়দিনে কলকাতার চিনে রেস্তরাঁতে মেলে বিভিন্ন স্বাদের এবং অনুভূতির খাবার। কিন্তু ক্রিসমাসে কলকাতার আলটিমেট ডেস্টিনেশন বউ বাজারের বো ব্যারাকস। শীতের কলকাতায় বো ব্যারাকসের জিঞ্জার ওয়াইন আজও পেয়ালায় তুফান তোলে।
উদরতৃপ্তির পর এবার ঘোরাফেরা। চিড়িয়াখানা, ময়দান, ইকো পার্ক কিংবা ভিক্টোরিয়াতে যে পা ফেলার জায়গা থাকবে না, বলাই বাহুল্য। রাজ্যের পর্যটন দফতর গোটা শহরকেই সাজিয়ে তুলছে এক অন্য সাজে। ভিড়ের ঠেলায় নাজেহাল না হতে চাইলে পর্যটন দফতরের বিভিন্ন স্পটে ঢু মারতেই পারেন।

 

ধারাবাহিকভাবে পাশে থাকার জন্য The Bengal Story র পাঠকদের ধন্যবাদ। আমরা শুরু করেছি সাবস্ক্রিপশন অফার। নিয়মিত আমাদের সমস্ত খবর এসএমএস এবং ই-মেইল এর মাধ্যমে পাওয়ার জন্য দয়া করে সাবস্ক্রাইব করুন। আমরা যে ধরনের খবর করি, তা আরও ভালোভাবে করতে আপনাদের সাহায্য আমাদের উৎসাহিত করবে।

Login Subscribe

You may also like

Mamata Appeal